kalerkantho


খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১১ হাজার কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এক বছরের ব্যবধানে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা বেড়েছে শ্রেণীকৃত ঋণ। ডিসেম্বর শেষে শ্রেণীকৃত ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬২ হাজার কোটি টাকার বেশি।

এ পরিমাণ বকেয়া ঋণ ব্যাংক খাতের মোট বিতরণ করা ঋণের ৯.২৩ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ করা পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর মোট বিতরণকৃত ঋণের স্থিতি ছয় লাখ ৭৩ হাজার ৯২০ কোটি টাকা। এর মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৬২ হাজার ১৭২ কোটি টাকা। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বিতরণকৃত পাঁচ লাখ ৮৪ হাজার ৬১৫ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে খেলাপি ঋণ ছিল ৫১ হাজার ৩৭১ কোটি টাকা। সেই হিসাবে বছরের ব্যবধানে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১০ হাজার ৮০১ কোটি টাকা।

তবে তিন মাস আগেও ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ ছিল ৬৫ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা। যা ছিল ওই সময় পর্যন্ত বিতরণ করা ছয় লাখ ৩৫ হাজার ৯৮৭ কোটি টাকা ঋণের ১০.৩৪ শতাংশ। সেই দিক দিয়ে তিন মাস পরে খেলাপি ঋণ কমেছে তিন হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, সাধারণত বছরের শেষ দিকে ব্যাংকগুলোর ঋণ আদায়ের তৎপরতা বেশি থাকে।

ফলে প্রতিবছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় ডিসেম্বরে খেলাপি ঋণ কমে আসে। এর আগে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরের তুলনায় ডিসেম্বরে খেলাপি ঋণ কমেছিল তিন হাজার ৩৩৭ কোটি টাকা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের ছয় বাণিজ্যিক ব্যাংকে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ১২৯ কোটি টাকা। যা তাদের বিতরণ করা ঋণের ২৫ শতাংশের বেশি। অন্যদিকে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের গড়হার ৫ শতাংশেরও নিচে রয়েছে। বিদেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের হার ১০ শতাংশের ঘরে রয়েছে। তবে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের খেলাপি ঋণের হার প্রায় ২৬ শতাংশ।


মন্তব্য