kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সাত প্রতিষ্ঠানের দরপত্র জমা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সাত প্রতিষ্ঠানের দরপত্র জমা

চট্টগ্রাম বন্দরে তিনটি জেটির পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজে সাতটি প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিয়েছে। জমা দেওয়ার শেষ দিনে গতকাল বুধবার এসব দরপত্র জমা হয়।

এখান থেকে তিনটি প্রতিষ্ঠানকে যোগ্য হিসেবে আগামী তিন বছরের জন্য খোলা পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজে নির্বাচিত করা হবে। জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (পরিবহন) গোলাম সারোয়ার কালের কণ্ঠকে বলেন, তিনটি জেটিতে কাজ করতে সাত প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিয়েছে। তাদের আবেদন যাচাই-বাছাই করে শর্ত পূরণের পরই নিয়োগ করা হবে।

চট্টগ্রাম বন্দরের ২, ৩ ও ৪ নম্বর জেটিতে খোলা পণ্য জাহাজ থেকে নামানো হয়ে থাকে। এসব জেটিতে পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজ করতে জমা পড়া দরপত্রগুলো হচ্ছে রুহুল আমিন অ্যান্ড ব্রাদার্স, এডাব্লিউ খান অ্যান্ড কম্পানি, ইউনাইটেড ট্রেডিং কম্পানি, কসমস এন্টারপ্রাইজ, ফোর জুয়েলস স্টিভেডোরিং সিন্ডিকেট, পঞ্চরাগ উদয়ন সংস্থার। এই সংস্থাগুলো বর্তমানে খোলা পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজে বন্দরের ছয় জেটিতে নিয়োজিত আছে। এর বাইরে নতুন একটি প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিয়েছে, সেটি হলো সুফি অ্যান্ড ব্রাদার্স। দরপত্রের শর্ত মতে, একাধিক প্রতিষ্ঠান সর্বোচ্চ দুটি জেটিতে আবেদন করতে পারবে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান আর্থিক ও কারিগরি দুই ধরনের পৃথক খামে আবেদন করেছে। দুটি আবেদন যাচাই-বাছাই করেই প্রতিষ্ঠান চূড়ান্ত করা হবে।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য ওঠানো-নামানোর জন্য প্রধান ১২টি জেটির মধ্যে ছয়টি জেটি জাহাজে আসা খোলা পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজে এবং বাকি ছয়টি জেটি কনটেইনার পণ্য ওঠানো-নামানোর কাজে নিয়োজিত থাকে। এসব জেটি পরিচালনার জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষ ২০১০ সাল থেকে দরপত্রের মাধ্যমে ১২ বার্থ বা জেটি অপারেটর প্রতিষ্ঠান নিয়োগ করছে। তিন বছরের জন্য প্রতিযোগিতামূলক দর দিয়ে তারা নির্বাচিত হয়ে আসছে।


মন্তব্য