kalerkantho


স্বচ্ছ ও স্থিতিশীল ভ্যাট ব্যবস্থা চান ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



স্বচ্ছ ও স্থিতিশীল ভ্যাট ব্যবস্থা চান ব্যবসায়ীরা

২০১৭-১৮ অর্থবছর থেকে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট আইন ২০১২ চালুর ঘোষণা দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। পরিবর্তন আসছে ভ্যাটের নানা বিষয়ে।

তবে দেশের ব্যবসায়ীরা স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার সুবিধার্থে এর আগেই নতুন ভ্যাটব্যবস্থার খুঁটিনাটি সম্পর্কে স্পষ্টতা, নীতির স্থিতিশীলতা, সর্বোপরি পূর্বানুমানযোগ্যতা চায়। গতকাল মঙ্গলবার মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) এক কর্মশালায় বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিরা এ দাবি করেন।

রাজধানীতে এমসিসিআইয়ের নিজস্ব ভবনে আয়োজিত ‘নিউ ভ্যাট অ্যাক্ট/রুলস : এন ইমপ্লিমেনটেশন রোড ম্যাপ’ শীর্ষক ওই কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান। এনবিআর ও কাস্টমসের শীর্ষ অনেক কর্মকর্তার পাশাপাশি অনুষ্ঠানে বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন। পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুরের পরিচালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এমসিসিআই সভাপতি নিহাদ কবির।

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এনবিআর সদস্য (ভ্যাটনীতি) ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন। সেখানে নতুন ভ্যাটব্যবস্থার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যর পাশাপাশি আইনি, তথ্য-প্রযুক্তিগত ও প্রায়োগিক নানা সুবিধা তুলে ধরা হয়। বিদ্যমান মূল্য ঘোষণা উঠে যাওয়া, করদাতা ও কর কর্মকর্তার যোগাযোগের সুযোগ কমে যাওয়াসহ কয়েকটি বিষয় তুলে ধরে এতে ব্যবসায়ীদের হয়রানি কমবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এ ছাড়া ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে এনবিআরের প্রস্তুতির কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ১৫ মার্চের মধ্যে বড় আকারে ব্যবসায়ীদের ভ্যাট অনলাইনে নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হবে।

আর আগামী ১৫ জুনের মধ্যে অনলাইনে প্রযোজ্য ভ্যাট পরিশোধব্যবস্থাও কার্যকর হবে।

এনবিআর চেয়ারম্যান নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াটি স্পষ্ট ও স্থিতিশীল হবে আশ্বাস দিয়ে তিনি বলেন, ‘১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাটব্যবস্থা চালু হচ্ছে। মূল সংযোজন করের ক্ষেত্রে বিভিন্ন পরিবর্তন আসছে। আমি ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলতে চাই, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য সহজীকরণে সর্বোচ্চ সহায়তা করবে। প্যাকেজ ভ্যাট বাতিল করে আমরা টার্নওভারভিত্তিক ভ্যাট নির্ধারণ করতে যাচ্ছি। ’


মন্তব্য