kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখা বন্ধ করবে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখা বন্ধ করবে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

ভাড়ার চুক্তি নবায়নে ভবন মালিক আগ্রহী না হওয়ায় এবং ২৫০ মিটার দূরত্বের মধ্যে চট্টগ্রাম প্রধান শাখা থাকার কারণে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক তাদের আগ্রাবাদ শাখাটি বন্ধ করে দিতে চাচ্ছে। এ জন্য ব্যাংকটি সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে শাখা বন্ধ করে দেওয়ার আবেদনও করেছে।

যাচাই-বাছাই শেষে বেশ কিছু শর্ত সাপেক্ষে বাংলাদেশ ব্যাংক শাখাটি বন্ধ করার অনুমতি দিতে যাচ্ছে।

তবে শাখাটি বন্ধ করার আগে বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকটিকে বেশ কিছু কাজ করতে বলেছে। কাজগুলো হলো, শাখা বন্ধ করার আগে প্রত্যেক গ্রাহককে লিখিতভাবে জানাতে হবে, সেখানকার গ্রাহকদের হিসাব বন্ধ করতে, অন্য কোনো শাখায় স্থানান্তর করতে কিংবা অন্য কোনো উদ্দেশ্যে কোনো ধরনের চার্জ নেওয়া যাবে না। শাখা বন্ধ করার তিন কার্যদিবসের মধ্যে মূল অনুমতিপত্র বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দিতে হবে। বন্ধ করার আগে সবাইকে জানানোর জন্য কমপক্ষে দুটি দৈনিক পত্রিকায় পর পর দুই দিন বিজ্ঞাপন দিতে হবে।

এ ছাড়া এ শাখায় যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন তাঁদের কোনোভাবেই চাকরি থেকে বাদ দেওয়া যাবে না। তাঁদের অন্য শাখায় দায়িত্ব বণ্টন করে দিয়ে পুনর্বাসন নিশ্চিত করতে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেই সঙ্গে গ্রাহকরা প্রয়োজনে নিকটবর্তী যে শাখায় যোগাযোগ করতে পারবে তা একটি সাইনবোর্ডের মাধ্যমে জানিয়ে দিতে বলা হয়েছে। এ সাইনবোর্ড অন্তত ছয় মাসের জন্য রাখতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্যাংকটির হেড অব করপোরেট অ্যাফেয়ার্স বিটপী দাস তাত্ক্ষণিকভাবে কিছু জানাতে পারেননি।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, যে ভবনে শাখাটি অবস্থিত সেখানে ভাড়া বাড়ানোর কারণে এবং চট্টগ্রামের মূল শাখাটি পাশাপাশি হওয়ায় এটি বন্ধ করা হচ্ছে। শাখাটিতে বর্তমানে আট জন কর্মকর্তা রয়েছে। এটি মূলত চট্টগ্রামের মূল শাখাটির সঙ্গে একীভূত করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। কারণ দুটি শাখার দূরত্ব ২৫০ মিটার। তবে শাখা বন্ধ করার জন্য কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে চাকরিচ্যুতও করা হবে না বলে বাংলাদেশ ব্যাংককে জানিয়েছে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক।


মন্তব্য