kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অর্থনৈতিক অঞ্চল করার প্রাথমিক অনুমোদন পেল আকিজ গ্রুপ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



অর্থনৈতিক অঞ্চল করার প্রাথমিক অনুমোদন পেল আকিজ গ্রুপ

ময়মনসিংহে বেসরকারিভাবে একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার প্রাথমিক অনুমোদন পেল আকিজ গ্রুপ। গতকাল বুধবার রাজধানীর বিডিবিএল ভবনে আকিজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ বশির উদ্দিনের হাতে প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স তুলে দেন বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজার) নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী।

এ সময় অন্যদের মধ্যে বেজার নির্বাহী সদস্য ড. এমদাদুল হক, আব্দুস সামাদ, হরিপ্রসাদ পালসহ আকিজ গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এ নিয়ে ১২ ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানকে প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দিল বেজা। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো বসুন্ধরা গ্রুপের দুটি, মেঘনা গ্রুপের দুটি, এ কে খান গ্রুপ, আবদুল মোনেম লিমিটেড, বে গ্রুপ, আমান গ্রুপ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ময়মনসিংহ জেলার (ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কের পাশে) ত্রিশাল থানার মঠবাড়ী ইউনিয়নে অন্তর্গত খাগাতীপাড়া মৌজায় ১০০ একর জমির ওপর অর্থনৈতিক অঞ্চলটি প্রতিষ্ঠা হবে। অর্থনৈতিক অঞ্চলটি বাস্তবায়িত হলে আগামী পাঁচ বছরে প্রায় ২০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে এবং উৎপাদন খাতে বিনিয়োগ নিশ্চিত হবে।

আকিজ গ্রুপের কর্মকর্তারা জানান, প্রাথমিকভাবে এ অর্থনৈতিক অঞ্চলে কম্পানিটি পার্টিক্যাল বোর্ড ও এমডিএফ বোর্ড তৈরির দুটি কারখানা করবে। এ ছাড়া ফরমালডিহাইড, আঠা, সিগারেটের প্যাকেটের মোড়কের পলিথিন তৈরির কারখানা করার পরিকল্পনা রয়েছে। বর্তমানে মানিকগঞ্জে আকিজের পার্টিক্যাল বোর্ড তৈরির একটি মিল আছে। এ ছাড়া তাদের সিমেন্ট, পাট, তামাক, সিরামিক, ওষুধ, আবাসন, গ্যাসসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ আছে। এ অঞ্চলে দেশি-বিদেশি অন্যান্য কম্পানির বিনিয়োগের সুযোগও থাকবে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক অঞ্চলে এক হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে চায় গ্রুপটি।

অনুষ্ঠানে আকিজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ বশির উদ্দিন বলেন, ময়মনসিংহে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা হলে প্রায় ২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে, যা মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বাস্তবায়নাধীন অর্থনৈতিক অঞ্চলে ইতিমধ্যেই বিদেশি উদ্যোক্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে এবং অনেকেই ভারী শিল্প স্থাপনে আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলে জানান তিনি। বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের মাধ্যমে অর্থনৈতিক অঞ্চলটি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে বিশেষ ভূমিকা রাখবে এবং তা সরকারের উন্নয়নের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নের কয়েক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে। তিনি আরো বলেন, প্রাথমিকভাবে অর্থনৈতিক অঞ্চলে সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধবভাবে পার্টিক্যাল বোর্ড মিলস, এমডিএফ মিলস, ফরমাল ডিহাইড প্লান্ট ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলা হবে।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, সরকার আগামী ১৫ বছরে অর্থনৈতিক অঞ্চলে এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান ও প্রতিবছর অতিরিক্ত ৪০ বিলিয়ন ডলার পণ্য রপ্তানির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। যার ধারাবাহিকতায় ব্যক্তি খাতে অর্থনৈতিক অঞ্চল করার এই প্রয়াস। সরকার আশা করে, ব্যক্তি খাতে অর্থনৈতিক অঞ্চল উন্নয়নের প্রয়াসের মাধ্যমে স্বনামধন্য উদ্যোক্তারা তাদের নিজস্ব খ্যাতি ব্যবহার করে বিদেশি উদ্যোক্তাদের এ দেশে বিনিয়োগে উৎসাহী করতে সক্ষম হবে। তিনি আরো বলেন, বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের কাজ সহজ করতে বেজা এক জায়গা হতে সব সেবা নিশ্চিত করতে ওয়ান স্টপ আইন নিয়ে কাজ করছে।


মন্তব্য