kalerkantho


ঈদ সাজের প্রস্তুতি চলছে পার্লারে

ফারজানা লাবনী   

১৫ জুন, ২০১৮ ০০:০০



ঈদ সাজের প্রস্তুতি চলছে পার্লারে

ঈদ উপলক্ষে গ্রাহকের ভিড়ে বাড়তি চাপ সামলাতে হচ্ছে পার্লারগুলোকে। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঈদের মতো বড় উৎসব উদ্‌যাপনে সৌন্দর্য সেবা নিতে সব বয়সী নারীরাই পার্লারে যাচ্ছেন। নামি-দামি পার্লারে শেষ সময়ে ভিড় উপচে পড়ছে। কেউ ফ্যাসিয়াল বা ব্লিচ করাচ্ছেন। অনেকে হাল ফ্যাশনের চুল কাটাচ্ছেন। মেনিকিউর, পেডিকিউরসহ বিভিন্ন সেবা নিচ্ছেন। দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও অনেকে এসব সেবা নিচ্ছেন।

ঈদকেন্দ্রিক বাড়তি চাপ সামলাতে পার্লারগুলো আগেভাগেই প্রস্তুতি সেরে রেখেছে। বাড়তি কর্মী নিয়োগ দিয়েছে। সৌন্দর্য সেবায় ব্যবহারে ক্রিম, স্ক্যার্ব, লোশন, পাউডার, মেহেদিসহ নানা ধরনের পণ্য সংগ্রহে রাখা হয়েছে। অনেক পার্লার সেবা প্রদানের সময় বাড়িয়েছে। রাত ১১-১২টা পর্যন্ত খোলা থাকছে নামিদামি পার্লারগুলো। তবে ইফতারির সময়ে ভিড় খানিকটা কমে। সন্ধ্যার পর চাকরিজীবী নারীদের সংখ্যা বাড়ে।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সাজেদা আকতার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দিনের বেলা সময় পাই না। তাই অফিস শেষে এসেছি। ঈদ উপলক্ষে নিজেকে প্রস্তুত করতেই এখানে আসা। এখানে এক-দেড় ঘণ্টা অপেক্ষায় থেকে সেবা নিতে হচ্ছে।’

অনেক পরিবারে এখন ঈদ উপলক্ষে পার্লারে যাওয়াকেও প্রয়োজনীয় ভাবা হচ্ছে। পরিবারের তরুণী বা কিশোরীর জন্য পার্লারে যেতে আলাদা বাজেট রাখা হচ্ছে। উচ্চবিত্ত পরিবারের নারীদের অনেকে একাধিকবারও পার্লারে আসছেন। নামিদামি পার্লারই তাঁদের পছন্দ। খরচ নিয়ে ভাবছেন না, সব ধরনের সেবাই নিচ্ছেন তাঁরা।

গৃহিণী রুম্পা খান বলেন, ‘ঈদ উৎসবে নিজেকে আরো বেশি ভালো দেখাবে এ জন্য বিভিন্ন প্রস্তুতি নিতে পার্লারে এসেছি। এ খরচের জন্য ঈদে বাজেট আছে।’

ঈদ উপলক্ষে মুখ পরিষ্কার ও রং উজ্জ্বল করাতে ফেসিয়াল ও বিচ করাচ্ছে সবচেয়ে বেশিসংখ্যক ক্রেতা। ৮ থেকে ১০ রকমের ফেসিয়াল রয়েছে নামিদামি পার্লারে।

ন্যূনতম এক ঘণ্টার এ সেবা পেতে একজন ক্রেতাকে ব্যয় করতে হচ্ছে ৭০০ থেকে তিন হাজার টাকা। হাত-পা পরিষ্কারে ৪০০ থেকে ২০০ টাকা ব্যয় হচ্ছে। চুল পরিষ্কার, কাটায় খরচ হয় সাড়ে ৪০০ থেকে দেড় হাজার টাকা। ভ্রু ও মুখের লোম পরিষ্কারে ৬০ থেকে ১০০ টাকা, মেহেদি লাগানো ২০০ থেকে এক হাজার টাকা, চুল বাঁধা ৬০০ থেকে দুই হাজার টাকা, চুল সেটিংয়ে ৩০০ থেকে ৮০০ টাকা ব্যয় হয়।

এ ছাড়া স্থায়ীভাবে চুল সিল্কি এবং সোজা করতে চুলের পরিমাণ দেখে দর নির্ধারণ হচ্ছে। এ কাজে ব্যয় হচ্ছে সাত হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা। ঈদের দিনটিতেও অনেক পার্লার খোলা থাকে। মুখ সাজানোয় ৬০০ থেকে ২০০০ টাকা, শাড়ি পরা চুল সেটিংয়ে ৬০০ টাকা থেকে ১৫০০ টাকা পর্যন্ত ব্যয় হয়।

নারী উদ্যোক্তা সুমি রহমান বলেন, ‘মুখ, হাত-পা আলাদাভাবে সাজাতে ও যত্ন নিতে গেলে খরচ বেশি হয়। কিন্তু প্যাকেজে আসলে কিছুটা কম হয়।’

ঈদ উপলক্ষে পার্লারগুলোতে বাড়তি দাম নেওয়া হচ্ছে। এতে ধনী পরিবারের ক্রেতারা বিপাকে না পড়লেও মধ্যবিত্ত পরিবারের নারীরা নামমাত্র দুই-একটা সেবা নিয়ে ফিরে যাচ্ছে। নামকরা পার্লারে গড়ে ৫-৬ শ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

বাংলাদেশ বিউটি পার্লার ওনারস অ্যাসোসিয়েশন সূত্র জানায়, সারা দেশে পাঁচ লাখের বেশি পার্লার রয়েছে। রাজধানীর নামকরা পার্লারের মধ্যে রয়েছে পারসোনা, ওমেন্স ওয়ার্ল্ড, ফারজানা শাকিল, মিং বিউটি পার্লার ও হারবাল, রুচিতা, সাজ, ঐশি, একান্ত, বধূয়া, নোলক, ঝলক, জলনূপুর, হংকংসহ একাধিক পার্লার।

রাজধানীর বড় বড় শপিং মলে একাধিক পার্লার রয়েছে। ঈদবাজার করতে এসে এসব পার্লারে আসছেন অনেকে। এ ছাড়া ঢাকার আভিজাত্য এলাকাসহ পাড়া-মহল্লায় পার্লার গড়ে উঠেছে। এসব পার্লারেও ক্রেতার সংখ্যা কম নয়। এসব পার্লারে নামিদামি পার্লারের তুলনায় সেবার মানভেদে ২০০-৫০০ টাকা কম।

 

 


মন্তব্য