kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ব্যাংক খাতে হ্যাকিং বাড়ছে : সুইফট

বাণিজ্য ডেস্ক   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ব্যাংক খাতে হ্যাকিং বাড়ছে : সুইফট

এই গ্রীষ্মেই নতুন করে তিনটি গ্রাহক ব্যাংক হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে। এমন তথ্য জানিয়ে বিশ্বজুড়ে ব্যাংকগুলোতে হ্যাকিং বাড়ার শঙ্কার কথা জানিয়েছে ব্যাংকিং লেনদেনের আন্তর্জাতিক মেসেজিং নেটওয়ার্ক সুইফট।

বাংলাদেশ ব্যাংকের আট কোটি ১০ লাখ ডলার চুরিসহ বিভিন্ন দেশে আরো কয়েকটি ব্যাংকে হ্যাকিংয়ের ঘটনার পর গ্রাহক ব্যাংকগুলোকে বারবার সতর্ক করে আসছে ব্রাসেলসভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটি।

গত সোমবার জেনেভায় এক সম্মেলনে সুইফটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) গোটফ্রিড লেব্র্যান্ডট গ্রাহকদের সতর্ক করে দিয়ে বলেন, এই গ্রীষ্মে দুটি ব্যাংকের নিরাপত্তাব্যবস্থা ভেঙেছে হ্যাকাররা এবং আরো একটি ব্যাংকে আক্রমণ চালানো হলেও ভুয়া সুইফট বার্তা পাঠানোর আগেই তা ঠেকিয়ে দেওয়া হয়। অন্তত দুটি ক্ষেত্রে হ্যাকাররা সুইফটের মেসেজিং সিস্টেম ব্যবহার করে বার্তা পাঠিয়েছিল, যেগুলো সম্পাদন কর হয়নি। প্রথম ক্ষেত্রে ব্যাংকটি টাকা ছাড় করার যে বার্তা পেয়েছিল, তার সঙ্গে গতানুগতিক বার্তার মিল না পেয়ে খতিয়ে দেখে হ্যাকিং টের পাওয়া যায়।

আরেকটি ক্ষেত্রে টাকা ছাড়কারী ব্যাংক প্রাপকের বিষয়ে সন্দিহান হয়ে নির্দেশদাতা ব্যাংককে জানালে হ্যাকিংয়ের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। হ্যাকাররা সুইফটের মেসেজিং সিস্টেম ব্যবহার করে তৃতীয় যে ব্যাংকে বার্তা পাঠিয়েছিল, সেখানে সুইফট সফটওয়্যারের আধুনিক একটি ‘প্যাচ’ বসানো ছিল, যা হ্যাকারদের ভুয়া বার্তা সম্পর্কে সতর্ক করে দেয়।

সুইফটের সিইও বলেন, ‘এসব হ্যাকিংয়ের ঘটনায় কোনো অর্থ খোয়া যায়নি। ’ তবে আক্রমণের শিকার এসব ব্যাংকের নাম বলেননি তিনি। তিনি জানান, এ ছাড়া আরো কয়েকটি ঘটনায় অনেক ব্যাংকের নিরাপত্তা ভেদ করে ঢুকে পড়ার চেষ্টা করেছে হ্যাকাররা। অনেকে অর্থ খুইয়েছেন। তাই এসব ঘটনায় সুইফট বারবার গ্রাহকদের সতর্ক করছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ চুরির পর সুইফট বারবারই ব্যাংকগুলোকে নতুন নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়ে এসেছে, বিশেষ করে মেসেজ গ্রহণ ও পাঠানোর ক্ষেত্রে অনুমোদিত কর্তৃপক্ষের জন্য শক্তিশালী ব্যবস্থা এবং সফটওয়্যারে ইউজার আপডেট দেওয়া। কিন্তু সুইফটের পক্ষে সদস্য ব্যাংকগুলোকে এ ব্যাপারে বাধ্য করা সম্ভব নয়, যেহেতু তারা নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ নয়। সুইফট ব্যাংকগুলোকে জানিয়েছে, তারা যদি সংস্থার সফটওয়্যারের নতুন ভার্সন আগামী ১৯ নভেম্বরের মধ্যে ইনস্টল করতে না পারে তাহলে অবশ্যই যেন নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ এবং ব্যাংক অংশীদারদের জানায়। সর্বশেষ এ সফটওয়্যারে বেশ কিছু নতুন ফিচার রাখা হয়েছে সাম্প্রতিক সাইবার চুরি প্রতিরোধে।

ব্রাসেলসভিত্তিক আর্থিক নেটওয়ার্ক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সুইফট (সোসাইটি ফর ওয়ার্ল্ডওয়াইড ইন্টারব্যাংক ফিন্যানশিয়াল টেলিকমিউনিকেশন) এমন একটি মেসেজিং ব্যবস্থা, যার মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে প্রতিদিন শতকোটি ডলার লেনদেন হয়। এটি ব্যাংকগুলোর সমবায় সংস্থা হলেও সুইফটের নিয়ন্ত্রণ অতীতে কিংবা বর্তমানে সিটিব্যাংক, জেপি মরগান, ডাতচে ব্যাংক এবং বিএনপি পরিবাসের মতো পশ্চিমা বড় বড় ব্যাংকের হাতেই রয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানগুলোই এক দশক আগে সুইফট নেটওয়ার্ক গড়ে তোলে। রয়টার্স।


মন্তব্য