kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


তুরস্কে ইসলামী মূল্যবোধের প্রসার

যুবায়ের আহমাদ   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



পৃথিবীর রাজনীতি ও অর্থনীতিতে তুরস্ক একটি গুরুত্বপূর্ণ নাম। তুরস্কের অলি-গলিতে ঠায় দাঁড়িয়ে থাকা সুউচ্চ মিনারগুলো সাক্ষ্য দেয় যে তুরস্কের শেকড়ে আছে ইসলাম।

ইসলামের সঙ্গে তুরস্কের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও মূল্যবোধের সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড়। ১৯২৪ সালে ইসলামী খেলাফত ব্যবস্থা বাতিলের মধ্য দিয়ে আধুনিক তুরস্কের জন্ম হলে পৃথিবীবাসীকে দেখতে হয় কথিত সেক্যুলারিজমের ভয়াল রূপ। তুর্কিদের ভাগ্যের ওপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসা আর্মি অফিসার আতাতুর্কের সেক্যুলার শাসনের যাত্রার কিছুদিনের মধ্যেই তুরস্কের হাজার হাজার মিনার থেকে আল্লাহু আকবার ধ্বনি বন্ধ হয়। চালু হয় তুর্কি ভাষায় আজান। মাদ্রাসাগুলো বন্ধ হয়ে যায়। ইসলামী পোশাক নিষিদ্ধ হয়। গণহত্যা, রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধকরণ, আলেম-ওলামাদের ওপর দমন-পীড়ন, ইসলামী ব্যক্তিত্বদের সম্পদ বাজেয়াপ্তকরণ, শুক্রবারের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করে এর স্থলে শনি-রবিবারের ইউরোপীয় ছুটি চালু করাসহ বাস্তবায়িত হয় ইসলামবিরোধী সব কার্যকলাপ।

তুরস্কবাসীর বদলে যাওয়ার চেষ্টা ছিল কয়েক যুগ ধরে। অর্ধশতাব্দীরও বেশি সময় ধরে সেক্যুলারিজমের জাঁতাকলে পিষ্ট তুরস্কবাসীর প্রত্যাশার প্রতীক হিসেবে হাজির হন দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান। তাঁর দল ‘আদালতে ওয়া কলকিনমা পার্টিসি’ (একেপি)। ইংরেজিতে জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি। এর হাত ধরেই অতীত গৌরবের দিকে হাঁটা শুরু করে তুর্কিরা। এরদোয়ানের বলিষ্ঠ নেতৃত্ব অর্থনৈতিক সংকট ইউরোপকে গ্রাস করে রাখার সময়েও একদিকে যেমন তুরস্ককে দ্রুততম অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী দেশে পরিণত করেছে, অন্যদিকে আতাতুর্কের চালুকৃত জনস্বার্থবিরোধী কয়েকটি আইন এরদোয়ান এমনভাবেই পাল্টে দিয়েছেন, যেগুলো তুরস্কবাসীর ইসলাম পালনকে সহজ করে দিয়েছে। তুর্কি জাতিকে তাদের পূর্বপুরুষের ঐতিহ্যের দিকে ফিরিয়ে দিয়েছে। সেগুলো হলো—

হাজার হাজার মসজিদ নির্মাণ : তুরস্কের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী ২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত তুরস্ক সরকার দেশটিতে আট হাজার ৯৮৫টি মসজিদ নির্মাণ করেছে। ২০১৪ সালে তুরস্ক সরকার দেশটির সব বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি করে মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করে। এরই মধ্যে প্রায় সব মসজিদ নামাজের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে এবং সেগুলোতে রাষ্ট্রীয় খরচে আলেম নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রায় শতাব্দী ধরে বন্ধ থাকা ‘ইসহাক পাশা মসজিদ’টি খুলে দেওয়া হয় নামাজের জন্য। দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রেইজ (Rize) প্রদেশের কেবলা পর্বতের শীর্ষে একটি মসজিদ পুনর্নির্মাণ করে, তা-ও গেল বছরের আগস্ট মাসে খুলে দেওয়া হয় নামাজের জন্য। এখনো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতাধীন রয়েছে অনেক মসজিদ। সাম্রাজ্যের বিভিন্ন অংশের পুরনো মসজিদগুলো বিপুল খরচে নতুন করে সাজানো হচ্ছে।

হিজাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার : ওসমানি খেলাফতের স্মৃতিবিজড়িত তুরস্কে হিজাব নিষিদ্ধ করেছিল আতাতুর্কের সরকার। পাবলিক প্লেসে সেই হিজাব নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। পাশাপাশি পুরুষদের জন্য টুপি, পাগড়িসহ ইসলামী ঐতিহ্যের পোশাক নিষিদ্ধ করে এর স্থলে পশ্চিমা হ্যাট বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। শিক্ষক, আইনজীবী, সংসদ সদস্যসহ রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সংস্থায় কর্মরত নারীদের হিজাব পরিধান একেবারেই নিষিদ্ধ ছিল। ক্যাম্পাসগুলোতেও নিষিদ্ধ ছিল হিজাব। ১৯৯৯ সালে ‘মেরভে কাভাকচি’ নামের এক নারী সংসদ সদস্যকে হিজাব পরে সংসদে প্রবেশের দায়ে শপথ পড়তে দেওয়া হয়নি। তাঁকে পার্লামেন্ট থেকে বের করে দেওয়া হয়। ঘটনার ঠিক ১৬ বছর পর তাঁরই ছোট বোন ‘রেউজা কাভাকচি’ বড় বোনের ব্যবহূত সেই হিজাবটিই পরে সংসদে শপথবাক্য পাঠ করেন। ২০১৩ সালে এরদোয়ান সরকার হিজাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পাবলিক প্লেসে তা পরা সাংবিধানিকভাবে বৈধ ঘোষণা করে। ২০১৫ সালে তুরস্কের সংসদের ২৫তম অধিবেশনে আধুনিক তুরস্কের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ২১ জন নারী সংসদ সদস্য তুর্কি নারীদের হাজার বছরের ঐতিহ্যের পোশাক হিজাব পরে শপথ বাক্য পাঠ করেন। একই বছরের আগস্টে ‘আয়েশা গোরসেন’ প্রথম হিজাবি নারী হিসেবে তুরস্ক সরকারের মন্ত্রী নিযুক্ত হন। (ডেইলি সাবাহ)

ইমাম হাতিপ স্কুলে লাখ লাখ শিক্ষার্থী ভর্তি : ইমাম হাতিপ স্কুল হলো তুরস্কের ধর্মীয় শিক্ষার ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান। প্রশিক্ষিত ধর্মীয় সামাজিক নেতা তৈরির জন্য প্রতিষ্ঠিত এক ধরনের ভোকেশনাল (বৃত্তিমূলক) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এটি। এর শিক্ষাদান পদ্ধতি একেবারেই ডিজিটাল। এরদোয়ান নিজেও এই স্কুলের ছাত্র ছিলেন। তুরস্কের সরকারি মসজিদগুলোর ইমামসহ বেশির ভাগ ইমামই ইমাম হাতিপ স্কুলে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। ২০০২ সালের পর ইমাম হাতিপ স্কুলের প্রতিষ্ঠা বৃদ্ধি পেয়েছে ব্যাপকভাবে। ২০১২ সাল থেকে স্কুলগুলোয় ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়। ২০০২ সালে এসব স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৬৫ হাজার। ২০১৩ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ছয় লাখ ৫৮ হাজারে। স্কুলগুলোর পরিচালনায় শীর্ষ ব্যক্তি বিলাল এরদোয়ানের তথ্যমতে, এখন এসব স্কুলে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীর সংখ্যা এরই মধ্যে মিলিয়নে পৌঁছেছে।

বাধ্যতামূলক ধর্মীয় শিক্ষা : তুরস্কের সরকারি বিদ্যালয়গুলোতে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক। নবীজি (সা.)-এর সিরাত (জীবনী) ও কোরআনুল কারিমের অংশ মুখস্থ করাও বাধ্যতামূলক। ইসলামী শিক্ষা প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেন, ‘আমরা ধর্মপরায়ণ এক যুব প্রজন্ম তৈরি করতে চাই। আপনারা কী মনে করেন যে একেপি পার্টি একটি ইসলামবিদ্বেষী প্রজন্ম তৈরি করবে? এটা কখনো আমাদের মিশন হতে পারে না। আমরা এমন এক প্রজন্ম তৈরি করতে চাই, যারা রক্ষণশীল গণতন্ত্রবাদী ও গণতান্ত্রিক। যারা নাস্তিক নয়; জাতির নীতি-নৈতিকতা ও মূলবোধকে যারা বুকে লালন করবে। ’

কোরআন শিক্ষার জন্য সীমাবদ্ধতা দূর :  আগের আইনে কোরআন শিক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য ন্যূনতম ১২ বছর বয়স হওয়া ছিল বাধ্যতামূলক। এরদোয়ান এ আইনটি রহিত করেন। নতুন আইনে শিশুদের কোরআনের পাঠ গ্রহণ করার বৈধতা দেওয়া হয়। প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে স্কুলে গমন না করা শিশুদের জন্য কোরআন শিক্ষার ব্যবস্থা করতে ২০১৩ সালে একটি বিশেষ প্রকল্প চালু করা হয়। এ প্রকল্পের অধীনে অসংখ্য মাদ্রাসা-মকতব প্রতিষ্ঠা করা হয়।

মদ ও এর বিজ্ঞাপনের ব্যাপারে বিধিনিষেধ আরোপ আতাতুর্ক সরকার বৃহত্তর এই মুসলিম দেশটিতে মদ বিক্রির বৈধতা দিয়েছিল। এরদোয়ান সরকার ২০১৩ সালে সংসদে আইন পাস করে মদ বিক্রি ও বিজ্ঞাপনের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করে। আইন অনুযায়ী মসজিদ ও বিদ্যালয়ের ১০০ মিটারের মধ্যে মদ ও এর বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা হয়। ছাত্রাবাস, মেডিক্যাল সেন্টার, স্পোর্টস ক্লাব, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং গ্যাস স্টেশনে মদ বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়।   এগুলো ছাড়া অন্য সব স্থানে রাত ১০টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত মদ বিক্রি ও মদ-সংক্রান্ত কোনো অনুষ্ঠান একেবারেই নিষিদ্ধ করা হয়। টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে মাদকের ভয়াবহ ক্ষতিকর দিকগুলোর প্রচারণা বাধ্যতামূলক করা হয়। এর ফলে দিনে দিনে তুরস্কে মদ পানের পরিমাণ কমছে।

ইসলামী ব্যাংকিং সম্প্রসারণ : সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তুরস্কে ইসলামী ব্যাংকিং খুবই সম্প্রসারিত হয়েছে। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ‘জিরাত ইসলামী ব্যাংক’ ২০১৮ সালের মধ্যে ১৭০টি ব্রাঞ্চে উন্নীত হওয়ার টার্গেট রেখেছে। প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান কিছুদিন আগে সুদভিত্তিক ব্যাংক ব্যবস্থাকে ‘ঘাতক’ হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি ইসলামী ব্যাংকিংয়ের উপকারিতা সম্পর্কে বলেন, ‘আমরা যদি উন্নয়নের দিকে দ্রুত এগিয়ে যেতে চাই, তাহলে আমাদের এই ঘাতক পদ্ধতি বাদ দিয়ে ইতিবাচক ব্যাংকিংয়ের দিকে যেতে হবে। ইসলামী অর্থব্যবস্থা বর্তমানের ব্যাংকিং ব্যবস্থার চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন। আমি বিশ্বাস করি, ইসলামী অর্থব্যবস্থাই তুরস্কের অর্থনীতিতে গতিশীলতা এনে দিতে পারে। ’

লেখক : খতিব, বাইতুশ শফিক মসজিদ

বোর্ড বাজার (আ. গনি রোড), গাজীপুর


মন্তব্য