kalerkantho


ইন্টারনেটে ভোক্তা পর্যায়ে শুল্ক-কর প্রত্যাহারের দাবি

বকেয়া রাজস্ব পরিশোধের তাগিদ মোবাইল কম্পানিগুলোকে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



বকেয়া রাজস্ব পরিশোধের তাগিদ মোবাইল কম্পানিগুলোকে

মোবাইল ফোন কম্পানিগুলোকে বকেয়া রাজস্ব পরিশোধের তাগিদ দিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। এ ছাড়া মামলায় আটকে থাকা রাজস্ব দ্রুত উদ্ধারে কম্পানিগুলোকে আদালতের বাইরে সালিসি পদ্ধতিতে বা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তিতে (এডিআর) আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। গতকাল সোমবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এনবিআরের সম্মেলন কক্ষে প্রাক-বাজেট আলোচনাকালে তিনি এসব কথা বলেন।

গতকালের প্রাক-বাজেট বৈঠকে স্থানীয় পর্যায়ে কোমল পানীয় উৎপাদনের ওপর বিদ্যমান সম্পূরক শুল্ক কমানোর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ বেভারেজ ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন। বর্তমানে বেভারেজের উৎপাদনে সব মিলিয়ে শুল্ক-করের ভার প্রায় ৪৪ শতাংশ। সংগঠনটি মনে করে, অত্যধিক শুল্ক-করের কারণে দেশে এ খাতের বাণিজ্য এখন নিম্নগামী। গতকাল জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত প্রাক-বাজেট আলোচনায় উপস্থিত হয়ে সংগঠনটির পক্ষ থেকে এসব কথা বলা হয়। এসব বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বর্তমানে দেশে কোমল পানীয় উৎপাদন পর্যায়ে ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) ও ২৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক রয়েছে। সব মিলিয়ে এ খাতের ওপর করভার ৪৪ শতাংশ। এর বাইরে কম্পানির আয়ের ওপর করপোরেট কর রয়েছে। সিরামিক উৎপাদক ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিসিএমইএ স্থানীয় সিরামিক শিল্পকে সুরক্ষা দেওয়ার দাবি জানিয়েছে। দেশে ইন্টারনেটের ব্যবহার ভোক্তা পর্যায়ে আরো সহজলভ্য করতে এ খাতের ওপর বিদ্যমান শুল্ক-কর প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে মোবাইল ফোন কম্পানিগুলোর সংগঠন অ্যামটব। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারে শুল্ক-করের হার প্রায় ২২ শতাংশ। এ ছাড়া ফোরজি সমর্থন করে এমন মোবাইল হ্যান্ডসেটের আমদানিতে শুল্ক-কর কমানো, কম্পানিগুলোর দ্বৈত কর পরিহার করা, বার্ষিক বিক্রির (টার্নওভার) ওপর ন্যূনতম কর প্রত্যাহারসহ ১৯টি দাবি জানিয়েছে অ্যামটব।



মন্তব্য