kalerkantho


মোটরসাইকেলে ৬৪ জেলা ভ্রমণ এক দম্পতির

‘দেশটা অনেক সুন্দর’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মোটরসাইকেলে ৬৪ জেলা ভ্রমণ এক দম্পতির

দম্পতিকে ধন্যবাদ জানান ও একটি সার্টিফিকেট তুলে দেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ছবি : কালের কণ্ঠ

দেশের পর্যটনকে সবার মধ্যে তুলে ধরা ও আগ্রহ সৃষ্টিতে মোটরসাইকেলে ৬৪ জেলা ভ্রমণ করেছে এক দম্পতি। পেশায় ব্যবসায়ী আলমগীর আহমেদ চৌধুরী তাঁর স্ত্রী চৌধুরানী দিপালী আহমেদকে সঙ্গে নিয়ে ৮৪ দিনে প্রত্যেকটি জেলার আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় স্থান পরিদর্শন করেছেন। গত বছরের ২৯ অক্টোবর তাঁরা যাত্রা শুরু করেছিলেন।

সরকার ঘোষিত ‘ভিজিট বাংলাদেশ‘ ক্যাম্পেইনের আওতায় বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের সহায়তায় ওই দম্পতি বাংলাদেশ ভ্রমণ করেন। রাসের ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের পক্ষ থেকে পর্যটকযুগলকে টেকনিক্যাল সপোর্ট ও ১৫০ সিসি মোটরসাইকেল দেওয়া হয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার ট্যুরিজম বোর্ডের সেমিনার কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে পর্যটকযুগল নিজেদের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। ভ্রমণকালে পর্যটকযুগল স্থানীয় জেলা প্রশাসন ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ট্যুরিজম বিষয়ে মতবিনিময় করেন।  

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, পর্যটন করপোরেশনের বিদায়ী প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তী আখতারুজ জামান খান কবির ও নতুন প্রধান নির্বাহী নাসির উদ্দিন।

রাশেদ খান মেনন বলেন, পর্যটন খাতের বিকাশে নানামুখী পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। আগের চেয়ে বিদেশি পর্যটকও বাড়ছে।

দেশীয় পর্যটকদের আগ্রহ করার পাশাপাশি বিদেশিদের আনতেও চেষ্টা চলছে। গুলশানের হলি আর্টিজানের ঘটনা পর্যটন খাতকে পর্যুদস্ত করেছে। অনেক বিদেশি নিরাপত্তার অজুহাতে আসে না। ক্রমান্বয়ে সেই ভয় দূর করতে কাজ চলছে।

রাশেদ খান মেনন আরো বলেন, পর্যটনের উন্নয়ন একটি আন্দোলনের ফসল। অনেকের চেষ্টায় সেটি উন্নতি হয়েছে। প্রথমবারের মতো কলম্বো থেকে সমুদ্রপথে পর্যটক (ওশান ক্রুজ) আসবে। বিদেশিদের আকৃষ্ট করতে সরকার পরিকল্পনাও হাতে নিয়েছে। এ সময় মোটরসাইকেলযোগে বাংলাদেশ ভ্রমণ ও মানুষের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি করায় ওই দম্পতিকে ধন্যবাদ জানান ও একটি সার্টিফিকেট তুলে দেন।

পর্যটক আলমগীর আহমেদ চৌধুরী অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন, ‘দেশটা অনেক সুন্দর। কেবল কক্সবাজার কিংবা সেন্ট মার্টিনসই নয়, প্রত্যেকটি জেলা অসাধারণ সুন্দর। দর্শনীয় স্থান রয়েছে। কিন্তু আমরা সেদিকে নজর দিই না। জেলায় জেলায় ভ্রমণে প্রত্যেক অঞ্চলের মানুষের সঙ্গে মিশে অসাধারণ অভিজ্ঞতা হয়েছে। অভূতপূর্ব সাড়া পাওয়া গেছে। ’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ‘চলার পথে কোনো বাধা-বিপত্তির মুখোমুখি হইনি। ’


মন্তব্য