kalerkantho


মূলধনী যন্ত্রপাতির আমদানি মূল্য পরিশোধ

এলসিএ ফরমের বৈধতার মেয়াদ বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



শিল্পের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির মূল্য পরিশোধের শর্তে কিছুটা শিথিলতা এনেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন থেকে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির মূল্য পরিশোধের জন্য ‘এলসি অথরাইজেশন ফরম’ ইস্যুর দিন থেকে ৩০ মাস পর্যন্ত সময় পাওয়া যাবে। আগে এই সময়সীমা ছিল ১৮ মাস। এই ১৮ মাসের মধ্যে আমদানি মূল্য পরিশোধ করতে ব্যর্থ হলে বাড়তি সময়ের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে অনুমোদন চাইতে হতো। এখন ৩০ মাস পার না হলে আর এ ধরনের অনুমোদনের প্রয়োজন হবে না।

তা ছাড়া এখন থেকে মূলধনী যন্ত্রপাতি, শিল্প কাঁচামাল, মধ্যবর্তী পণ্যসহ সব ধরনের আমদানিকৃত পণ্যের মূল্য পরিশোধের আগে এলসির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও আমদানিকারক তাঁর ‘এক্সপোর্টার রিটেইনশন কোটা-ইআরকিউ’ হিসাব বা অনুমোদিত নিজস্ব বিদেশি মুদ্রা হিসাব থেকে ওই সব পণ্যের মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন। এর জন্যও বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো অনুমোদন লাগবে না।

প্রসঙ্গত, এলসিএ ফরম হলো আমদানি করার অনুমতিপত্র। আমদানি নীতি আদেশ অনুযায়ী বিদেশি মুদ্রা লেনদেনে নিয়োজিত অথরাইজড ডিলার (এডি) ব্যাংক এই এলসিএ ফরম ইস্যু করে। কোনো পণ্য ওই আদেশ অনুযায়ী আমদানিযোগ্য না হলে ব্যাংক এ ফরম ইস্যু করবে না। এ ফরম ইস্যু না করে বাংলাদেশে কোনো পণ্য জাহাজীকরণ বা আমদানি হলে তা আইনের লঙ্ঘন বা অবৈধ।

ফরম ইস্যু করার ১২ মাসের মধ্যে সাধারণ পণ্যের মূল্য পরিশোধ করতে হয়।

গত বুধবার এলসিএ ফরমের মেয়াদ বাড়িয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ থেকে একটি সার্কুলার জারি করে বিদেশি মুদ্রা লেনদেনে নিয়োজিত অথরাইজড ডিলার ব্যাংকগুলোকে পাঠানো হয়। মোট আমদানি মূল্য পরিশোধের ক্ষেত্রে সময়সীমা ১৮ মাস থেকে বাড়িয়ে ৩০ মাস করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।


মন্তব্য