kalerkantho


উন্নয়ন দরকার আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকেরও

আবুল কাশেম ও শেখ শাফায়াত হোসেন   

২২ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



উন্নয়ন দরকার আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকেরও

প্রতিষ্ঠার মূল উদ্দেশ্যই ছিল আনসার-ভিডিপি (গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী) সংগঠনের নিম্নবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত, ভূমিহীন ও বিত্তহীন বিপুল জনগোষ্ঠীকে প্রাতিষ্ঠানিক ঋণ ও আর্থিক সেবার মাধ্যমে স্বনির্ভর করে গড়ে তোলা। সেই উদ্দেশ্য পূরণে গত ২১ বছরে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারেনি আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক।

২৩৮টি শাখা খুলে ৩৭১ কোটি টাকা আমানত সংগ্রহের বিপরীতে দ্বিগুণ ঋণ বিতরণ করে বসে আছে ব্যাংকটি। যে কারণে বড় অঙ্কের কর্জের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে অতফসিলি এই ব্যাংকটিকে।

আমানত কম থাকায় অধিকসংখ্যক আনসার-ভিডিপি সদস্যকে ঋণ কার্যক্রমেও আনতে পারছে না ব্যাংকটি। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত ১ লাখ ৩৮ হাজার ২০৬ জন আনসার-ভিডিপি সদস্যকে ঋণ কার্যক্রমের আওতায় আনা গেছে, যা মোট আনসার-ভিডিপি সদস্যের মাত্র ২.৩০ শতাংশ এবং মোট শেয়ারহোল্ডারদের ৫.২৭ শতাংশ।

জানা গেছে, দেশে বর্তমানে আনসার-ভিডিপি সদস্যের সংখ্যা প্রায় ৬০ লাখ। আনসার-ভিডিপি সদস্যরা ন্যূনতম ১০০ টাকা মূল্যের একটি শেয়ার কেনার মাধ্যমে ব্যাংকটির সদস্য হয়ে ঋণ গ্রহণের যোগ্য হন। বর্তমানে ব্যাংকটির ২৬ লাখ শেয়ারহোল্ডার থাকলেও তাদের কোনো তথ্যভাণ্ডার নেই। তবে বর্তমান ব্যবস্থপনা কর্তৃপক্ষ দ্রুত সময়ের মধ্যে একটি তথ্যভাণ্ডার তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ জালালউদ্দিন।

বিপুলসংখ্যক সদস্য থাকার পরও তাদের ঋণ কার্যক্রমে আনার বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে ঘাটতি রয়েছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

২০১৫-১৬ অর্থবছরে ব্যাংকটির ওপর বিশদ এক পরিদর্শনে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এই মন্তব্য করা হয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির প্রতিবেদনে।

তবে এমডি জালালউদ্দিন বলছেন, ‘ঋণ কার্যক্রমে এত দিন যে স্থবিরতা ছিল সেটা মূলধন অপর্যাপ্ততার কারণে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে শেয়ারহোল্ডার সম্প্রসারণের বড় একটি কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। আশা করছি খুব দ্রুত এর প্রতিফলন ঘটবে ব্যাংকটিতে। ’

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন প্রতিবেদনে বলা হয়, আনসার-ভিডিপি সদস্যদের সিংহভাগই ১৮ থেকে ৪০ বছর বয়সী এবং কর্মক্ষম। এদের দেশের উৎপাদনশীল ও আয় বৃদ্ধিমূলক কাজে সম্পৃক্ত করা গেলে তারা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে পারে। ব্যাংকটির মূল উদ্দেশ্য পূরণের জন্য আমানত সংগ্রহ কার্যক্রম জোরদার করে এবং স্বল্প সুদে তহবিল সংগ্রহ করে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা গ্রহণের মাধ্যমে আনসার-ভিডিপির বিপুলসংখ্যক সদস্যকে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া আবশ্যক বলে প্রতীয়মান হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের কৃষি বিভাগ থেকে ব্যাংকটির অনুকূলে ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে মঞ্জুরি করা ১০০ কোটি টাকার তহবিল এ ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে পারে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। ব্যাংকটির শীর্ষ নির্বাহী জানান, সম্প্রতি কৃষিঋণ বিতরণের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ২০০ কোটি টাকার একটি স্বল্প সুদের তহবিল পাওয়া গেছে। এতে করে ব্যাংকের ঋণ কার্যক্রম আরো জোরদার হবে বলেও আশা করেন তিনি।

প্রতিবেদনে ব্যাংকটির একটি বড় প্রতিবন্ধকতা হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক উল্লেখ করেছে, সরকারি মালিকানাধীন অন্যান্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এই ব্যাংকটির শীর্ষ পর্যায়ে (এমডি ও জিএম) পদায়ন করা হয় এবং তাঁরা গতানুগতিক কাজের মাধ্যমে সময় অতিবাহিত করে সুযোগ মতো অন্যান্য বৃহৎ সরকারি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে চলে যান। কোনো উদ্ভাবনী ও সৃজনশীল চিন্তাধারার মাধ্যমে ব্যাংকের উন্নয়নে তেমন অবদান রাখার দৃষ্টান্তও তাঁদের কর্মকাণ্ডে পরিলক্ষিত হয়নি। তবে ব্যাংকটির বর্তমান এমডি বলছেন, ‘এই পর্যবেক্ষণটা হয়তো পুরোপুরি সঠিক নয়। আগের এমডি শামস-উল ইসলাম নিজ উদ্যোগে সোনালী ব্যাংক থেকে কিছু তহবিল সংগ্রহ করেছিলেন। যার সুফল এখন পাচ্ছে ব্যাংকটি। আমি নিজেও সোনালী ব্যাংক থেকে এসেছি। আমি এসে ব্যাংকটির শেয়ারহোল্ডারদের জন্য তথ্যভাণ্ডার করার কাজটি দ্রুত এগিয়ে নিতে চেষ্টা করছি। ’

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত ব্যাংকটির ঋণ ও অগ্রিমের স্থিতি ছিল ৬২৬ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। আমানতের পরিমাণ ছিল ৩৭০ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। আমানতের তুলনায় ঋণ বিতরণ বেশি থাকায় ব্যাংকটিকে কর্জ করতে হয়েছিল ১৪১ কোটি ৩৯ লাখ টাকা, যা এর আগের বছরের থেকে ১ কোটি ৩৯ লাখ টাকা বেশি। অর্থাৎ কর্জের পরিমাণ বাড়ছে।

ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধনও কাঙ্ক্ষিত হারে বাড়েনি। সরকারের পক্ষ থেকে ৪০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের ২৫ শতাংশ অর্থাৎ ১০০ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধন হিসেবে দেওয়ার কথা থাকলেও আসে ৭৫ কোটি টাকা। অন্যদিকে আনসার-ভিডিপি সদস্য, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কাছ থেকে ৩০০ কোটি টাকা নেওয়ার কথা থাকলেও সংগ্রহ করা হয় মাত্র ৩১ কোটি ২৭ লাখ টাকা। এ ক্ষেত্রে সদস্যদের কাছ থেকে প্রত্যাশিত মূলধন সংগ্রহের কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ব্যাংক ব্যবস্থাপনাকে পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী গত বছরের জুন পর্যন্ত ব্যাংকটির খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৪৫ কোটি ৩৯ লাখ টাকা, যা মোট ঋণ ও অগ্রিমের ৭.২৪ শতাংশ। এর এক বছর আগে খেলাপি ঋণ ছিল ১৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। অর্থাৎ এক বছরে ২৬ কোটি ৫৩ লাখ টাকা খেলাপি ঋণ বেড়েছে। খেলাপি ঋণ আদায়ের হারও আগের বছরের থেকে ১৪.৮৭ শতাংশে নেমে এসেছে।

গত বছরের জুন পর্যন্ত ব্যাংকের দায়ের করা মামলার সংখ্যা ছিল ৪৮৮টি। ওই মামলাগুলোর দাবীকৃত অর্থের পরিমাণ ছিল ১ কোটি ৭২ লাখ টাকা। এর মধ্যে ২১৮টি মামলা নিষ্পত্তির মাধ্যমে প্রায় ৭৪ লাখ টাকা আদায় হয়েছে। বাকি মামলাগুলো নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে দ্রুত নিষ্পত্তির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ব্যাংকটিকে পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ব্যাংকটির জাল-জালিয়াতির সঙ্গে ১৭ জন কর্মকর্তা জড়িত ছিলেন বলেও পরিদর্শন প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। ওই সব জাল-জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত অর্থের পরিমাণ ২ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকে আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের এজিএম মোস্তফা আনোয়ারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তদন্তনাধীন রয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে ব্যাংকের সার্বিক কার্যক্রমে অধিকতর গতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুপারিশ, আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক আইন ১৯৯৫-এর ৭ নম্বর ধারার বিধান অনুযায়ী ব্যাংকটির মোট অনুমোদিত মূলধনের ৭৫ শতাংশ বা ৩০০ কোটি টাকা আনসার-ভিডিপি সদস্যদের কাছ থেকে সংগ্রহ করার লক্ষ্যে সব সদস্যকে ব্যাংকের শেয়ারহোল্ডার করতে হবে। একই সঙ্গে আধুনিক তথ্যভাণ্ডার তৈরি করে তাদের সঙ্গে ব্যাংকের কার্যকরী যোগাযোগ স্থাপন করে তাদের আত্মনির্ভরশীল ও আয় উৎসারী কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করার জন্য ব্যাপকভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করার সুপারিশ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ ছাড়া ব্যাংকটিকে গতিশীল করতে দক্ষ জনবল নিয়োগ, খেলাপি ঋণ আদায় জোরদার, লোকসানি শাখাগুলোর তদারকি বাড়ানো, সরকারি বরাদ্দ ও কর্জের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে আমানত ও স্বল্প খরচের তহবিল সংগ্রহ, অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা কার্যক্রম জোরদারসহ বেশ কিছু সুপারিশ তুলে ধরে বাংলাদেশ ব্যাংক। জাল-জালিয়াতিতে আটকে থাকা টাকা আদায় ও জাল-জালিয়াতি রোধকল্পে সতর্কতামূলক ব্যবস্থাও নেওয়ার জন্য ব্যাংক ব্যবস্থাপনাকে নির্দেশনা দেয় সংস্থাটি।


মন্তব্য