kalerkantho


কর সম্মাননা পেলেন সুবর্ণা আফজালসহ ৫ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কর সম্মাননা পেলেন সুবর্ণা আফজালসহ ৫ জন

এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের কাছ থেকে কর সম্মাননা গ্রহণ করেন আফজাল হোসেন। ছবি : কালের কণ্ঠ কর সম্মাননা পেলেন

সঠিক হারে বেশি পরিমাণে কর দিয়ে সেরা করদাতার সম্মাননা ও ট্যাক্স কার্ড পেয়েছেন ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, আইনজীবী ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, অভিনয় শিল্পী সুবর্ণা মুস্তাফা, নাট্যনির্মাতা ও অভিনয়শিল্পী আফজাল হোসেন ও নিয়াজ মোহম্মদ।

সর্বোচ্চ করদাতা ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্যে এ বছর ট্যাক্স কার্ড নীতিমালা সংশোধন করে আগের ২০টি ট্যাক্স কার্ডের স্থলে ১৪১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে ট্যাক্স কার্ড প্রদান করা হয়।

আরো বেশি উৎসাহ প্রদানের জন্য ভবিষ্যতে এ সংখ্যা আরো বাড়াতে এনবিআর কাজ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল বুধবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এই পাঁচ ব্যক্তির হাতে সম্মাননাপত্র ও ট্যাক্স কার্ড তুলে দেন এনবিআর  চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান। এনবিআর চেয়ারম্যানের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠানে এনবিআর ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ২০১৬ সালের ২৪ নভেম্বর রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নিমার্ণাধীন জাতীয় রাজস্ব ভবনে জাতীয় আয়কর সপ্তাহ (২৪-৩০ নভেম্বর) উদ্বোধন ও ট্যাক্স কার্ড প্রদান করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ওই দিন এই পাঁচ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান ট্যাক্স কার্ড নেয়নি।

ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে কর দিয়ে আসছি। এবার সেরা করদাতার পুরস্কার হিসেবে ট্যাক্স কার্ড পেয়ে সম্মানিত হলাম। কর দেওয়া এখন সহজ বিষয়। এনবিআরের সেরা করদাতাদের ট্যাক্স কার্ড প্রদানের সিদ্ধান্ত যুগোপযোগী হয়েছে।

এর ফলে কর প্রদানে সাধারণ মানুষ আরো উৎসাহ পাবে। ’

ফজলে নূর তাপস আরো বলেন, রাজস্ব আহরণ বাড়াতে করস্তর আরো সহজ করতে হবে। বর্তমানে শূন্য থেকে সরাসরি ১০ শতাংশ স্তরে কর দিতে হয়। সরাসরি ১০ শতাংশে না গিয়ে ৫ শতাংশের একটি কর স্তর রাখা যেতে পারে। তাহলে দেশের উন্নয়নে অংশগ্রহণ করতে আরো অনেকে কর দিতে এগিয়ে আসবে। ’

ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ অনুষ্ঠানে বলেন, সেরা করদাতার সম্মাননা ও ট্যাক্স কার্ড প্রদানের সিদ্ধান্তের মাধ্যমে এনবিআর দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছে। এর ফলে দেশের সাধারণ মানুষ এখন স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে কর দিতে উৎসাহী হবে। বেশি করে কর দিয়ে সম্মাননা পেতে সবার মাঝে প্রতিযোগিতা তৈরি হবে।

এনবিআর কর্তৃক ট্যাক্স কার্ড সম্মাননাকে জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন উল্লেখ করে অভিনয় শিল্পী সুবর্ণা মুস্তাফা বলেন, ‘বাবা সব সময় সঠিক হারে কর দিতেন। বাবার কথা অনুসরণ করে আমিও কর দিয়ে যাচ্ছি। এনবিআরের এই সম্মাননা প্রদানের ফলে সামনের দিনগুলোতে কর প্রদানে আমরা সবাই আরো বেশি উৎসাহ পাব। ’

নাট্যনির্মাতা ও অভিনয় শিল্পী আফজাল হোসেন বলেন, ‘এনবিআরের এই সম্মাননার ফলে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে আমাদের নাম এসেছে। এটি অত্যন্ত আনন্দের। ’

সভাপতির বক্তব্যে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘বর্তমানে আমরা নতুন রাজস্ব বোর্ড, সুশাসন ও উন্নততর আধুনিক ব্যবস্থাপনা কাঠামোর আওতায় কাজ করছি। কর বিভাগ সম্পর্কে জনগণের ধারণা আমূল বদলে দিয়েছে আয়কর মেলা, তৈরি হয়েছে করদাতাবান্ধব পরিবেশ। আয়কর মেলার কারণে করদাতাদের মধ্যে সচেতনতা এবং দায়িত্ববোধ বৃদ্ধি পেয়েছে। অনেকেই এখন স্বেচ্ছায় আয়কর দিতে আসছেন। মেলার পরিবেশ আমরা সারা বছর ধরে রাখতে চাই। প্রথমবারের মতো আয়কর সপ্তাহ, ট্যাক্স কার্ডের সংখ্যা কয়েক গুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। করদাতাদের সঙ্গে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় করতে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ’

এনবিআর চেয়ারম্যান আরো বলেন, ‘বর্তমান সরকারের রূপকল্প-২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে রাজস্ব প্রয়োজন। সে রাজস্ব আহরণে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক সৎ করদাতাদের প্রণোদনা দিতে ট্যাক্স কার্ড সংখ্যা বৃদ্ধি ও কার্ড প্রদানের ক্ষেত্রে বৈচিত্র্য আনা হয়েছে।

তিনি বলেন, “ফেব্রুয়ারি মাসকে ‘পার্টনারশিপ মাস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল। এ মাসে আমরা আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অংশীজনদের সঙ্গে অংশীদারি আরো সুদৃঢ় এবং সুসংহত করেছি। তাঁদের সঙ্গে আমাদের প্রতিষ্ঠিত সুসম্পর্ক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে আমরা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি (এডিআর) কার্যক্রমকে জোরদার করার পরিকল্পনা নিয়েছি। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ‘মার্চ মাসকে এডিআর শক্তিশালী’ করার মাস ঘোষণা করা হয়েছে। এডিআরকে শক্তিশালী করা একটি চ্যালেঞ্জ। মার্চ মাসে এডিআর শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে অনেক বেশি কাজ করবে এনবিআর। এডিআর শক্তিশালী হলে মামলায় আটকে থাকা রাজস্ব আহরিত হবে। ”

 


মন্তব্য