kalerkantho


‘আর্লি সেটলমেন্ট ফি’ আদায়ে নিষেধাজ্ঞা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



‘আর্লি সেটলমেন্ট ফি’ আদায়ে নিষেধাজ্ঞা

ঋণের সুদহার বাড়লে ঋণগ্রহীতা যদি এক মাসের মধ্যে ঋণের সমুদয় টাকা দিয়ে ‘আর্লি সেটলমেন্ট’ করতে চায়, তবে ওই গ্রাহকের কাছ থেকে অতিরিক্ত কোনো ফি বা মাসুল আদায় করতে পারবে না ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। গতকাল রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যানশিয়াল ইন্টিগ্রিটি অ্যান্ড কাস্টমার্স সার্ভিস ডিপার্টমেন্ট এসংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীকে পাঠিয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, যেসব মেয়াদি ঋণের সুদহার (ইসলামী ব্যাংকের পরিভাষায় বিনিয়োগের ওপর মুনাফার হার) পরিবর্তনশীল, সে ক্ষেত্রে সুদ বা মুনাফার হার বাড়াতে হলে তার যৌক্তিকতা তুলে ধরে গ্রাহককে এক মাস সময় দিয়ে নোটিশ প্রদান করতে হবে। নোটিশের সঙ্গে গ্রাহককে হালনাগাদ দায়সহ নতুন কিস্তি পরিশোধের সূচি সরবরাহ করতে হবে। সুদ বা মুনাফার হার বাড়ার কারণে গ্রাহক যদি এক মাসের মধ্যে ঋণ বা বিনিয়োগের অর্থ পরিশোধের মাধ্যমে চুক্তির পরিসমাপ্তি ঘটাতে চায়, তবে ‘আর্লি সেটেলমেন্ট ফি’ বা অতিরিক্ত কোনো ফি আদায় ছাড়াই পরিশোধের সুযোগ পাবে। চলতি ঋণ বা ডিমান্ড লোনের আর্লি সেটেলমেন্টের ক্ষেত্রেও অতিরিক্ত কোনো অর্থ আদায় করা যাবে না।

সার্কুলারে আরো বলা হয়েছে, মেয়াদি ঋণের কিস্তি পরিশোধে দেরির জন্য বিলম্ব ফি বা দণ্ডসুদ বা ক্ষতিপূরণ আদায়ের ক্ষেত্রে যেসব গ্রাহক প্রকৃতই অসুবিধায় আছে, তাদের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ব্যাংকের নিজস্ব নীতিমালার আলোকে তা নিষ্পত্তি করতে হবে। কোনোভাবেই এ ধরনের বিলম্ব ফি বা ক্ষতিপূরণ ওই ঋণ বা বিনিয়োগের জন্য প্রযোজ্য যে সুদ বা মুনাফার হার নির্ধারণ করা থাকবে তার  সঙ্গে আরো ২ শতাংশ যোগ করে আদায় করা যাবে।


মন্তব্য