kalerkantho


পুঁজিবাজারে ফেসভ্যালুর নিচে ৮০ শতাংশ ফান্ড

মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিট ১০ টাকার নিচে

রফিকুল ইসলাম   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মিউচ্যুয়াল ফান্ড ইউনিট ১০ টাকার নিচে

পুঁজিবাজারে অন্যান্য খাতের কম্পানির শেয়ারের দাম বাড়লেও ফেসভ্যালুর নিচে রয়েছে ৮০ শতাংশ মিউচ্যুয়াল ফান্ড। ৩৫টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ২৮টি ফান্ডের ইউনিট এখনো ১০ টাকার নিচেই।

মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে বিনিয়োগকারীর আগ্রহ না থাকায় ক্রমাগতভাবেই নিম্নমুখী।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছে, মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দাম হ্রাস-বৃদ্ধিতে অস্বাভাবিকতা না থাকায় ক্ষতির আশঙ্কা খুবই কম। বছর শেষে লভ্যাংশ পেলেও ফান্ডের বিনিয়োগ থেকে নির্দিষ্ট মুনাফা আসে। এই ফান্ড খাতে ‘স্বচ্ছতা’ না থাকায় বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করতে চায় না। তবে পুঁজিবাজারের মন্দাবস্থার উত্তরণ হলেও মিউচ্যুয়াল ফান্ড এখনো ফেসভ্যালুর নিচেই রয়েছে।

২০১০ সালে পুঁজিবাজারে ধসে লাখ লাখ বিনিয়োগকারী পুঁজি হারিয়ে বাজার ছাড়ে। অন্যান্য কম্পানির শেয়ারের দাম কমার সঙ্গে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দাম কমতে থাকে। দীর্ঘ ছয় বছর পর আইনকানুন ও প্রাযুক্তিক উৎকর্ষে আবারও গতিশীল হয়েছে পুঁজিবাজার। ঊর্ধ্বমুখী বাজারে অন্যান্য কম্পানির শেয়ারের দাম বাড়লেও অভিহিত মূল্যের নিচেই রয়েছে মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

মিউচ্যুয়াল ফান্ড হচ্ছে ট্রাস্ট আকারে গঠিত এমন কোনো ফান্ড যার উদ্দেশ্য বিধিমালা অনুসারে অর্থবাজার ইন্সট্রুমেন্টে বিনিয়োগের জন্য এক বা একাধিক স্কিমের আওতায় জনসাধারণের কাছে ইউনিট বিক্রয়ের মাধ্যমে অর্থ সংগৃহীত হয়।

সূত্র জানায়, মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদ ব্যবস্থাপক নগদ লভ্যাংশ না দিয়ে পুনঃবিনিয়োগ হিসাবে লভ্যাংশ দেয়। এতে তলানিতে থাকা ইউনিটের দাম নেট অ্যাসেট ভ্যালুর (এনএভি) ভিত্তিতে লভ্যাংশ প্রদান করা হয়। সাম্প্রতিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর এনএভি ১২-১৫ টাকা হলেও প্রতি ইউনিটের দাম ৫-৭ টাকা। আবার কোনোটির ইউনিটের দাম বেশিও রয়েছে, তবে ১০ টাকার নিচেই। সেই এনএভির ভিত্তিতে লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিনিয়োগকারীরা। যার জন্য ফান্ডে বিনিয়োগে বিমুখ বিনিয়োগকারীরা।

সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (মিউচ্যুয়াল ফান্ড) বিধিমালা, ২০০১ আইনের ৬৬ ধারায় লভ্যাংশ প্রদানের বিধানে বলা হয়েছে, প্রত্যেক মিউচ্যুয়াল ফান্ড বার্ষিক হিসাব সমাপ্ত হওয়ার পর প্রত্যেকটি স্কিমের বিপরীতে ওই স্কিম ইউনিট মালিকদের মধ্যে এই বিধিমালার আলোকে ও ট্রাস্টির মতামত সাপেক্ষে প্রসপেক্টাস অথবা অফার ডকুমেন্টে বর্ণিত লভ্যাংশ-সংক্রান্ত ঘোষণা মোতাবেক নগদ লভ্যাংশ অথবা রি-ইনভেস্টমেন্ট অথবা উভয়ভাবেই লভ্যাংশ ঘোষণা করবে। যার পরিমাণ ওই স্কিমের বার্ষিক লাভের ৭০ শতাংশের কম হবে না।

নগদ লভ্যাংশ দেওয়ার বিধান থাকলেও অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কম্পানি নগদ লভ্যাংশের চেয়ে পুনর্বিনিয়োগ বোনাস লভ্যাংশ প্রদান করে। অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কম্পানি রেস পরিচালিত ১০টি মিউচ্যুয়াল ফান্ড গত বছর পুনর্বিনিয়োগ লভ্যাংশ প্রদান করেছে। যদিও ওই সময় ফান্ডগুলোর ইউনিটের দাম ছিল ৪-৫ টাকা আর এনএভি ছিল ১১-১৫ টাকা। কাজেই এনএভির ভিত্তিতে দেওয়া লভ্যাংশ পুনর্বিনিয়োগ না দিয়ে নগদ লভ্যাংশ প্রদান করলে ইউনিটধারী বিনিয়োগকারী ওই লভ্যাংশে অন্তত দুটি ইউনিট কিনতে পারবে। যদিও লভ্যাংশ পুনর্বিনিয়োগে মিউচ্যুয়াল ফান্ড বিধিমালার সংশোধন দীর্ঘদিন থেকেই ঝুলে রয়েছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্র জানায়, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩৫টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ২৮টিই অভিহিত মূল্য ১০ টাকার নিচে। ২০১০ সালে বাজারে পতনের পর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি মিউচ্যুয়াল ফান্ড। কোনো সময় ইউনিটের দাম সামান্য বাড়লে আবারও নিম্নমুখী হয়েছে। আর কোনো কোনো মিউচ্যুয়াল ফান্ড বছরজুড়েই অভিহিত মূল্যের নিচে থাকলেও ঊর্ধ্বমুখী বাজারে অভিহিত মূল্য ছাড়িয়েছে।

অভিহিত মূল্য ১০ টাকার নিচে থাকা ফান্ডগুলো হচ্ছে ফার্স্ট জনতা মিউচ্যুয়াল ফান্ড প্রতি ইউনিট ৬.৬ টাকা, এবি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৬.৫ টাকা, এআইবিএল ফার্স্ট ইসলামী ফান্ড ৭.৯ টাকা, ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৮.৪ টাকা, ইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৬.৯ টাকা, ইবিএল এনআরবির ৬.৯ টাকা, এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৭.৯ টাকা, ফার্স্ট বাংলাদেশ ফিক্সড ইনকাম ফান্ড ৬.২ টাকা, গ্রিন ডেল্টা মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৮.২ টাকা, আইসিবি সেকেন্ড এনআরবি ৯.৫ টাকা, আইসিবি থার্ড এনআরবি ৬.৩ টাকা, আইসিবি এএমসিএল সেকেন্ড ৭.৮ টাকা, আইসিবি ইমপ্লয়ার্স ফান্ড ৬.৮ টাকা, আইসিবি সোনালী ব্যাংক প্রথম ফান্ড ৭.১ টাকা, আইএফআইসি ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৬.৭ টাকা, আইএফআইএল ইসলামিক ফান্ড ৭.৪ টাকা, এলআর গ্লোবাল ওয়ান ফান্ড ৭ টাকা, এমবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৭.৮ টাকা, এনসিসি ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান ৮.১ টাকা, ফিনিক্স ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৬.৯ টাকা, পিএইচপি ফার্স্ট ফান্ড ৬.২ টাকা, পপুলার লাইফ ফার্স্ট ফান্ড ৬.৫ টাকা, প্রাইম ব্যাংক ফার্স্ট আইসিবি এএমসিএ ৬.৪ টাকা, রিলায়েন্স ওয়ান ৯.৪ টাকা, এসইএমএ লেকচার ফান্ড ৯.৬ টাকা, ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ৬.৪ টাকা, ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফাইন্যান্স মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান ৮.৭ টাকা ও ভ্যানগার্ড এএমএল রূপালী ব্যাংক ব্যালান্স ফান্ডের ইউনিটের দাম ৮.৭ টাকা।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, পুঁজিবাজারে মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে মূলধন রয়েছে তিন হাজার ৭৬৬ কোটি ৭৯ লাখ ৫১ হাজার ২৬৭ টাকা।


মন্তব্য