kalerkantho


চিনিযুক্ত পানীয়র চাহিদা কমছে

বাণিজ্য ডেস্ক   

২২ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



চিনিযুক্ত পানীয়র চাহিদা কমছে

বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। বিশেষ করে ডায়াবেটিস ও স্থূলতাসহ নানা রোগ থেকে বাঁচতে ভোক্তারা এখন চিনিমুক্ত পানীয় ও পণ্য খুঁজছেন।

তাই গড়পড়তা পণ্যের চাহিদা কমে যাওয়ায় কম্পানিগুলোও এখন বাধ্য হচ্ছে ভোক্তার চাহিদা অনুযায়ী পণ্য তৈরিতে। অর্থাৎ চিনিমুক্ত ও তুলনামূলক স্বাস্থ্যসম্মত পণ্য ও পানীয় তৈরিতে মনোযোগী হচ্ছে কম্পানিগুলো।

ইতিমধ্যে কোকা-কোলা, পেপসিকো ও নেসলের মতো বিখ্যাত কম্পানিগুলো চিনিমুক্ত পণ্য বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে। সাম্প্রতিক আয় কমায় ভোক্তাদের নতুন স্বাদের পানীয় উপহার দিতে জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কোকা-কোলা।

সম্প্রতি প্রকাশিত কম্পানির সর্বশেষ আর্থিক প্রতিবেদনে দেখা যায়, বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোকা-কোলার নেট আয় ৬০ শতাংশ কমে হয়েছে ১.৪ বিলিয়ন ডলার। একইভাবে মোট রাজস্ব ১৬ শতাংশ কমে হয়েছে ৯.৭ বিলিয়ন ডলার।

কম্পানি জানায়, তিন ধরনের পানীয়তে বিক্রি বাড়লেও একটি ক্যাটাগরিতে কমেছে। জুস, চা, কফিসহ দুগ্ধপানীয়তে প্রবৃদ্ধি বাড়লেও বিক্রি কমেছে স্পার্কলিং (বোতল খুললে বুদ্বুদ ওঠে এমন) পানীয়তে। কম্পানি জানায়, পানীয়তে মিষ্টি সোডার চাহিদা কমে যাওয়ায় কম্পানি তুলনামূলক স্বাস্থ্যসম্মত কম চিনির ও নন-কারবোনেটেড পানীয়র দিকে যাচ্ছে।

কোকা-কোলার সিইও জেমস কুইনসে বলেন, ভোক্তাদের চাহিদা মেটাতে চিনিবিহীন ও স্বাস্থ্যসম্মত পণ্য উত্পাদনে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কোকা-কোলা। জানা যায়, কোকা-কোলার চিনিবিহীন পানীয়র চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়েছে ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা ও লাতিন আমেরিকায়। ইতিমধ্যে কম্পানি নতুন কমলার জুস ছেড়েছে চীনের বাজারে। স্বাস্থ্যসম্মত এ পানীয়র বাজার পশ্চিম ইউরোপেও বাড়ানো হচ্ছে।

কুইনসে বলেন, ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডে আমাদের পারফরম্যান্স ভালো। ফলে আমরা আশা করছি ভোক্তাদের রুচি ও স্বাদের পরিবর্তন অনুযায়ী নতুন পণ্য বাজারে এনে আবার সফল হব। আমাদের সেই আত্মবিশ্বাস আছে। এএফপি, রয়টার্স।


মন্তব্য