kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গ্রামে ১৩ হাজার সেতু ও কালভার্ট বানানো হবে

‘ঢাকা বাইপাস’ প্রকল্পও অনুমোদন একনেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গ্রামে ১৩ হাজার সেতু ও কালভার্ট বানানো হবে

যাতায়াতব্যবস্থার উন্নয়নে গ্রামাঞ্চলে ১৩ হাজার ছোট সেতু ও কালভার্ট নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ১৫ মিটার দৈর্ঘ্যের প্রতিটি সেতুর নির্মাণকাজ আগামী তিন বছরের মধ্যে শেষ করবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ-সংক্রান্ত একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ব্যয় হবে তিন হাজার ৬৮৪ কোটি টাকা। সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে এই অর্থ জোগান দেওয়া হবে। শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন।

৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে মাদারীপুরে জেলা শহরে ‘সব সরকারি অফিসের জন্য বহুতল ভবন নির্মাণ’ শিরোনামের আলাদা একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে সভায়। সরকারি সব সেবা এক ছাদের নিচে আনতে মডেল হিসেবে মাদারীপুর জেলাকে বেছে নিয়েছে সরকার। সে আলোকে মাদারীপুরে একটি বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে; যেখানে ২৮টি মন্ত্রণালয়ের সেবা একসঙ্গে পাওয়া যাবে। এতে মানুষের দুর্ভোগ ও হয়রানি কমবে। প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এটি পাইলট আকারে নেওয়া হয়েছে। আগামী দিনে সব জেলায় যাতে সরকারি সেবা একই ছাদের নিচে পাওয়া যায়, সে জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ প্রকল্প তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। ওই প্রকল্পের আওতায় বাকি ৬৩ জেলায়ও বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে; যেখানে সরকারের সব সেবা ওই ভবনেই পাওয়া যাবে।

গতকালের একনেক সভায় ঢাকা মহানগরের যানজট দূর করতে ‘ঢাকা বাইপাস’ নামের আলাদা একটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ২৩৬ কোটি টাকা। প্রকল্পটি সরকারি-বেসরকারি অংশীদারির (পিপিপি) ভিত্তিতে বাস্তবায়ন করা হবে। প্রস্তাবিত ৪৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের সড়কটি জয়দেবপুর-টাঙ্গাইল জাতীয় মহাসড়ক ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সংযোগ ঘটাবে। এ ছাড়া ঢাকা-সিলেট জাতীয় মহাসড়ক ও ঢাকা-ময়মনসিংহ জাতীয় মহাসড়কেরও সংযোগ করবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দেশের উত্তর-পশ্চিম থেকে আসা বাস ও ট্রাক ঢাকা শহরে প্রবেশ না করে সরাসরি পূর্ব ও দক্ষিণাঞ্চলের জেলায় যেতে পারবে।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, একনেক সভায় ছয় হাজার ৬৫১ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে পাঁচ হাজার ৬৯৪ কোটি ৫৬ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৯৫৬ কোটি ১৯ লাখ টাকা জোগান দেওয়া হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে বলেছেন তিনি প্রথম আলো ও ডেইলি স্টার পত্রিকা পড়েন না। প্রধানমন্ত্রী না পড়লেও আমি পত্রিকা দুটি পড়ি অন্য কারণে। প্রধানমন্ত্রী পত্রিকা দুটিকে অতিমাত্রায় বিশ্বাস করতেন। এ বিশ্বাসের অমর্যাদা করা হয়েছে। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী পত্রিকা দুটি পড়েন না। ’ মন্ত্রী বলেন, ‘কেউ কিছু বললেই কাজটা করে ফেলা উচিত হয়নি। আমার জীবন থেকেও দুই বছর চলে গেছে জেলে থাকার কারণে। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী অনেক দুঃখে এ কথা বলেছেন। মিথ্যা অপবাদ দিয়ে তাঁকেও জেলে ঢোকানো হয়েছিল। জেলে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার দুই পাশে মানুষ দাঁড়িয়ে দেখত। কী অপমান সহ্য করতে হয়েছে! কিন্তু কোনো মামলায় দোষী প্রমাণিত হননি। ’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘অনেকে রাজনীতি পছন্দ করেন না। ভুলত্রুটি থাকতে পারে। তার জন্য রাজনীতি বন্ধ করা ঠিক না। কারণ রাজনীতি না থাকলে দেশ চালাবে কারা?’ ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামের সমালোচনা করে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘কেউ তথ্য দিল, আর আপনি সেটি যাচাই-বাছাই না করেই ছেপে দিলেন! এটা গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। প্রতিটা বিষয়ের একটা সীমা আছে, এটা অতিক্রম করা উচিত নয়। ’ মন্ত্রী বলেন, দেশের সব কিছুই রাজনীতিবিদদের হাত ধরে এসেছে। তাঁদের বাদ দিয়ে কিছু হবে না।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা সচিব তারিক উল ইসলাম, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ড. শামসুল আলম, তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কানিজ ফাতেমা প্রমুখ।

গতকাল একনেক সভায় অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো এক হাজার ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্প, ৩৯৮ কোটি টাকা ব্যয়ে বৃহত্তর রাজশাহী জেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প, ২৭৫ কোটি টাকা ব্যয়ে চারটি টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্প, ২২৯ কোটি টাকা ব্যয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্স স্থাপন প্রকল্প এবং ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণ (সংশোধিত) প্রকল্প।


মন্তব্য