kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পুঁজিবাজারে আসতে রোড শো

ব্যবসা সম্প্রসারণে ১০০ কোটি টাকা তুলবে রানার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ব্যবসা সম্প্রসারণে ১০০ কোটি টাকা তুলবে রানার

রানার অটোমোবাইলসের চেয়্যারম্যান হাফিজুর রহমান খান বক্তব্য দিচ্ছেন

বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে (আইপিও) পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনে রোড শো করেছে রানার অটোমোবাইলস লিমিটেড। ব্যবসা সম্প্রসারণে কম্পানিটি পুঁজিবাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা তুলতে চায়।

গত বুধবার সন্ধ্যায় সোনারগাঁও হোটেলে এই রোড শো অনুষ্ঠানে কম্পানির বিস্তারিত আর্থিক প্রতিবেদন ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনাও তুলে ধরা হয়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, রানার ১১০ থেকে ১৫০ সিসি রেঞ্জের নতুন মডেলের মোটরসাইকেল তৈরির পাশাপাশি বিদ্যমান মডেলের মান বাড়াতে ও ব্যবসার সম্প্রসারণ করতে পুঁজিবাজারে আসতে চায়। ১০০ কোটি অর্থ দিয়ে ৩৩ কোটি টাকায় ব্যাংক ঋণ পরিশোধ, ৬৩ কোটি টাকায় নতুন মডেলের মোটরসাইকেল তৈরির পাশাপাশি বাজারে বিদ্যমান মডেলগুলোর মান বাড়ানো এবং চার কোটি টাকা আইপিও প্রক্রিয়ায় ব্যয় করবে।

কম্পানির প্রসপেক্টাসে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের ৩০ জুন পর্যন্ত শেয়ারপ্রতি আয় ২.৭৭ টাকা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ৫২.৪৭ টাকা। কম্পানিটির ইস্যু মানেজার হিসেবে কাজ করছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। রেজিস্টার টু দ্য ইস্যু লঙ্কাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

অনুষ্ঠানে রানার অটোমোবাইল লিমিটেডের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান খান বলেন, ‘রানার অটোমোবাইলকে আরো বড় পরিসরে নিয়ে যেতে চাই। নতুন মডেলের মোটরসাইকেল তৈরির পাশাপাশি বিদ্যমান মডেলেরও মান বাড়াতে চাই। অতীতের অভিজ্ঞতা নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চাই। ’

হাফিজুর রহমান খান আরো বলেন, ‘আমরা শুধু অর্থ সংগ্রহের জন্যই পুঁজিবাজারে আসতে চাচ্ছি না। পারিবারিক মালিকানার বাইরে রানার জনগণের কম্পানি হিসেবে শত বছর টিকে থাকবে, এটিই আমাদের প্রত্যাশা। ’ রোড শো অনুষ্ঠানে কম্পানির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেনসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ খান ও লঙ্কাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রোড শোতে মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যান্ড পোর্টফোলিও ম্যানেজার, অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কম্পানি, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, স্টক ডিলার্স, ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বীমা কম্পানি, অলটারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ম্যানেজার, অলটারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড, রিকগনাইজ পেনশন অ্যান্ড প্রভিডেন্ড ফান্ড, কমিশনের অনুমোদিত অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য