kalerkantho


প্যাকেজিং আইন চায় ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



প্যাকেজিং আইন চায় ব্যবসায়ীরা

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পণ্যের মোড়কজাতকরণে (প্যাকেজিং) কোন ধরনের ব্যাগ ব্যবহার হবে তার সুনির্দিষ্ট আইন থাকলেও বাংলাদেশের পণ্যের ক্ষেত্রে এ ধরনের কোনো আইন নেই। এ জন্য প্লাস্টিক পণ্য ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিভিন্ন অসুবিধার মধ্যে পড়তে হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ প্লাস্টিক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের ব্যবসায়ীরা।

পণ্য প্যাকেজিংয়ের জন্য তারা সুনির্দিষ্ট একটি আইন করার কথা জানিয়েছে।  

বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশন (বিপিজিএমইএ) বঙ্গবন্ধু আন্তুর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১২তম আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক মেলার আয়োজন করছে। মেলা ১৫ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে চলবে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিপিজিএমইএ সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ‘পাটের ব্যাগ ব্যবহারের একটি নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। আমরা পাটের ব্যাগ ব্যবহারের বিরুদ্ধে নই, কিন্তু বাস্তবতা বিবেচনায় প্যাকেজিংয়ে এখন প্লাস্টিকের কোনো বিকল্প নেই। কোন ধরনের পণ্যে কী ধরনের প্যাকেজিং করা হবে সেটি নির্ধারণে আইন করা প্রয়োজন। শুধু প্যাকেজিংয়ের কারণে পণ্যের দাম বাড়ে। প্লাস্টিক প্যাকেজিং চালু হলে অনেক তরল পণ্যের দাম অনেক কমে যাবে। ’

২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের প্লাস্টিক শিল্প কোন পর্যায়ে থাকবে সে জন্য সুনির্দিষ্ট তিনটি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে এ সংগঠনটি।

পরিকল্পনা সম্পর্কে জসিম উদ্দিন আরো বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে আমাদের শিল্প দেশের উন্নয়নে কী অবদান রাখতে পারবে তার সুনির্দিষ্ট তিনটি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। অর্থনীতিবিদ ও গবেষকদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাঁরা নির্ধারণ করবেন লক্ষ্যে পৌঁছাতে এ শিল্পের কী করণীয়।


মন্তব্য