kalerkantho


পরকীয়ায় বাধা পেয়ে স্ত্রী হত্যার অভিযোগ

বরিশাল অফিস   

৬ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



বরিশালের উজিরপুরে গৃহবধূ রীনা বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরকীয়া প্রেমে বাধা দেওয়ার জেরে তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে গত রবিবার রাতে উপজেলা সদরের দক্ষিণ মাদরাসা এলাকায়।

রীনা একই এলাকার শিপন হাওলাদারের স্ত্রী ও গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর বাসুদেবপাড়ার আক্কেল আলী সর্দারের মেয়ে। খবর পেয়ে পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর স্বামী শিপন হাওলাদার, শ্বশুর ইসমাইল হাওলাদার ও শাশুড়ি সুফিয়া বেগমকে আটক করা হয়েছে।

জানা যায়, মাত্র দেড় বছর আগে শিপনের সঙ্গে রীনার বিয়ে হয়। ঘটনার রাতে রীনাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান স্বামী। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তানভীর তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। কিন্তু রীনার মৃত্যু নিয়ে তাঁর সন্দেহ হলে পুলিশকে জানান।

এ ব্যাপারে চিকিৎসক তানভীর বলেন, ‘রীনাকে আমাদের কাছে মৃত নিয়ে আসা হয়েছিল। তাঁর স্বামী আমাদের জানিয়েছে, রীনা আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু অন্য স্বজনরা বলেছে ভিন্ন কথা। রীনাকে দেখার পর মনে হয়েছে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। তাও এখানে নিয়ে আসার অনেক আগে। এতে সন্দেহ হলে পুলিশকে জানাই।’

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওয়াজ মাহফিল থেকে রবিবার রাতে শিপন বাড়ি ফেরেন। তাঁর মোবাইল ফোনে কল আসাকে কেন্দ্র করে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। সে সময় শ্বাসরোধে রীনাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।

উজিরপুর থানার ওসি শিশির কুমার পাল বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয় ও স্বজনদের মাধ্যমে তাঁরা জানতে পারেন, শিপনের সঙ্গে কারো পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক ছিল। রবিবার মোবাইল ফোনে কথা বললে স্ত্রীর সঙ্গে শিপনের কথা-কাটাকাটি হয়। একই সঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকও বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ করছেন। এ থেকে তাঁদের ধারণা, পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কের জেরেই রীনাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হতে পারে। বিষয়টি নিশ্চিত হতে তাঁরা লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছেন। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে আটক শিপন ও তাঁর মা-বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মামলা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য