kalerkantho


সেমিনারে বক্তারা

পরবর্তী প্রজন্মকে জানাতে হবে মাহবুব হোসেনের গবেষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পরবর্তী প্রজন্মকে জানাতে হবে মাহবুব হোসেনের গবেষণা

সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন অর্থনীতিবিদ প্রফেসর রেহমান সোবহান

আপনি যদি কোনো বিষয়ে গবেষণা করতে চান, তবে আপনাকে মূলে পৌঁছতে হবে। খুঁজে বের করতে হবে প্রকৃতপক্ষে কোথায় কী হচ্ছে। মাহবুব কৃষকদের কাছে যেতেন, তাদের কথা শুনতেন, তাদের পরামর্শ দিতেন। সেটা কিন্তু বাসায় বসে নয়। এরপর তিনি যখন কোনো একটি গবেষণাকাজ শেষ করতেন, তখন নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে ছোটাছুটি শুরু করতেন সমস্যা সমাধানে। তিনি গবেষণা সিরিয়াসভাবে করেছেন বলেই গবেষণার প্রক্রিয়াই পরিবর্তন করে দিতে পেরেছেন। তাঁর কাজ আমাদের গ্রমীণ অর্থনীতিকে পরিবর্তন করে দিয়েছে। এটাই পরবর্তী প্রজন্মের জন্য শিক্ষা। এ জন্য মূলে পৌঁছতে হবে।

রাজধানীর জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে গতকাল কৃষি-অর্থনীতিবিদ ড. মাহবুব হোসেন স্মরণে সমাজবিজ্ঞান ও এর প্রাসঙ্গিকতার চ্যালেঞ্জ-বিষয়ক এক সেমিনারে অর্থনীতিবিদ প্রফেসর রেহমান সোবহান এসব কথা বলেন।

পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) আয়োজিত ওই সেমিনারে রেহমান সোবহান আরো বলেন, উনি একজন শ্রেষ্ঠ কৃষি-অর্থনীতিবিদ ও গবেষক।

কাজের প্রতি নিষ্ঠা ও মেধার কারণে সবাইকেই ছাড়িয়ে যেতেন। যে কারণে অনেক কম বয়সে তিনি বিআইডিএসের মহাপরিচালক হয়েছিলেন। যদিও তাঁর সামনে তিনজন বয়োজ্যেষ্ঠ ছিলেন। এককথায় তিনি ছিলেন ইউনিক একজন মানুষ। তিনি শুধু বাংলাদেশের নয়, পুরো এশিয়ার সম্পদ ছিলেন। তাঁর গবেষণা নিয়ে ভিয়েতনাম, ভারত, ফিলিপাইনসহ বিভিন্ন দেশে কাজ হয়েছে।

পিপিআরসির নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান হোসেন জিল্লুর রহমান অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনা করেন। এর আগে মাহবুব হোসেনের জীবনের ওপর নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, এ যুগের গবেষকরা তাঁদের কার্যক্রম পরিচালনা করেন ঘরে বসে। এটা ঠিক নয়। গবেষণার যে বিষয় থাকবে, সেটার কাছে পৌঁছতে হবে। তা না হলে প্রকৃত চিত্র উঠে আসবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান তাঁর ‘সংবর্তন’ বইয়ের ওপর আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, শুধু বাংলাদেশ নয়, তিনি পুরো এশিয়ার কৃষক নিয়ে কথা বলতেন। তিনি নারীদের ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করেছেন। তাঁর এ বইটিতে বৈজ্ঞানিক মননে এ দেশের বেড়ে ওঠার গল্প বলেছেন। এ গল্পটি তিনি বলতে পেরেছেন, কারণ তিনি একেবারে শিকড়ে কাজ করেছেন।

সিপিডির সম্মানীয় ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ড. মাহবুব শুধু গবেষণার জন্য নয়, কাজ করেছিলেন কৃষিনির্ভর এ দেশের সাধারণ মানুষের জন্য। আমাদের উচিত হবে তাঁর থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে কাজ করা।


মন্তব্য