kalerkantho


যুদ্ধ, সন্ত্রাসী হামলা ও ভূ-উত্তেজনায়ও ভ্রমণ কমেনি

শক্তিশালী প্রবৃদ্ধিতে বিশ্ব পর্যটন

বাণিজ্য ডেস্ক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



শক্তিশালী প্রবৃদ্ধিতে বিশ্ব পর্যটন

বিশ্বব্যাপী ভূরাজনৈতিক উত্তেজনা ও জঙ্গি আতঙ্ক পর্যটনশিল্পে কিছুটা বাধা তৈরি করলেও শক্তিশালী প্রবৃদ্ধির মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে এ খাত। জাতিসংঘের পর্যটন সংস্থা ইউএন ওয়ার্ল্ড ট্যুরিজম অর্গানাইজেশন (ইউএনডাব্লিউটিও) জানায়, গত জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত চার মাসে বিশ্বে পর্যটক গমন বেড়েছে ৫ শতাংশ। এ সময়ে আন্তর্জাতিক পর্যটক গমন হয়েছে ৩৪ কোটি ৮০ লাখ। যা এক বছর আগের একই সময়ের চেয়ে এক কোটি ৮০ লাখ বেশি।

অনেক অঞ্চলে দুই অঙ্কের প্রবৃদ্ধি হয়েছে পর্যটক গমনে। এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে পর্যটক গমন বেড়েছে ৯ শতাংশের বেশি, যা অঞ্চল হিসেবে বিশ্বের সর্বোচ্চ। দক্ষিণ এশিয়ায় পর্যটক আগমন বেড়েছে ৭ শতাংশ। এ ছাড়া উপ-অঞ্চল হিসেবে সাবসাহারা আফ্রিকায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৩ শতাংশ। ইউএনডাব্লিউওটিওর হিসাব অনুযায়ী ২০১৬ সালে পুরো বছরে পর্যটন খাতে প্রবৃদ্ধি আসবে ৩.৫ থেকে ৪.৫ শতাংশ। ২০০৯ সালের পর থেকেই বিশ্বে প্রতিবছর পর্যটক গমনে প্রবৃদ্ধি ৪ শতাংশের ওপরে রয়েছে।

ইউএনডাব্লিউটিও মহাসচিব তালেব রিফাই বলেন, ‘পর্যটন খাতে এ সাফল্যের পরও আমাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে এ খাতে নিরাপত্তা। এ সমস্যার সমাধানে আমাদের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। যাতে আমরা পর্যটক গমন আরো সহজ করতে পারি। ’

সংস্থা জানায়, বিশ্ব অর্থনীতির এক-দশমাংশ আসছে পর্যটন খাত থেকে। এমনকি ২০১৫ সালে পর্যটন সাফল্যের মধ্য দিয়ে টানা চতুর্থ বছর বিশ্ব পর্যটনশিল্পের প্রবৃদ্ধি বৈশ্বিক পণ্য বাণিজ্যের চেয়ে বেশি হয়েছে। ফলে বিশ্ব রপ্তানিতে পর্যটনশিল্পের অবদান ২০১৫ সালে বেড়ে হয়েছে ৭ শতাংশ। এ সময় আন্তর্জাতিক পর্যটন থেকে মোট রপ্তানি আয় এসেছে ১.৪ ট্রিলিয়ন ডলার। ২০১৫ সালে বিশ্বে পর্যটক গমনও বেড়েছে ৪.৪ শতাংশ।

এদিকে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস। এ বছর পর্যটন দিবসের স্লোগান ‘ট্যুরিজম ফর অল—প্রমোটিং ইউনিভার্সাল অ্যাকসেসিবিলিটি’। এ উপলক্ষে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন বাণী দিয়েছেন। তিনি বলেন, প্রতিবছর বিশ্বে প্রায় ১২০ কোটি মানুষ ভ্রমণ করছে এবং পর্যটন খাত এখন অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে। সমৃদ্ধি, শান্তি ও লাখ লাখ মানুষের জীবনমান উন্নয়নের পথে এখন পাসপোর্ট হয়ে উঠেছে পর্যটন খাত।

ইউএনডাব্লিউটিও মহাসচিব তালেব রিফাই বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে আরো বলেন, গত ৫০ বছরে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে পর্যটন খাত। যেখানে ১৯৫০ সালে বিশ্বে পর্যটক ছিল দুই কোটি ৫০ লাখ। সেখানে গত বছর পর্যটক সংখ্যা বেড়ে হয়েছে প্রায় ১২০ কোটি। তিনি বলেন, পর্যটন এখন মানুষের জীবনমানের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

তালেব রিফাই বলেন, ‘আমরা যখন ঘুরে বেড়াই তখন নতুন নতুন সমাজ, মানুষের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়, নতুন স্থানের সঙ্গে আমরা পরিচিত হই। এতে আমাদের চিন্তা-ভাবনায়ও ব্যাপক পরিবর্তন আসে। তাই আমাদের ভুলে গেলে চলবে না বিশ্বের ১৫ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনো অক্ষমতা নিয়ে বাস করছে। যারা ভ্রমণ করতে পারে না, এর সংখ্যা ১০০ কোটি। ’

তালেব রিফাই বলেন, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও সেবায় এখন গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার পর্যটনশিল্প। বিশ্ব অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি শ্লথ হলেও ২০১৫ সালে উল্লেখযোগ্য হারে ব্যয় বেড়েছে পর্যটনশিল্পে। এ খাত থেকে এসেছে বিপুলসংখ্যক কর্মসংস্থান। তিনি বলেন, পর্যটনশিল্প থেকে বিশ্ব রপ্তানির ৭ শতাংশ ও সেবা খাতের ৩০ শতাংশ আসছে। গত বছর বিশ্ব বাণিজ্যে যেখানে প্রবৃদ্ধি এসেছে ২.৮ শতাংশ, সেখানে রপ্তানি ও সেবায় পর্যটন থেকে প্রবৃদ্ধি এসেছে যথাক্রমে ৬ ও ৭ শতাংশ।

ইউএনডাব্লিউটিও জানায়, গত বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১২০ কোটি মানুষ ভ্রমণ করে। পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে পছন্দের স্থান ছিল রাশিয়াসহ ইউরোপীয় অঞ্চল। এ অঞ্চলে ৬০৯ মিলিয়ন মানুষ ভ্রমণ করে। এর পরের অবস্থানে রয়েছে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চল। এ দেশগুলোতে ভ্রমণ করে ২৭৭ মিলিয়ন মানুষ। আমেরিকা অঞ্চলে ভ্রমণ করে ১৯০ মিলিয়ন পর্যটক। তবে গত বছর উত্তর আফ্রিকা অঞ্চলে পর্যটক গমন কমে ৮ শতাংশ। এএফপি, টর্নোস নিউজ।


মন্তব্য