kalerkantho


ভ্যাট আইন বাস্তবায়নের প্রস্তুতি নিচ্ছে এনবিআর

ফারজানা লাবনী   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ভ্যাট আইন বাস্তবায়নের প্রস্তুতি নিচ্ছে এনবিআর

আগামী অর্থবছরের বাজেটে ভ্যাট আইন, ২০১২ অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তুতি নিচ্ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এরই মধ্যে আইনটির যেসব ধারায় ব্যবসায়ীদের আপত্তি তার অনেক ধারা সংশোধনে এনবিআর কর্মকর্তারা একমত হলেও অনেক বিষয় এখনো অমীমাংসিত আছে।

ব্যবসায়ী নেতারা স্পষ্ট জানিয়েছেন, তাঁদের দাবি মেনেই আইনটি বাস্তবায়নে যেতে হবে। এনবিআর কর্মকর্তারা বলেন, এবারে ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে আগেভাগেই প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হবে। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নিয়েই আইনটি বাস্তবায়ন করা হবে।

গত অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাট আইন, ২০১২ অন্তর্ভুক্ত করা হলেও ব্যবসায়ীদের আপত্তির মুখে বাজেট চূড়ান্তকালে তা স্থগিত করা হয়। আগামী অর্থবছরের বাজেটে আইনটি বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত আছে।

গত অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রণয়নের আগে ভ্যাট আইন, ২০১২-এর কিছু ধারা উল্লেখ করে তা সংশোধনের দাবি জানিয়ে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই থেকে এনবিআরে চিঠি দেওয়া হয়। এতে যেসব দাবি করা হয় তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে প্যাকেজ ভ্যাট বহাল রাখা, ভ্যাট আদায়ের কঠোরতা থেকে সরে আসা, ১৫ শতাংশ একক হারের পরিবর্তে বহু স্তরবিশিষ্ট ভ্যাট আদায়ে বিধান রাখা ইত্যাদি।

দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভ্যাট আইন, ২০১২ বাস্তবায়নে ব্যবসায়ীরা রাজি। তবে এই আইনের কিছু ধারায় ব্যবসায়ীদের আপত্তি আছে। এসব ধারা পরিবর্তন করে বাস্তবায়নে যাওয়া প্রয়োজন। আশা করছি, এনবিআর ব্যবসায়ীদের দাবি বিবেচনা করবে।’

ব্যবসায়ীদের দাবি নিয়ে এনবিআরে গত জুলাই থেকে আগস্ট পর্যন্ত ভ্যাট নীতি শাখার কর্মকর্তারা তিনটি বৈঠক করেছেন। এসব বৈঠকে আগামী অর্থবছরে ভ্যাট আইন, ২০১২ বাস্তবায়নে অনলাইনে ভ্যাট আদায়ে জোর দেওয়া হয়েছে। অনলাইনে ভ্যাট আদায়ের ধারাবাহিকতায় এরই মধ্যে এক লাখের বেশি প্রতিষ্ঠানকে অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন নম্বর দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভ্যাট আইন, ২০১২ অনুসারে ১৫ শতাংশ একক হারে ভ্যাট আদায়ের বিধান আছে।  বৈঠকে এনবিআর কর্মকর্তারা এ বিধান পরিবর্তনে একমত হয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বৈঠকে উপস্থিত এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভ্যাট আইন, ২০১২ বাস্তবায়ন করা হলেও ব্যবসায়ীদের দাবি মেনে একক হারের পরিবর্তে বহু স্তরবিশিষ্ট ভ্যাট আদায় করা হবে। আইনটির এ ধারাটি সংশোধন করা হবে। অনলাইনে একক হারের পরিবর্তে বহুস্তরে ভ্যাট আদায়ে সফটওয়্যার উপযুক্ত করা হচ্ছে।’

ভ্যাট আইন, ২০১২ অনুসারে এক মাসের ভ্যাট পরের মাসের ১৫ তারিখে বা এ সময়ের আগে পরিশোধ করতে হবে। না হলে অনলাইনে ভ্যাট আদায়প্রক্রিয়া স্থগিত করা হবে। ভ্যাট আদায়ের কঠোরতা বিষয়ে এনবিআর কর্মকর্তারা ব্যবসায়ীদের দাবী মেনে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেননি।

প্যাকেজ ভ্যাট বাতিল করা হবে, না বহাল থাকবে—এ বিষয়েও এনবিআর কর্মকর্তারা এবং ব্যবসায়ী নেতারা একমতে পৌঁছাতে পারেননি।

প্যাকেজ ভ্যাট অনুসারে আয় যা-ই হোক না কেন, অল্প আয়ের ব্যবসায়ীরা নির্ধারিত হারে ভ্যাট পরিশোধ করবে। ভ্যাট আইন, ২০১২ অনুসারে প্যাকেজ ভ্যাটের বিধান বাতিল করে স্ল্যাবভিত্তিক ভ্যাট আদায় করা হবে। অর্থাৎ বিভিন্ন আয়ের ব্যবসাযীরা বিভিন্ন হারে ভ্যাট পরিশোধ করবে। আইনের এ ধারায় ব্যবসায়ীদের আপত্তি। তারা প্যাকেজ ভ্যাট বহাল রাখতে অনঢ় অবস্থানে আছে।

পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অনেক ব্যবসায়ী মিথ্যা তথ্য দিয়ে প্যাকেজ ভ্যাটের আওতায় ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছে। প্যাকেজ ভ্যাটের মাধ্যমে এনবিআরের নামমাত্র কিছু আদায় হচ্ছে। ভ্যাট আদায়ের এ বিধান বাতিল করা হলে এনবিআরের আদায় কয়েক গুণ বেড়ে যাবে।’

এনবিআরের ভ্যাট নীতি শাখার কর্মকর্তাদের তৈরি প্যাকেজ ভ্যাট সম্পর্কিত এনবিআরের প্রতিবেদনে উল্লেখ আছে, ‘প্যাকেজ ভ্যাটের আওতায় অল্প আয়ের ব্যবসায়ীদের ভ্যাট পরিশোধের নিয়ম থাকলেও মিথ্যা তথ্য ব্যবহার করে অনেক বড়মাপের ব্যবসায়ী প্যাকেজ ভ্যাটের আওতায় সামান্য পরিমাণে রাজস্ব পরিশোধ করছে। এভাবে ভ্যাট ফাঁকি দেওয়ায় এনবিআরের কোষাগারে হিসাবের চেয়ে কম আদায় হয়। ভ্যাট আইন, ২০১২ অনুসারে স্ল্যাবভিত্তিক ভ্যাটে অল্প আয়ের ব্যবসায়ীদের ভ্যাট পরিশোধের প্রয়োজন হবে না। ভ্যাট আইন, ২০১২ অনুসারে বেশি আয়ের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ভিন্ন ভিন্ন স্ল্যাবে ভ্যাট আদায় করা হবে। এতে রাজস্ব আদায় বাড়বে।’

এনবিআর কর্মকর্তারা ভ্যাট আইন, ২০১২ সম্পর্কে ব্যবসায়ীদের দাবি নিয়ে আরো বৈঠকে বসবেন। এসব বৈঠকে খতিয়ে দেখা হবে, ব্যবসায়ীদের দাবি মেনে ভ্যাট আইন, ২০১২ সংশোধনে রাজস্ব আদায়ে কী প্রভাব পড়বে। এ বিষয়ে কতটা ছাড় দেওয়া সম্ভব। 

এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভ্যাট আইন, ২০১২ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নিয়ে বাস্তবায়ন করবে এনবিআর। এ বিষয়ে আলোচনা চলছে। আশা করি সমাধান হবে।’

 

 



মন্তব্য