kalerkantho


আন্তর্জাতিক পোল্ট্রি শো শুরু হচ্ছে আইসিসিবিতে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আন্তর্জাতিক পোল্ট্রি শো শুরু হচ্ছে আইসিসিবিতে

পোল্ট্রি শো আয়োজন উপলক্ষে শোভাযাত্রা

‘পোল্ট্রি ফর বেটার টুমরো’ স্লোগান নিয়ে দেশে প্রথমবারের মতো বড় পরিসরে আন্তর্জাতিক পোল্ট্রি শো ও সেমিনারের আয়োজন হতে যাচ্ছে। আগামী ২-৪ মার্চ অনুষ্ঠেয় এই শো ও সেমিনারে দেশি-বিদেশি ১৯৫টি পোল্ট্রি সংশ্লিষ্ট কম্পানি তাদের পণ্য ও প্রযুক্তি প্রদর্শন করবে। ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) এই প্রদর্শনীতে ৪৯০টি স্টল থাকবে। সঙ্গে থাকবে ফুড কোর্টও। বিশ্বের ২০টি দেশের প্রতিনিধিরা এই শোতে অংশ নেবেন। দেশ-বিদেশের খ্যাতিমান পোল্ট্রি বিশেষজ্ঞ ও বিজ্ঞানীরা সেমিনারগুলোতে ১০৪টি টেকনিক্যাল পেপার উপস্থাপন করবেন। পোল্ট্রি শিল্পের দশম এই মেলা ও সেমিনার সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে ওয়ার্ল্ডস পোল্ট্রি সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন-বাংলাদেশ শাখা (ওয়াপসা-বিবি) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংগঠনটির সভাপতি শামসুল আরেফিন খালেদ বলেন, এর আগে আন্তর্জাতিক পোল্ট্রি শো ও সেমিনার আয়োজন করা হলেও এবারের মতো বড় আয়োজন বাংলাদেশে কখনো হয়নি। পোল্ট্রি শিল্পের বিকাশের মধ্য দিয়েই সারা দেশের মানুষের পুষ্টি ও প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব। সবচেয়ে কম সময়ে, কম জমি ব্যবহার করে অধিক প্রাণিজ আমিষের জোগান শুধু এ শিল্পই দিতে পারে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কার্যকর ব্যবহারের ফলে এটি সম্ভব হবে। আগামী দিনে প্রযুক্তির ব্যবহার ও বিজ্ঞানভিত্তিক দক্ষতা আরো বাড়াতে হবে। এই মেলা উদ্যোক্তাদের জন্য সেই সুযোগ সৃষ্টি করবে।

ওয়াপসা-বিবির সাধারণ সম্পাদক মো. সিরাজুল হক জানান, মেলার আকর্ষণ বাড়াতে ৩ মার্চ মেলাস্থলে সকাল সাড়ে ১০টায় শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হবে। ২-৩ মার্চ দিনভর কুইজ শো ও তাত্ক্ষণিক পুরস্কার বিতরণীর ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া মানিক মিয়া এভিনিউ থেকে খামারবাড়ী হয়ে আইসিসিবি পর্যন্ত ফ্রি শাটল বাসের ব্যবস্থা থাকবে। সংবাদকর্মীদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য প্রতিদিন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সংগঠনের সহসভাপতি জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘পোল্ট্রি খাতে ২০ লাখ থেকে ২৫ লাখ মানুষের প্রত্যক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। ২০৩০ সাল নাগাদ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এই খাতের ওপর নির্ভরশীলের সংখ্যা এক কোটিতে দাঁড়াবে। ’


মন্তব্য