kalerkantho


মক্কা নগরীতে কুরাইশ বংশের বিস্তার

আহমদুল ইসলাম চৌধুরী   

১৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০



মক্কা মোকাররমাকেন্দ্রিক কুরাইশ বংশের ইতিহাস মুসলমানদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। এটি উম্মতে মুহাম্মদির কাছে বিশ্বের বুকে শ্রেষ্ঠ বংশ হিসেবে স্বীকৃত।

মুসলিম জাতির পিতা ইবরাহিম (আ.)-এর বংশধররা কুরাইশ বংশের অন্তর্গত। এ বংশ থেকেই মহানবী (সা.)-এর আগমন ঘটেছে। আবার এ বংশের লোকজনই মহানবী (সা.)-এর নবুয়ত বিষয়ে চরম বিরোধিতা করেছে। তাদের কারণে নিরাপত্তার অভাবে মহানবী (সা.) মদিনা মুনাওয়ারা হিজরত করেন। আবু বক্কর ছিদ্দিক (রা.) খলিফা হওয়ার যোগ্যতা ও যৌক্তিকতার পেছনে যে কয়েকটি যুক্তি উপস্থাপন করেছিলেন, তার অন্যতম হলো তিনি ছিলেন কুরাইশ বংশের।

মক্কা মোকাররমার কুরাইশ বংশের দিকে দৃষ্টি দিলে জানা যায়, আদম (আ.)-কে প্রথম পুরুষ হিসেবে গণ্য করে ইবরাহিম (আ.)-কে তাঁর বিংশতিতম অধস্তন পুরুষ হিসেবে দেখানো হয়। গড়ে ৩০ বছর করে প্রতি বংশ স্তরের পার্থক্য মেনে নিলে ইবরাহিম (আ.) জন্মগ্রহণ করেছিলেন আদম (আ.)-এর ৬০০ বছর পর। তাঁর পূর্বপুরুষ হিসেবে নুহ (আ.)-এর নামও উল্লেখ রয়েছে। তাঁকে আদম (আ.)-এর দশম অধস্তন পুরুষ হিসেবে দেখানো হয়।

ইবরাহিম (আ.)-এর দুই পুত্রের মধ্যে ইসমাইল (আ.)-এর বংশে জন্মগ্রহণ করেন মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। তাঁর অন্য পুত্র ইসহাক (আ.)-এর বংশধর হলেন বর্তমানের ইসরায়েলি ইহুদিরা। 

ইসমাইল (আ.)-এর অধস্তন, আদনান থেকে শুরু করে ফিহর বিন মালিক পর্যন্ত যে বংশধর, তাতে কোনো মতান্তর বা সন্দেহ নেই। বলা হয়ে থাকে, এ ফিহরই মক্কা মোকাররমায় কুরাইশ বংশের প্রকৃত প্রতিষ্ঠাতা। তাঁর ডাকনাম কুরাইশ থেকেই মক্কা মোকাররমায় বসবাসকারী ইসমাইল (আ.)-এর বংশধরদের ‘কুরাইশ’ নামে চিহ্নিত করা হয়। এ কুরাইশরা মক্কা মোকাররমায় কাবা শরিফের ধর্মীয় প্রতিনিধি হিসেবে খ্যাতি ও প্রসিদ্ধি লাভ করে।

বিশ্বখ্যাত মুসলিম গ্রন্থকার সুহাইল এবং ইতিহাসবিদ ইবনে জাবির তাবারিও উপরোক্ত সিদ্ধান্ত সমর্থন করেন। তাঁরা উভয়েই বলেছেন যে আদনান বিন উদদ বিন হামিশা থেকেই ইবরাহিম (আ.)-এর পার্থক্য ৪০ পুরুষের।

উল্লেখ্য যে প্রতি বংশের পার্থক্য গড়ে ৩০ বছর ধরলে আদম (আ.) থেকে মহানবী (সা.)-এর সময়ের পার্থক্য হয় দুই হাজার ৭০০ বছর। তার অর্থ এই যে দুই হাজার ৭০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে নবী পাক (সা.)-এর জন্ম ৫৭০ খ্রিস্টাব্দ বাদ দিলে খ্রিস্টাব্দপূর্ব ২১৩০ খ্রিস্টাব্দে আদম (আ.) জন্মগ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু হিসাবে এটা সত্য নয়। কেননা পৃথিবীর প্রথম মানুষ ‘আদম’ শব্দের অর্থ মানুষ। প্রথম মানুষ জন্মগ্রহণ করেছিলেন বহু আগেই।

ইতিহাসে মতপার্থক্য থাকলেও কুরাইশ গোষ্ঠীগত বংশধরদের তালিকা সংগৃহীত ইবনে সাদ ‘তবকাত’ নামক গ্রন্থ থেকে। তিনি ছিলেন নবী করিম (সা.)-এর আরেক জীবনীকার আল ওয়াকিদির সেক্রেটারি। ইবনে সাদ ইন্তেকাল করেন ২৩০ হিজরির ৮৪৫ খ্রিস্টাব্দে।

মক্কা মোকাররমায় কুরাইশ বংশের বিভিন্ন শাখা-প্রশাখা ছিল। কুরাইশ বংশের ১৫টি গোষ্ঠীর মধ্যে ৯টি গোষ্ঠী মক্কা মোকাররমায় কাবা শরিফকেন্দ্রিক মূর্তিপূজা নিয়ে ব্যবসা করত। এই স্বার্থপররা নতুন ধর্ম তথা ইসলামকে স্বীকার করতে চায়নি। নবী (সা.) নিজের ঘরে, তারপর তাঁর আত্মীয়-স্বজনদের ইসলামের কথা শোনালেন। সঙ্গে সঙ্গে তাতে বিশ্বাস স্থাপন করে ঈমান আনলেন। এতে সর্বপ্রথম উম্মে খাতুন মোমেমিন খাদিজাতুল কুবরা, আলী (রা.) এবং সেবক ও পালিত পুত্র জায়েদ ইবনে হারিসা (রা.) ইসলাম গ্রহণ করেন। কিছু দিনের মধ্যেই নবী (সা.)-এর একান্ত আপন আবু বক্কর ছিদ্দিক (রা.) ইসলাম গ্রহণ করেন। অতঃপর গোপনে গোপনে ইসলাম প্রচার চলতে থাকে। দাস ও দাসি শ্রেণির অবহেলিত মানুষেরা নতুন ধর্মকে মুক্তির আহ্বান বলে মেনে নেয়। তাঁদের মালিকদের অগোচরে এবং বিনা অনুমতিতেই ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। ইসলাম ধর্মে যেসব শ্রেণির মানুষের কল্যাণকেই কামনা করা হয়েছিল, তা তাঁরা বুঝতে পেরেছিলেন। অর্থাৎ ইসলামে মানুষের মধ্যে কোনো পার্থক্য করা হয়নি। তাই গরিব, অনারব ও ক্রীতদাস-দাসীরা ইসলাম ধর্মের মধ্যে খুঁঁজে পেয়েছিলেন সত্যিকার মুক্তি।

ইসলামের অবতরণের প্রায় চার বছর পর ৬১৩ খ্রিস্টাব্দে নবী (সা.) কুরাইশদের আহ্বান জানালেন সাফা পাহাড়ে ইসলামের বাণী শোনানোর জন্য। কিন্তু তাতে কোনো ফল হলো না। কুরাইশপ্রধানরা উত্তেজিত হয়ে উঠলেন বিরোধিতায়।

ফলে নবী করিম (সা.) ইসলাম গ্রহণকারী সাহাবাদের ৬১৪ খ্রিস্টাব্দ আবিসিনিয়ায় (বর্তমান নাম ইথিওপিয়া) গমন করার নির্দেশ দেন। পরবর্তী সময় মক্কা মোকাররমার পৌত্তলিকরা অগ্নিশর্মা হয়ে ওঠেন। তাঁরা একত্র হয়ে হাশেমিদের বয়কট করেন। বাধ্য হয়ে ৬১৬ খ্রিস্টাব্দে নবী (সা.) তাঁর সাহাবাদের নিয়ে তাঁর অপর এক সাহাবা সাফা পাহাড়ের মাখজুম গোষ্ঠীর সন্তান হজরত আল আরকাম বিন আবদ মানাফের ঘরে অবস্থান নেন। কিন্তু সেখানে ওই অবস্থায় ইসলাম প্রচারের কাজ থেমে থাকেনি। এতে গোপনে মানুষ ইসলাম গ্রহণ করতে থাকে। অন্তরীণ থাকা অবস্থায় নবী (সা.)-কে ইসলাম গ্রহণ না করেও যে কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যক্তি সহায়তা করেছিলেন, তারা ছিলেন উম্মে খাতুন মোমেনিন হজরতুল খাদিজার নিজের গোষ্ঠীর সন্তান এবং তাদের প্রচেষ্টায় হজরত ওমর (রা.) ও আবু বকর (রা.)-এর প্রচেষ্টায় ৬১৮ খ্রিস্টাব্দে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। কিন্তু মাত্র এক বছরের মাথায় উম্মে খাতুন মোমেনিন খাদিজাতুল কুবরা এবং তাঁর পাঁচ সপ্তাহ পর পিতৃব্য আবু তালেব ইন্তেকাল করেন। এতে অবিশ্বাসী কুরাইশরা সুযোগ মনে করে আবারও নানা রকম ষড়যন্ত্র করতে থাকে। ফলে নবী করিম (সা.) ৬১৯ খ্রিস্টাব্দে তায়েফ গমন করেন। কিন্তু সেখানেও প্রতিকূল অবস্থার সম্মুখীন হন।

এখানে উল্লেখ্য, কুরাইশ বংশের মধ্যে ১৫টি গোষ্ঠীর বর্ণনা পাওয়া যায়। তার মধ্যে নবী করিম (সা.)-এর হাশেমি গোষ্ঠীর আবু লাহাবকে নিয়ে মোট সাতটি গোষ্ঠীর নেতারা ইসলাম উত্খাত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। তাঁর প্রবল শত্রুর সংখ্যা বেশি ছিল মাখজুমি ও শামস গোষ্ঠীতে। আসলে কাবা শরিফকে কেন্দ্র করে কুরাইশদের আর্থিক স্বার্থ ছিল বলেই ইসলাম ধর্মে তাদের সর্বনাশ দেখতে পেয়েছিল। অন্যদিকে হাশেমি গোষ্ঠীর একজন এতিম নিরাশ্রয় ব্যক্তির কাছ থেকে তারা ধর্মের শিক্ষা নিতে আগ্রহী ছিল না। সে জন্য কুরাইশদের মধ্যে শত্রুপক্ষীয় প্রধান দুই গোষ্ঠী  মাখজুমি ও আবদ শামস—যারা জনসংখ্যায়, ধনে ও সম্পত্তিতে ছিল তুঙ্গে, তারা নতুন ধর্ম গ্রহণ করতে অস্বীকার করে কঠোরভাবে। নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ও গুরুত্ব কোনো প্রকারে তারা নষ্ট করতে চায়নি। তাই তারাই সবচেয়ে ভয়ংকর শত্রু হয়ে ওঠে ইসলামের। পরবর্তী সময় হজকে কেন্দ্র করে মদিনা মুনাওয়ারার বাসিন্দাদের সঙ্গে সংযোগ হওয়ার সুযোগ হয় নবী পাক (সা.)-এর। এই সুযোগে আবিসিনিয়ায় হিজরতকারীদের পরে মক্কা মোকাররমায় মুসলমানদের নবী পাক (সা.) পর্যায়ক্রমে মদিনা মুনাওয়ারায় পাঠিয়ে দেন। অতঃপর আবু বক্কর ছিদ্দিক (রা.)-কে সঙ্গে নিয়ে ৬২২ খ্রিস্টাব্দের ২০ জুন নবী (সা.) মক্কা মোকাররমা ত্যাগ করেন। মদিনা মুনাওয়ারায় অবস্থান করে বদর, ওহুদ, খন্দকসহ বড় বড় তিনটি চাপিয়ে দেওয়া যুদ্ধ নবী পাক (সা.)-কে মোকাবেলা করতে হয়। এরপর হুদায়বিয়ার সন্ধির মাধ্যমে আরব উপদ্বীপে ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পথ সুগম হয়ে যায়। অষ্টম হিজরিতে বিনা যুদ্ধে অনেকটা শান্তিপূর্ণভাবে মক্কা মোকাররমা বিজয় হয়। কাবা শরিফ পূর্ণাঙ্গভাবে ইসলামের কেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। মদিনা মোনাওয়ারা জজিরাতুল আরব তথা আরব উপদ্বীপ ইসলামের রাজধানী হিসেবে পূর্ণাঙ্গতা লাভ করে। কুরাইশদের মধ্যে বেশির ভাগ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। কুরাইশদের মধ্যে যাঁরা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেননি, তাঁরা হতাশায় ভুগতে ভুগতে দুনিয়া ত্যাগ করেন।

লেখক : গ্রন্থকার ও গবেষক



মন্তব্য