kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বসুন্ধরা খাতার প্রিমিয়াম সিরিজের যাত্রা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বসুন্ধরা খাতার প্রিমিয়াম সিরিজের যাত্রা শুরু

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল হেডকোয়ার্টারে নতুন সিরিজের খাতার উদ্বোধন করেন বসুন্ধরা গ্রুপের পরিচালক ইয়াশা সোবহান। ছবি : কালের কণ্ঠ

আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি বসুন্ধরার খাতা দেশের সেরা বলে দাবি করেছেন বসুন্ধরা পেপার মিলসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বসুন্ধরা খাতা প্রিমিয়াম লিমিটেড সিরিজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে তাঁরা এসব কথা বলেন।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল হেডকোয়ার্টারে এই নতুন সিরিজের খাতার উদ্বোধন করেন বসুন্ধরা গ্রুপের পরিচালক ইয়াশা সোবহান। এর আগে তিনি বসুন্ধরা পেপার মোবাইল রিচার্জ অফারের দ্বিতীয় পর্বের বিজয়ীদের হাতে স্মার্টফোন ও ল্যাপটপ তুলে দেন।

অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা পেপারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জানান, বাজারে সবচেয়ে উন্নতমান ও আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন খাতা তৈরি করে বসুন্ধরা পেপার। বসুন্ধরা খাতা দামে সাশ্রয়ী ও লেখায় কালিও কম লাগে। এ ছাড়া বাজারের অন্য খাতা কিনে পৃষ্ঠা কম হওয়ার কারণে ভোক্তাকে ঠকতে হলেও বসুন্ধরা খাতায় ভোক্তাকে উল্লেখ করা পৃষ্ঠায় দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা পেপারের হেড অব ডিভিশন (সেলস) মো. মাসুদুজ্জামান বলেন, দেশে খাতার জগতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন নিয়ে এসেছে বসুন্ধরা খাতা। সব ধরনের খাতার চাহিদা পূরণ করতে এবার বসুন্ধরা উন্নতমানের মনোরম কাভারের খাতা তৈরি করেছে। এখন থেকে প্রতিটি স্টেশনারিতে এই খাতা পাওয়া যাবে।

তিনি আরো বলেন, দেশে প্রায় ৩০০ কোটি টাকার খাতার বাজার আছে। বসুন্ধরা গ্রুপ এই বাজারের ৪০ শতাংশ চাহিদা পূরণ করে। আগে এগুলো বিদেশ থেকে আমদানি করতে হতো। এখন বসুন্ধরা দেশেই এটি তৈরি করছে।

কর্মকর্তারা জানান, ভিকারুননিসা নূন স্কুল, আইডিয়াল, বি এ এফ শাহীনসহ রাজধানীর নামিদামি স্কুলের চাহিদা অনুযায়ী কভার পেজের খাতা তৈরি করে দেয় বসুন্ধরা।

বসুন্ধরা ‘এ ফোর পেপারের’  মোবাইল রিচার্জ অফারের দ্বিতীয় পর্বের সারপ্রাইজ গিফট হিসেবে তিন বিজয়ীকে আনুষ্ঠানিকভাবে পুরস্কার দেওয়া হয়। এর মধ্যে দুজনকে দুটি মোবাইল ফোন এবং একজনকে একটি ল্যাপটপ দেওয়া হয়।

বিজয়ীরা হলেন ব্র্যাক ব্যাংক কর্মকর্তা মো. আব্দুর রাজ্জাক, মাছিহাতা সোয়েটারের কর্মকর্তা মো. সোহাগ মিয়া ও ইন্টার স্টাফ অ্যাপারেলের কর্মকর্তা মো. আল আমিনের হাতে পুরস্কার হিসেবে স্মার্টফোন ও ল্যাপটপ তুলে দেন ইয়াশা সোবহান।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ছিলেন বসুন্ধরা পেপার মিলসের হেড অব ডিভিশন (অ্যাকাউন্টস) মির্জা মুজাহিদুল ইসলাম, হেড অব সেলস পেপার প্রোডাক্ট মাসুদুর রহমান, বসুন্ধরা গ্রুপের জেনারেল ম্যানেজার ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড বিজনেস ইন্টেলিজেন্ট মো. তৌফিক হাসান প্রমুখ।

 


মন্তব্য