kalerkantho


সিলেটে অর্থমন্ত্রী

শেয়ার কেলেঙ্কারির বিচার হবে সময়মতো

দেশের পুঁজিবাজার এখন সমস্যামুক্ত বিএসইসি চেয়ারম্যান

সিলেট অফিস   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



শেয়ার কেলেঙ্কারির বিচার হবে সময়মতো

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ছবি : কালের কণ্ঠ

যারা পুঁজিবাজারকে ফটকাবাজি বলে মনে করে তারা এই বাজারের শত্রু। এটা ফটকাবাজির স্থান নয়। বরং দেশের উন্নয়নে, এমনকি জনগণের ক্ষমতায়নেও পুঁজিবাজারের গুরুত্ব অপরিসীম। গত সাত বছরে পুঁজিবাজারে শৃঙ্খলা ফিরে এসেছে। শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারিতে জড়িতদের শাস্তি প্রদান সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তবে সময়মতো সব বিচার সম্পন্ন হবে।

গতকাল শনিবার সকালে নগরের আমান উল্লাহ কনভেনশন সেন্টারে বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আয়োজিত ‘বিনিয়োগকারী ও উদ্যোক্তা কনফারেন্স এবং বিনিয়োগ শিক্ষা মেলার’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান ড. এ কে আব্দুল মোমেন, বিএসইসির কমিশনার মো. হেলাল উদ্দিন নিজামী, মো. আমজাদ হোসেন, স্বপন কুমার বালা ও খন্দকার কামালুজ্জামান প্রমুখ।

অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, ‘একসময় বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের কোনো নিয়মনীতি ছিল না। যে যেভাবে পারে হুজুগে বিনিয়োগ করেছিল। এর ফলে দেশের পুঁজিবাজারে স্বল্প সময়ের মধ্যে দুটি বড় ধস হয়েছিল। আমাদের সরকার এবং সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশন মিলে প্রাণান্ত চেষ্টা করে বাজারকে বর্তমান অবস্থায় এনেছি। বর্তমানে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার একটি অত্যাধুনিক এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত প্রথম শ্রেণির পুঁজিবাজার।’ এটি এখন একটি বিকাশমান খাত উল্লেখ করে আগামী দুই বছরে এ বাজারের অবস্থান ও ভিত্তি আরো মজবুত হবে বলেও মন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন। জনগণের ক্ষমতায়নে পুঁজিবাজার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শুধু ভাগ্যের ওপর নির্ভর না করে জেনেশুনে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করার পরামর্শ দেন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বিনিয়োগকারীদের জানাতে এবং বোঝাতে এই সম্মেলন এবং মেলার আয়োজন করেছে বিএসইসি। আমি মনে করি, এ মেলা ও সম্মেলনের মাধ্যমে সিলেটসহ সারা দেশের বিনিয়োগকারীরা উপকৃত হবেন।’ পরে অর্থমন্ত্রী পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ শিক্ষা মেলার স্টল পরিদর্শন করেন। এরপর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘পুঁজিবাজারে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও চলমান। তাদের শাস্তি প্রদানের বিষয়টি সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তবে সময়মতো সবার বিচার সম্পন্ন হবে।’ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে বিএসইসি চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন বলেন, ‘অর্থমন্ত্রীর দক্ষতায় বাংলাদেশের আর্থিক খাতগুলোর ভিত্তি মজবুত হচ্ছে। তাঁর বাজেট প্রণয়ন ও আর্থিক সংস্কার প্রক্রিয়ার গুণেই দ্রুত বিভিন্ন খাতের উন্নয়ন হচ্ছে।’

পুঁজিবাজারের যাবতীয় সমস্যা দূর করতে অর্থমন্ত্রী সরকারের পক্ষ থেকে কমিশনের প্রতিটি উদ্যোগকে সমর্থন দিয়েছেন বা দিচ্ছেন বলেই বাংলাদেশের পুঁজিবাজার এখন সমস্যামুক্ত বলে তিনি মন্তব্য করেন। দিনব্যাপী এই সম্মেলন ও মেলায় বিনিয়োগ শিক্ষা ও বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষা এবং সম্ভাব্য উদ্যোক্তাদের প্রস্তুতি ও পুঁজিবাজার থেকে পুঁজি উত্তোলনবিষয়ক প্রবন্ধ উপস্থাপন ছাড়াও পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট নানা বিষয় তুলে ধরা হয়।



মন্তব্য