kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মারমুখী আ. লীগ প্রার্থীরা বাড়ি প্রতিষ্ঠানে হামলা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



মারমুখী আ. লীগ প্রার্থীরা  বাড়ি প্রতিষ্ঠানে হামলা

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। গতকাল রবিবার ভোলা সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগের এক বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা হয়েছে।

পিরোজপুরের নাজিরপুরে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং বিএনপি সমর্থিত মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। নোয়াখালীর হাতিয়ায় আওয়ামী লীগের এক বিদ্রোহী প্রার্থীর বাড়িতে হামলায় প্রার্থীর বাবাসহ দুজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এ তিনটি স্থানে মোট ৩৫ জন আহত হয়েছে। এ ছাড়া পটুয়াখালীতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পুলিশি তল্লাশি করা হচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হয়েছে। সাতক্ষীরায় বিএনপির এক প্রার্থীকে বসে যাওয়ার জন্য প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে।

শনিবার মধ্যরাত থেকে গতকাল দুপুর পর্যন্ত ভোলা সদর উপজেলার ৩ নম্বর ইলিশা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জহির উদ্দিনের ১১টি নির্বাচনী অফিস, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয় এবং তাঁর কর্মী-সমর্থকদের বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ২৫ জন আহত হয়। আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী গিয়াসউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি মাইক্রোবাস ও ১৩টি মোটরসাইকেল নিয়ে এ তাণ্ডব চালানো হয় বলে জহির উদ্দিনের অভিযোগ।

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার ৭ নম্বর শেখমাটিয়া ইউনিয়নের বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী তৌহিদুল ইসলাম অভিযোগ করেন, সকাল সাড়ে ১১টার দিকে গরঘাটা  হরিসভা মন্দিরের কাছে পোস্টার লাগানোর সময় তাঁর কর্মীদের ওপর নৌকা প্রতীকের ১০-১২ জন কর্মী মোটরসাইকেলে এসে অতর্কিত হামলা করে। এ হামলায় হাসান শেখ (৪৮), রবিউল ভুইয়া (২৩), সজীব শেখ (২৩), আছাদ কবিরাজ (৩২), বিনয় মালি (৪৫) গুরুতর আহত হন। পরে দুপুর ১২টার দিকে ইউনিয়নের রঘুনাথপুর হাই স্কুল এলাকায় পোস্টার লাগানোর সময় ২ নম্বর ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত ইউপি সদস্য প্রার্থী মো. মোস্তাজির মোল্লার স্কুল পড়ুয়া ছেলে সাকিল আহম্মেদকে (১২) পানিতে চুবানো এবং দুই সমর্থককে মারধর করা হয়। এ ছাড়া মোস্তাজিরকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা মো. জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে।

পটুয়াখালী জেলা বিএনপি গতকাল সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেছে, গত শুক্রবার গ্রেপ্তার হওয়া জেলার পটুয়াখালী সদর উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুস সালাম শরীফের কর্মীদের বাড়িতে তল্লাশির নামে পুলিশ হয়রানি করছে। তাঁর সমর্থকদর বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হচ্ছে। এ ছাড়া উপজেলার অন্যান্য ইউনিয়নে প্রার্থীদের বাসাবাড়িতে হামলা করা হচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এম এ রব মিয়া।

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ১২ নম্বর গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগ উঠেছে। বিএনপির দলীয় প্রার্থী মাসুদুল আলম গতকাল সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগে বলেন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলী আজম টিটু ও তাঁর লোকজন ভোটারদের হুমকি দিচ্ছে যে ভোটারদের প্রকাশ্যে টেবিলে নৌকা প্রতীকে সিল মারতে হবে। না হলে মিথ্যা মামলায় জড়ানো বা জীবন হুমকির মুখে পড়বে। অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আলী আজম টিটু।

নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার চরকিং ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী  চেয়ারম্যান প্রার্থী মহিউদ্দিন মুহিনের বাড়িতে গতকাল দুপুরে হামলায় তাঁর বাবাসহ দুজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। হামলার জন্য আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মহিউদ্দিন আহমেদের লোকজনকে দায়ী করা হয়েছে। আহতরা হলেন বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মুহিনের বাবা আমির হোসেন (৬০) ও তাঁদের পরিবারের সদস্য ইউনুস হোসেন হূদয় (১৮)। তাঁদের মধ্যে হূদয়কে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং আমির হোসেনকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী বাছাই নিয়ে দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ককটেল বিস্ফোরণসহ দা, রামদা ও লাঠির মহড়া দেখা গেছে। গতকাল বিকেলে ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় এ ঘটনা ঘটে। আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।

[প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করেছেন সংশ্লিষ্ট জেলা ও উপজেলার প্রতিনিধিরা]


মন্তব্য