kalerkantho


ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় সিইওদের উদ্বেগ

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হবে

বাণিজ্য ডেস্ক   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হবে

সাত দেশের নাগরিকদের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্য। ছবি : এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রে সাত মুসলিম দেশের নাগরিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে অবস্থান ব্যক্ত করেছেন দেশটির ব্যবসায়ীরা। গত শুক্রবার হোয়াইট হাউসে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে এক বৈঠকে অনেক কম্পানির সিইও তাঁদের উদ্বেগের কথা জানান। ডিসেম্বরে ট্রাম্প ব্যবসায়ীদের নিয়ে একটি বিজনেস অ্যাডভাইজরি প্যানেল গঠন করেন। সেই প্যানেলের বৈঠকে হয় এদিন।

অনেক কম্পানি জানায়, এ নিষেধাজ্ঞার ফলে তাদের কর্মীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং এর প্রভাব পড়বে ব্যবসায়। আলোচনায় অংশ নেন জেপি মরগান চেজ অ্যান্ড কম্পানির জ্যামি ডিমন, পেপসি কোর ইন্দ্রা নোয়ি, জেনারেল মোটরসের ম্যারি বারা এবং ফোর্ড মোটরসের সিইওসহ আরো অনেকে। আলোচনায় দেশটির ব্যাংক আইন, কর সংস্কার ও ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি উঠে আসে। বিশেষ করে প্রযুক্তি কম্পানিগুলো তাদের গভীর উদ্বেগের কথা জানায়। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের বেশির ভাগ প্রযুক্তিপ্রতিষ্ঠানের বিপুলসংখ্যক কর্মী বহিরাগত।

এ নিয়ে ফোক্স বিজনেসকে ব্ল্যাকস্টোন গ্রুপের প্রধান নির্বাহী স্টেফেন সোয়ার্জম্যান বলেন, সাত দেশের নাগরিকদের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি নিয়ে নিঃসন্দেহে অনেকের উদ্বেগ রয়েছে। বৈঠকে অংশ নেওয়া টেলসা ইনকরপোরেশনের এলস মাস্ক বলেন, ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আমরা ট্রাম্পের কাছে উদ্বেগ প্রকাশ করেছি।

’ ইতিপূর্বে ট্রাম্পের ব্যবসায়ী প্যানেল থেকে পদত্যাগ করেছিলেন উবারের সিইও ট্রাভিস কালানিক।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম সপ্তাহেই ডোনাল্ড ট্রাম্প সাত মুসলিম দেশের নাগরিকদের তাঁর দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করেন। এর পরই নানা প্রতিক্রিয়া দেখাতে থাকে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

কর্মীদের উদ্দেশে দেওয়া এক স্মারকে অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুক বলেন, ‘অভিবাসীদের ছাড়া অ্যাপল টিকে থাকতে পারবে না। তাই আমাদের উদ্ভাবন ও সাফল্যে বাধা না নিয়ে এগিয়ে যেতে দিন। ’ তিনি বলেন, এ কম্পানির প্রতিষ্ঠাতা স্টেব জবস একজন সিরীয় অভিবাসীর সন্তান। নেটফ্লিক্সের সিইও রিড হাস্টিংস প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রথম সপ্তাহকে দুঃখজনক হিসেবে উল্লেখ করেছেন। ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে তিনি বলেন, ‘ট্রাম্পের ঘোষণা বিশ্বজুড়ে থাকা নেটফ্লিক্সের কর্মীদের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হবে। আমরা আমেরিকান নই, এটি সারাক্ষণ আমাদের দুঃখের কারণ হবে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘আমেরিকার মর্যাদা ও মূল্যবোধ রক্ষায় আমাদের সবার এক হওয়ার এখনই সময়। ’ অভিবাসন বিষয়ে ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশের তীব্র সমালোচনা করেছে গুগল।

গুগলকর্মীদের উদ্দেশে দেওয়া এক স্মারকলিপিতে প্রতিষ্ঠানটির সিইও সুন্দর পিচাই বলেন, ‘কর্মীদের ব্যক্তিগত ক্ষতি আমাদের জন্য পীড়াদায়ক। ’ একই সঙ্গে তিনি এ আদেশের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত গুগলকর্মীদের সব ধরনের সহায়তা প্রদানের নির্দেশনাও দিয়েছেন। এএফপি, রয়টার্স।

 


মন্তব্য