kalerkantho


এমসিসিআইয়ের সভায় গভর্নর

১০.৩৪ শতাংশ খেলাপি ঋণের হার ভীতিকর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



১০.৩৪ শতাংশ খেলাপি ঋণের হার ভীতিকর

গতকাল মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) প্রথম প্রান্তিকের মধ্যাহ্নভোজ সভায় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির

১০.৩৪ শতাংশ খেলাপি ঋণের হারকে ভীতিকর পরিস্থিতি হিসেবে দেখছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। গতকাল রবিবার মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) প্রথম প্রান্তিকের মধ্যাহ্নভোজ সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

গভর্নর বলেন, ‘বর্তমানে ব্যাংকিং খাতের খেলাপি ঋণের হার ১০.৩৪ শতাংশ। এটি খেলাপি ঋণের ক্ষেত্রে উচ্চহার। এর মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর অবস্থা বেশি খারাপ। এগুলোর খেলাপি ঋণের হার ২০ থেকে ২৫ শতাংশের মধ্যে। এতে করে খেলাপি ঋণ পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হয়েছে তা আমি বলব না। তবে এটি ভীতিকর একটি অবস্থা। এ পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সতর্কভাবে কাজ করতে হবে এবং করছি। ’

অনুষ্ঠানে এমসিসিআইয়ের পক্ষ থেকে ঋণের সুদহার কমানোর প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে গভর্নর আরো বলেন, ‘ঋণের সুদহার না কমার জন্য সুনির্দিষ্ট কয়েকটি কারণ রয়েছে। বেশি খেলাপি ঋণের কারণে ব্যাংকগুলোকে বেশি প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হচ্ছে।

ফলে তাদের মুনাফা কমে যাচ্ছে। কস্ট অব ফান্ড বেড়ে যাচ্ছে। ব্যাংকগুলো চাইলেও খুব সহজে সুদের হার কমাতে পারছে না। ’

অনুষ্ঠানে জ্বালনি তেল, বিশেষ করে ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য সমন্বয় করতে দাবি জানিয়েছে ব্যবসায়ীদের সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে এমসিসিআই সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, ‘এসএমই ঋণের ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো এখনো ১৪ শতাংশ হারে সুদ নিচ্ছে। যা এসএমই উদ্যোক্তাদের টিকে থাকার ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দেখা দিচ্ছে। এটি কাম্য নয়। দেশের অর্থনীতিকে স্থায়ীভাবে শক্তিশালী করতে হলে এ খাতের সুদের হার এক অঙ্কের ঘরে নিয়ে আসতে হবে। ’ তা ছাড়া নতুন কোনো কারখানা তৈরির মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানি খরচের ওপর করসীমা সর্বমোট ৬ শতাংশ পর্যন্ত নির্ধারণ, বাংলাদেশ ব্যাংকের রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলের (ইডিএফ) অর্থ শুধু তৈরি পোশাক খাতে বিতরণ না করে রপ্তানিমুখী সব খাতে বিতরণ করা এবং সর্বস্তরে ভোক্তা পর্যায়ে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করার বিষয়ে প্রস্তাব করেন।

ব্যবসায়ীদের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে গভর্নর বলেন, এসএমই ঋণের সুদহার কোনো সমস্যা নয়। যেটি সমস্যা, যার মূলে রয়েছে জামানত। এ খাতের উদ্যোক্তারা পর্যাপ্ত জামানতের অভাবে ভোগে এবং আবেদনের পর ঋণ পেতে দেরি হয়। তবে এ খাতের ঋণের সুদহারের বিষয়ে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ব্যাংকগুলোকে নির্দিষ্ট হারে কৃষিঋণ বিতরণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে, তেমনি এসএমই ঋণের জন্যও সুনির্দিষ্ট গাইডলাইন রয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে রেমিট্যান্স কমে যাওয়ার জন্য তিনটি কারণ চিহ্নিত করেছেন বলে জানান বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দরপতন, প্রবাসীদের বাড়তি কাজের সুযোগ (ওভারটাইম) কমে যাওয়া এবং ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে অর্থ প্রদান উল্লেখযোগ্য কারণ। এর পরেও এ বিষয়ে গবেষণার জন্য দুটি আলাদা টিম কাজ করছে। সরেজমিনে জানতে তাঁরা বিভিন্ন দেশে যাবেন। এদিকে জ্বালনি তেলের দাম দেশের বাজারে সমন্বয় করার প্রস্তাব করে এমসিসিআই। যাতে এর সুবিধা সর্বস্তরের ভোক্তা পর্যায়ে পৌঁছায়। বিশেষ করে ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য সমন্বয় করতে বিশেষ দাবি জানিয়েছে ব্যবসায়ীদের এ সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং এমসিসিআইয়ের সাবেক সহসভাপতি আনিস এ খানসহ সংগঠনটির নেতারা উপস্থিত থেকে তাঁদের মতামত উপস্থাপন করেন।


মন্তব্য