kalerkantho


চার দিনের প্লাস্টিক, প্যাকেজিং ও প্রিন্টিং শিল্প প্রদর্শনী শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



চার দিনের প্লাস্টিক, প্যাকেজিং ও প্রিন্টিং শিল্প প্রদর্শনী শুরু

গতকাল মেলা উদ্বোধন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদসহ অন্যরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

উন্নত দেশগুলোতে মাথাপিছু প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার ১০০ কেজি। যেখানে বাংলাদেশের মাথাপিছু প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার মাত্র ৫-৭ কেজি। বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিপিজিএমইএ) এক গবেষণায় দেখা গেছে, ২০৩০ সাল নাগাদ দেশের মাথাপছুি প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার ৪০ কেজিতে পৌঁছাবে। তবে এই পরিমাণ প্লাস্টিক পণ্যের উৎপাদনের জন্য যে পরিমাণ অবকাঠামো দরকার দেশে সেটা নেই।

দেশকে ধাপে ধাপে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে নিয়ে যেতে হলে প্লাস্টিক খাতে আরো কিছুটা সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা দরকার বলে মনে করেন বিপিজিএমইএ সভাপতি জসিম উদ্দিন। তিনি বলেন, ২০৩০ সাল নাগাদ প্লাস্টিকের ব্যবহারে যে চাহিদা তৈরি হবে তা উৎপাদনের জন্য কী পরিমাণ জনশক্তি দরকার, বিদ্যুৎ দরকার এর একটি পথরেখা আমরা উপস্থাপন করব। আশা করি, সরকার বিষয়টি বিবেচনা করবেন।

তিনি আরো বলেন, উন্নত দেশগুলোতে প্লাস্টিক খাতকে পরিবেশবান্ধব খাত হিসেবে বিবেচনা করা হয়; কিন্তু আমাদের দেশে এটা এখনো গ্রিন ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে স্বীকৃতি পায়নি। অথচ এই খাতে উৎপাদিত সব পণ্যই রিসাইক্লিং করে পুনরায় উৎপাদনে ব্যবহার করা হচ্ছে। অতএব এ থেকে কোনো বর্জ্য তৈরি হচ্ছে না। গতকাল বুধবার থেকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হওয়া চার দিনের আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক, প্যাকেজিং ও প্রিন্টিং শিল্প প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদকে উদ্দেশ্য করে কথাগুলো বলেন বিপিজিএমইএ সভাপতি জসিম উদ্দিন। তিনি প্যাকেজিং আইন প্রণয়ন ও প্লাস্টিক খাতের জন্য একটি আলাদা শিল্পনগরীর গুরুত্ব তুলে ধরে বক্তব্য দেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘প্লাস্টিক খাত দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।  আমরা চেষ্টা করব এই খাতকে সব ধরনের সহযোগিতা দিতে।’

প্লাস্টিক খাত যে পরিবেশের কোনো ক্ষতি করছে না সেটা সাধারণ মানুষকে বোঝানোর জন্য বিপিজিএমইএ সভাপতিকে আরো বেশি সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ড হাতে নেওয়ার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাত উন্নয়ন উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

এর আগে বিপিজিএমইএ সভাপতি জসিম উদ্দিন পোল্ট্রি ফিড ও সিমেন্ট মোড়কজাতের ক্ষেত্রে প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহারের পরিবর্তে চটের ব্যাগ ব্যবহারের সিদ্ধান্ত বদলাতে সরকারের সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের কাছে আহ্বান জানান। বিপিজিএমইএ ও ইওর্কার ট্রেড অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং সার্ভিস কং লি. যৌথভাবে আয়োজিত ১৩তম এ প্রদর্শনীতে দেশে উৎপাদিত নতুন নতুন প্লাস্টিক পণ্য প্রদর্শনের পাশাপাশি বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর আধুনিক প্রযুক্তির মেশিন প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রদর্শনীতে ১৫টি ক্যাটাগরিতে ৪৮০টি স্টল রয়েছে। বাংলাদেশ, চীন, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, ভারত, মালয়েশিয়াসহ ১৬টি দেশের ৩৬০টি কম্পানি এ প্রদর্শনীতে অংশ নিচ্ছে।


মন্তব্য