kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


টিওয়াইএফ ও নোবেল অনুষ্ঠানে ১৩ দেশের ২৬ তরুণ নির্বাচিত

বিশেষ প্রতিনিধি   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



টিওয়াইএফ ও নোবেল অনুষ্ঠানে ১৩ দেশের ২৬ তরুণ নির্বাচিত

চতুর্থ বার্ষিক টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম (টিওয়াইএফ) এবং এ বছরের নোবেল শান্তি পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে নিজ দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে টেলিনরের কার্যক্রম রয়েছে এমন ১৩টি দেশের ২৬  মেধাবী তরুণ উপস্থিত থাকছেন। এই ১৩টি দেশের প্রায় পাঁচ হাজার আবেদনকারীর মধ্যে ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সী ২৬ মেধাবী তরুণকে এ জন্য প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নির্বাচিত করা হয়।

তাঁদের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএর শিক্ষার্থী রাফসান শাবাব খান এবং রামিম আহমেদ। প্রযুক্তির ব্যবহার করে সামাজিক নানা সমস্যা সমাধানে তরুণদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে টেলিনর গ্রুপ ও নোবেল পিস সেন্টারের যৌথ উদ্যোগে এই টিওয়াইএফ।

গতকাল মঙ্গলবার টেলিনর গ্রুপের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ বিষয়ে বলা হয়, নোবেল শান্তি পুরস্কার প্রদান সপ্তাহ চলাকালে ডিসেম্বরের ৮ থেকে ১১ তারিখ নরওয়ের অসলোতে বছরব্যাপী টিওয়াইএফ প্রোগ্রাম শুরু হবে। টিওয়াইএফে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা প্রধান প্রধান সামাজিক সমস্যা সমাধানে দলগতভাবে কাজ করার পাশাপাশি এ বছর নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট হুয়ান ম্যানুয়েল সান্তোসের সম্মানে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন। বছরব্যাপী টিওয়াইএফ কর্মসূচির অংশ হিসেবে অসলোর অনুষ্ঠানের পরেও প্রতিনিধিরা ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে দলগতভাবে কাজ করবেন। পাশাপাশি আগামী বছরের মে মাসে ব্যাংককে তাঁদের আবার সাক্ষাৎ হবে। সবশেষে ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে নোবেল পিস সেন্টারে তাঁদের দলগত ভাবনা ও কাজের ডিজিটাল প্রদর্শনী হবে।

টিওয়াইএফ উদ্যোগের অন্যতম সহযোগী নোবেল পিস সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক লিভ টোরেস বলেন, ‘ইউরোপ ও এশিয়া থেকে তরুণ প্রতিনিধিদের একসঙ্গে এখানে নিয়ে আসতে পারার এবং তাঁদের বিশ্বব্যাপী ও সামাজিক সমস্যা সমাধানে বিশেষজ্ঞ ও সমাধানদাতা হিসেবে তৈরি হওয়ার চ্যালেঞ্জ দেওয়ার সুযোগ দিতে পেরে আমি রোমাঞ্চিত। নোবেল পিস সেন্টার বিশ্বাস করে, সামাজিক অসাম্য চিহ্নিত করার মাধ্যমে আমরা শান্তির দিকে আরো এক পা এগিয়ে যাচ্ছি। এ কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের প্রত্যাশা তরুণরা পরিবর্তনের সূচনায় তাঁদের সম্ভাবনার উপলব্ধি করতে পারবেন। ’

টেলিনর গ্রুপের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিগভে ব্রেক্কে বলেন, যেসব তরুণের ধারণা, উদ্যম ও সামাজিক নৈতিকতা আছে তাঁদের ওপর আমরা আস্থা রাখি। প্রযুক্তির ক্ষমতা নিয়ে আমরা আশাবাদী। আমরা মনে করি, দেশের নির্দিষ্ট গণ্ডির বাইরেও অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ শান্তির ধারাকে ত্বরান্বিত করবে। নতুন কিছু সৃষ্টিতে তরুণরা টেলিনর, এর বিশেষজ্ঞ এবং আমাদের সহযোগী নোবেল পিস সেন্টারের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে দেখে আমরা রোমাঞ্চিত। ’

প্রতিনিধিদের নির্বাচন সম্পর্কে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, টেলিনর গ্রুপের কার্যক্রম পরিচালিত হওয়া ১৩টি দেশের ১০০ কোটির বেশি মানুষের এলাকা থেকে শীর্ষ মেধাবী ২৬ তরুণ টিওয়াইএফ প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এটি এযাবৎকালে বৈশ্বিকভাবে টেলিনরের পরিচালিত সবচেয়ে বড় কোনো বাছাই প্রক্রিয়া। টেলিনর ইয়ুথ ফোরামে চার হাজার ৮০০-এর বেশি আবেদনপত্র থেকে বিভিন্ন পরীক্ষা, ভিডিও সাক্ষাৎকার, অনুষ্ঠানে উপস্থিতি এবং অন্যান্য অনেক বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শীর্ষ তরুণরা নির্বাচিত হন।

সমাধান প্রদানে তরুণদের সহায়তা করতে টেলিনর সার্ভিস ডিজাইন এজেন্সি লাইভওয়ার্ককে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। প্রতিটি দলকেই একজন বিশেষজ্ঞ পরামর্শদাতা সহায়তা করবেন। বিশেষজ্ঞরা দলগুলোকে সমাধান প্রদানে বছরজুড়েই নানা নির্দেশনা দেবেন।

নির্বাচিত তরুণদের জন্য ব্যাংককে আগামী বছরের মে মাসে দ্বিতীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে টিওয়াইএফ। দলগুলোর কাজের বাস্তবায়ন ঘটাতে এটি তাঁদের জন্য প্রথম ও অন্যতম প্রধান মাইলফলক। টেলিনর ও বিশেষজ্ঞদের সমন্বিত জুরি বোর্ড তরুণদের কাজের মূল্যায়ন করবে এবং বিজয়ী দল নির্বাচিত করবে। আর এর মাধ্যমেই এ বছর টিওয়াইএফ নির্বাচিত তরুণদের কর্মসূচির সমাপ্তি ঘটবে। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে এ বছরের বিজয়ী দল পরবর্তী বছরে টিওয়াইএফে অংশগ্রহণকারীদের অনুপ্রাণিত করতে অসলোতে ফিরে যাবে।


মন্তব্য