kalerkantho

শেয়ারবাজারে দরপতন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস গতকাল সোমবার দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্যসূচকে বড় পতন হয়েছে। ডিএসইতে লেনদেন কমলেও সিএসইতে লেনদেন বেড়েছে। ডিএসইতে ৬৪ শতাংশ কম্পানির শেয়ারের দাম কমে গেছে।

বাজারসংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুঁজিবাজারে বড় দরপতনে বড় ভূমিকা রেখেছে বহুজাতিক ও বড় বড় মূলধনী কম্পানি। আর এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ব্যাংক খাত। প্রায় সব ব্যাংকের শেয়ারের দাম হ্রাস পেয়েছে। সোমবার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৩৪ কম্পানির ১২ কোটি ৮৮ লাখ ৩৩ হাজার ৫৬২ শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিট। আর্থিক হিসাবে লেনদেনের পরিমাণ ৪৭৭ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪৮৫ কোটি টাকা আর সূচক হ্রাস পেয়েছিল ৩৪ পয়েন্ট।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, লেনদেন শুরুর পর থেকে শেয়ার বিক্রির চাপ বাড়তে থাকে। আর শেয়ার বিক্রির চাপ বেশি থাকায় কমেছে মূল্যসূচক। দিন শেষে সূচক ৫৭.৯২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ছয় ২১০ পয়েন্ট। ডিএস-৩০ মূল্যসূচক ২১.৭৭ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ২৬১ পয়েন্ট ও ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ৮ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৩৯৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হওয়া ৩৩৪ কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৬৭টির, কমেছে ২১৩টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৪ কম্পানির শেয়ারের দাম।

লেনদেনের ভিত্তিতে শীর্ষে রয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল। কম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৭ কোটি ৫২ লাখ টাকা। দ্বিতীয় স্থানে থাকা সিটি ব্যাংকের লেনদেন হয়েছে ১৬ কোটি ৬৬ লাখ টাকা আর তৃতীয় স্থানে থাকা ইফাদ অটোসের লেনদেন হয়েছে ১৬ কোটি ২৯ লাখ টাক। অন্যান্য শীর্ষ প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ব্র্যাক ব্যাংক, ন্যাশনাল টিউবস, আলিফ ম্যানুফ্যাকচারিং, ড্রাগন সোয়েটার, গ্রামীণফোন, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, স্কয়ার ফার্মা।

মূল্যবৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে ড্রাগন সোয়েটার, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট, এসিআই ফরমুলেশন, বিডি ল্যাম্পস, আইসিবি এএমসিএল ২য় মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এটলাস বাংলা, ওয়াটা কেমিক্যাল, ফু-ওয়াং ফুডস ও ফার্স্ট বাংলাদেশ ফিক্সড। অন্যদিকে দাম কমার শীর্ষে রয়েছে শ্যামপুর সুগার, আলিফ ম্যানুফ্যাকচারিং, দুলামিয়া কটন, নাহী অ্যালুমিনিয়াম, সিটি ব্যাংক, জুট স্পিনার্স, ইস্টার্ন ব্যাংক, মুন্নু সিরামিকস, বিজিআইসি ও আইএসএন।

সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪০ কোটি ১১ লাখ টাকা। আর সূচক কমেছে ১০২ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ২৪ কোটি ২৫ লাখ টাকা আর সূচক কমেছিল ৬২ পয়েন্ট। লেনদেন হওয়া ২৩২ কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৫৩টির, কমেছে ১৪১টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৮ কম্পানির শেয়ারের দাম।



মন্তব্য