kalerkantho


২০০ কোটি টাকা পাবে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী

১০ টাকার হিসাবধারীদের জন্য তহবিল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



আর্থিক অন্তর্ভুক্তির আওতায় ১০ টাকার হিসাবধারী ক্ষুদ্র, প্রান্তিক বা ভূমিহীন প্রান্তিক কৃষক অথবা প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত নিম্ন আয়ের পেশাজীবী এবং প্রান্তিক ব্যবসায়ীদের জন্য গঠিত ২০০ কোটি টাকার পুনরর্থায়ন তহবিলের বিতরণকৃত ঋণ সঠিক সময়ে আদায় করলে সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে বিশেষ সুদ রেয়াত দেওয়া হবে। এতে আদায়ের বিপরীতে ক্রমহ্রাসমান পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ ৩.৫০ শতাংশ হারে প্রণোদনা রেয়াত পাওয়া যাবে। গত মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ফিন্যানশিয়াল ইনক্লুশন ডিপার্টমেন্ট এসংক্রান্ত একটি নীতিমালা জারি করে। এতে বলা হয়, বিতরণকৃত ঋণ যে সময়কালের জন্য প্রদান করা হয়েছে, সুদসহ ওই মেয়াদের নির্ধারিত তারিখের মধ্যে আদায়কৃত ঋণের ওপর ৩.৫০ শতাংশ হারে ক্রমহ্রাসমান পদ্ধতিতে প্রণোদনা রেয়াত প্রদান করা হবে। উদাহরণস্বরূপ বলা হয়, ১০ লাখ টাকার জন্য ৫ শতাংশ ক্রমহ্রাসমান সুদহারে ৩১ হাজার ২৫০ টাকা সুদ বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক আদায়ের বিপরীতে প্রণোদনা রেয়াত হিসাব থেকে ৩.৫০ শতাংশ ক্রমহ্রাসমান সুদ হারে ২১ হাজার ৮৭৫ টাকা ব্যাংককে প্রণোদনা রেয়াত দেওয়া হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকগুলো এ তহবিল থেকে ব্যাংক রেট তথা ৫ শতাংশ হারে তহবিল পেয়ে থাকে। সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমে বিতরণ হলে ওই তহবিলের ঋণে ৯.৫০ শতাংশ পর্যন্ত গ্রাহকের কাছ থেকে সুদ আদায় করা যায়। এখন যথাসময়ে আদায়কৃত ঋণের বিপরীতে ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছ থেকে ৩.৫ শতাংশ পর্যন্ত ফেরত পেতে পারে। অর্থাৎ কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার ব্যাংক রেট থেকে ব্যাংকগুলোকে ৩.৫০ শতাংশের সমপরিমাণ টাকা ব্যাংককে প্রণোদনা দেবে।


মন্তব্য