kalerkantho


সময়সীমা কমিয়েছে এনজিও ব্যুরো

২৬ কর্মদিবসেই প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



দেশি-বিদেশি এনজিওদের দাবির মুখে দীর্ঘদিন পর অবশেষে প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড়ের সময়সীমা কমিয়েছে এনজিও ব্যুরো। সংস্থাটি এক পরিপত্রের মাধ্যমে জানিয়েছে, এখন থেকে যেকোনো এনজিওর অর্থ ছাড় ও প্রকল্প অনুমোদন ২৬ কর্মদিবসে দেওয়া হবে। আগে এই সময়সীমা ছিল ৪৫ কর্মদিবস। এনজিও ব্যুরোর কর্মকর্তারা বলছেন, প্রকল্প অনুমোদনের সময় আগে যেসব ধাপ পেরোতে হতো, তার মধ্যে বেশ কিছু ধাপ বাতিল করা হয়েছে। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে প্রকল্পের বিষয়ে মতামত আসতে আগে যে সময় লাগত, সেটিও কমিয়ে আনা হয়েছে।

এনজিও ব্যুরো সূত্র বলছে, গত বছর ১৬ জুন মন্ত্রিসভার বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় যে এনজিও ব্যুরো থেকে সেযব সেবা দেওয়া হয়, তা সহজ করতে হবে। সে আলোকে ৪৫ দিনের পরিবর্তে ২৬ কর্মদিবস মধ্যে প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড়ের সেবা নিশ্চিত করতে মন্ত্রিসভা থেকে এনজিও ব্যুরোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়।

 

সম্প্রতি এনজিও ব্যুরো থেকে জারি করা এক পরিপত্রে জানানো হয়, কোনো এনজিও থেকে প্রকল্প প্রস্তাব এলে প্রথমে এনজিওবিষয়ক ব্যুরো সে প্রকল্প প্রস্তাব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় আগে যেখানে ২১ কর্মদিবসের মধ্যে মতামত দিত, এখন থেকে সে মতামত দিতে হবে ১৫ কর্মদিবসের মধ্যে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মতামত পাওয়া না গেলে ওই প্রকল্পের ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের কোনো আপত্তি নেই বলে ধরে নেওয়া হবে। এ ছাড়া আগে যেখানে প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড়ে ১৩টি ধাপ পেরোতে হতো, সেটিও কমিয়ে আনা হয়েছে।

সব মিলিয়ে ২৬ কর্মদিবসে প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড় করা হবে।

এনজিওবিষয়ক ব্যুরোর কর্মকর্তারা বলছেন, পাবর্ত্য তিন জেলার কার্যক্রম শুরুর আগে এনজিওগুলোকে পাবর্ত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে আপত্তি সনদ নিতে হবে। দেশের বৃহৎ কয়েকটি এনজিওর কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, নতুন কোনো প্রকল্প অনুমোদন ও অর্থ ছাড়ের জন্য আবেদন করলে অনেক সময় অপচয় হতো। এতে কাজ ব্যাহত হতো। সময়সীমা কমে আসায় তাঁদের কাজে গতি আসবে।


মন্তব্য