চট্টগ্রামে ছেলের সামনে মাকে গলাটিপে-333052 | শেষের পাতা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৫ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৭ জিলহজ ১৪৩৭


চট্টগ্রামে ছেলের সামনে মাকে গলাটিপে হত্যা, লুট

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম ও বরিশাল   

৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



চট্টগ্রামে ছেলের সামনে মাকে গলাটিপে হত্যা, লুট

চট্টগ্রামের বায়েজিদ বোস্তামী থানার রৌফাবাদ এলাকার একটি বাসায় ঢুকে ছেলের সামনেই মা পারভীন আক্তারকে (৩৮) গলাটিপে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। পাশাপাশি ওই বাসা থেকে স্বর্ণালংকারসহ মালামাল লুট করা হয়েছে। গত শনিবার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজনকে আটক করা হয়েছে।

অন্যদিকে বরিশালে একটি ওষুধ কম্পানির ডিপোতে হানা দিয়ে নগদ টাকা, একটি পিকআপ ভ্যানসহ প্রায় কোটি টাকার মালামাল লুট করেছে ডাকাতরা। গতকাল ভোররাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত পারভীন আক্তার কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির ১৩ নম্বর সড়কের ৩৮ নম্বর প্লটের বাড়ির বাসিন্দা। তাঁর স্বামী দুবাইপ্রবাসী নূরুল আলম। ছয়তলা ভবনের তিনতলায় পারভীন তাঁর পঞ্চম শ্রেণিপড়ুয়া ছেলে মোহাম্মদ সাঈদকে নিয়ে থাকতেন। একই ভবনের অন্য ফ্ল্যাটে তাঁর ভাসুর আবদুস শুক্কুর পরিবার নিয়ে বাস করেন। তাঁদের গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ির ছাদেকনগর এলাকায়।

নিহতের ছেলে সাঈদ জানায়, তার গৃহশিক্ষক শনিবার রাত ৮টার দিকে তাকে পড়াতে বাসায় আসেন এবং রাত ৯টার দিকে দরজা খুলে বেরিয়ে যান। শিক্ষক যাওয়ার পর সে নিজের বইপত্র গোছাচ্ছিল। এ সময় তিনজন লোক তাদের বাসায় ঢোকে। এদের একজন মাকে জিজ্ঞেস করে, তাকে চিনতে পেরেছে কি না। তখনই মা চিত্কার করেন। মুহূর্তের মধ্যে ওই তিনজন তার মাকে শোয়ার রুমে নিয়ে বিছানায় ফেলে কেউ গলা টিপে ধরে, কেউ হাত চেপে ধরে। একপর্যায়ে যে লোকটি মায়ের গলা টিপে ধরেছিল, সে উঠে গিয়ে সাঈদকে টেনে বাথরুমে নিয়ে যায়। তারপর তারা আলমিরা খুলে গয়না, মোবাইল ফোন, ট্যাব ও টাকা নিয়ে যায়।

সাঈদ বলে, ‘এরই মধ্যে মা দ্বিতীয় দফায় চিত্কার করলে দুর্বৃত্তরা মাকে দ্বিতীয় দফায় গলা চেপে ধরে। ওই লোকগুলো বেরিয়ে যাওয়ার সময় আমাকে বলে, তোর মা অজ্ঞান হয়ে গেছে। মুখে পানি দে। এরপর আমি মায়ের মুখে পানি দেই এবং আম্মু আম্মু বলে ডাকতে থাকি। কিন্তু মায়ের আর জ্ঞান ফেরেনি।’

সাঈদ জানায়, এরপর সে দরজা খোলার চেষ্টা করে। কিন্তু বাইরে থেকে দরজা বন্ধ থাকায় দরজা খুলতে পারেনি। তার চিত্কার শুনে চাচাতো ভাই আবদুর রহমান মাসুদ এসে দরজা খোলার পর স্বজনরা মাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বায়েজিদ বোস্তামী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন কালের কণ্ঠকে বলেন, পারভীন আক্তারের লাশ ময়নাতদন্ত করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তরের পর স্বজনরা লাশ গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়িতে নিয়ে গেছে। সেখানেই দাফন হবে। সোমবার (আজ) পারভীনের স্বামী দুবাই থেকে ফিরছেন। এর পরই হত্যা মামলা দায়ের হবে বলে স্বজনরা জানিয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন, হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করা যাবে না। ওই বাসার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে তথ্য বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। ওই বাসায় কারা প্রবেশ করেছে এবং বের হয়েছে, তা দেখে লোকগুলো শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।

নগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) পরিতোষ ঘোষ কালের কণ্ঠকে বলেন, আপাতত ঘটনাটিকে ডাকাতিসহ হত্যার ঘটনা বলেই মনে হচ্ছে। এর পরও পুলিশের সন্দেহের তালিকায় ওই বাসার কয়েকজন আছে।

অন্যদিকে ওষুধ কম্পানি ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালসের বরিশাল নগরীর সিঅ্যান্ডবি রোডে ডিপোতে গতকাল ভোররাতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ডাকাতের হামলায় মামুন, আসলাম, মহারাজ, আবুলসহ চার নিরাপত্তাকর্মী আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ডাকাতদল নগদ টাকা ও একটি পিকআপ ভ্যানসহ প্রায় কোটি টাকার মালামাল লুট করেছে বলে দাবি ইনসেপটা কর্তৃপক্ষের।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার লুত্ফর রহমান মণ্ডল বলেন, সকালে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ ধারণা করছে, ঘটনার সঙ্গে নিরাপত্তাকর্মীদের সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। তাই লিখিত অভিযোগ পেলেই নিরাপত্তকর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

মন্তব্য