kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভ্যাট অনলাইনে নেওয়ার পরামর্শ ব্যবসায়ীদের

বাণিজ্য ডেস্ক   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



হয়রানি এড়াতে ভ্যাট অনলাইনে নেওয়ার পদ্ধতি চালু করতে অর্থমন্ত্রীকে পরামর্শ দিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে এক আলোচনায় এই পরামর্শ দিয়েছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই নেতারা।

গত জুন মাসে বাজেট পাস হওয়ার পর এফবিসিসিআই নেতাদের সঙ্গে এটাই অর্থমন্ত্রীর প্রথম বৈঠক।

বৈঠকের পর এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ বলেন, ‘প্রত্যেক ব্যবসায়ীই ভ্যাট-ট্যাক্স দিতে চায়, কিন্তু কেউ হয়রানি হতে চায় না। মনে রাখতে হবে, ভ্যাট সিস্টেম সারা পৃথিবীতে ওয়ান অব দ্য বেস্ট সিস্টেম। এটা এখন অনলাইন হয়ে গেলে হয়রানির ক্ষেত্রটা অনেক কমে যাবে। ’

ব্যবসায়ীদের আপত্তির মুখে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক আইন এ বছর কার্যকর করতে পারেনি সরকার। ফলে নানা ক্ষেত্রে নানা হারে ভ্যাট নেওয়া হচ্ছে। আবার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য রয়েছে ‘প্যাকেজ ভ্যাট’। নতুন আইনে ভ্যাটের ক্ষেত্রে কোনো স্তর রাখা হয়নি, সব ক্ষেত্রেই ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর প্রযোজ্য হবে।

মাতলুব আহমাদ আরো বলেন, ‘প্যাকেজ ভ্যাট নিয়ে আমরা মন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়েছি, কারণ উনি আমাদের কথা বিবেচনা করে এটা আরো এক বছর বাড়িয়ে দিয়েছেন। ’ বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, নতুন আইনে ভ্যাটের হিসাব কষতে ছোট ছোট ব্যবসায়ীদেরও হিসাবরক্ষক রাখতে হবে, যা এখনো সম্ভবপর নয়। ’

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘বাজেট-পরবর্তী সময়ে কী হবে, কিভাবে আমরা তিন লাখ ২৪ হাজার কোটি টাকা উদ্ধার করব বা আমরা দেব, সরকার কিভাবে পাবে এবং এর কোথায় কোথায় সমস্যা আছে, সেটা নিয়ে বিস্তারিত আলাপের জন্য চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রিজের একটা ডেলিগেশন অর্থমন্ত্রীর কাছে এসেছিলাম। ’

মাতলুব আহমাদ বলেন, ‘আমরা মন্ত্রীকে বলেছি, যত ব্যবসায়ী সমিতি আছে, সবাই সরকারের সঙ্গে আছি। তিন লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকার মধ্যে ভ্যাটের যে ব্যাপারটা রয়েছে, আমরা সমিতিরাই সেই টাকাটা উঠিয়ে দেব। ’ সেই সঙ্গে কয়েকটি ক্ষেত্রে করের ঊর্ধ্বহারের বিষয়টি অর্থমন্ত্রীর গোচরে এনেছেন ব্যবসায়ী নেতারা।


মন্তব্য