kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


৫০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি

তৈরি পোশাক খাতে প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

বাণিজ্য ডেস্ক   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



প্রতিযোগিতাপূর্ণ বিশ্ববাজারে পোশাকশিল্পকে টেকসই ও লাভজনক শিল্পে পরিণত করতে প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগের বিকল্প নেই। ২০২১ সালের মধ্যে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে ৫০ বিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছতে হলে সব ক্ষেত্রে এখনই প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে।

গত মঙ্গলবার রাজধানীতে ‘বস্ত্রশিল্পের আধুনিকায়ন’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বিশেষজ্ঞরা এসব কথা বলেন। বস্ত্রশিল্পের আধুনিক সফটওয়্যারের উদ্ভাবক থ্রেডসল ও ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

বাংলাদেশ বর্তমানে ২৮ বিলিয়ন ডলার মূল্যের তৈরি পোশাক রপ্তানি করে। এটাকে কিভাবে ৫০ বিলিয়ন ডলারে নিয়ে যাওয়া যায়, সেটাই আলোচনা সভার প্রধান বিষয়বস্তু ছিল। দেশের বিভিন্ন খাতে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে চলা এ প্যানেল আলোচনা সভায় ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, তৈরি পোশাক খাতের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, বাংলাদেশ গবেষণা পরিষদের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো নাজনীন আহমেদ, আইএফআইসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহ এ সারওয়ার এবং থ্রেডসল সফটওয়্যারের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মনসিজ গাঙ্গুলি। বিশেষজ্ঞরা বলেন, বিশ্বায়নের এই যুগে বস্ত্রশিল্পের মালিকদের উত্পাদন প্রক্রিয়ার আধুনিকায়ন, শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি এবং গ্রাহকদের আরো দ্রুত সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে প্রযুক্তির ব্যবহার অত্যাবশ্যক।

প্যানেলের বক্তারা বলেন, দেশে এখন পর্যাপ্ত মানবসম্পদ রয়েছে। সরঞ্জাম ও নতুন প্রযুক্তিতিতে বিনিয়োগের ফলে শ্রমিকদের কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। আর এভাবে কাজ করে যেতে পারলেই রপ্তানিতে অতিরিক্ত ২২ বিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব।

মনসিজ গাঙ্গুলি বলেন, ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হলে বেশির ভাগ কারখানায় প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।


মন্তব্য