kalerkantho

26th march banner

বন্ড সুবিধার অপব্যবহার রোধে উদ্যোগ চাই

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বন্ড সুবিধার অপব্যবহার রোধে উদ্যোগ চাই

বন্ড সুবিধার অপব্যবহারে প্রকৃত ও সৎ ব্যবসায়ীরা অসম প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হচ্ছে। এতে প্রতিনিয়ত লোকসান গুনে তারা নিঃস্ব হয়ে পড়ছেন। এ দুর্নীতি রোধে আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। গতকাল রাজধানীর সেগুনবাগিচায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মূল দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে প্রাক-বাজেট আলোচনায় উপস্থিত ব্যবসায়ী সংগঠন থেকে এ দাবি করা হয়। এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ।

মাতলুব আহমাদ বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট দিতে সক্ষম নয়। ভ্যাটের এ হার কমিয়ে যৌক্তিক করতে হবে। আসন্ন বাজেটে সেটা সাড়ে ৪ থেকে ৭ শতাংশে রাখতে হবে। ’

ইসিআর মেশিন কিনতে স্বল্প সুদে ঋণের প্রস্তাব করে মাতলুব আহমাদ আরো বলেন, শুধু মেশিন কিনে দিলে হবে না। মেশিন চালাতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এ জন্য এফসিসিআইয়ের সদস্য বিভিন্ন চেম্বার ও অ্যসোসিয়েশনের সদস্যদের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার প্রস্তাব করেন তিনি।

রাজস্ব আদায়ে ব্যবসায়ীরা সব সহযোগিতা করতে প্রস্তুত উল্লেখ করে মাতলুব আহমাদ বলেন, তবে এর জন্য এনবিআরকে পরিবেশ তৈরি করতে হবে। অবশ্যই ভ্যাটের হার কমাতে হবে। তিনি বন্ড সুবিধার অপব্যবহারকারীদের চিহ্নিতকরণে ও শাস্তি প্রদানে পদক্ষেপ গ্রহণের পরামর্শ দেন।

অনুষ্ঠানে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, যারা বন্ড সুবিধার অপব্যবহার করে তারা জাতীয় শত্রু। এদের বিরুদ্ধে এনবিআর জিহাদ ঘোষণা করেছে। এনবিআরের সব শাখা একযোগে বন্ড অপব্যবহার রোধে কাজ করছে। বন্ড অপব্যবহারকারীদের শাস্তির আওতায় আনছে।

প্রাক-বাজেট আলোচনায় বাংলাদেশ পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণ ও বিপণন সমিতির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তোফায়েল খান বলেন, এ দেশের মুদ্রণশিল্প কোনো রকমে টিকে আছে পাঠ্যপুস্তক এবং কয়েক শ পুস্তক মুদ্রণের ওপর নির্ভর করে। যেখানে ছাপার কালি থেকে শুরু করে সবই আমদানি করে উচ্চ শুল্ক পরিশোধ করে ব্যবসা করতে হচ্ছে। সেখানে আমদানিকৃত বই আসছে শুল্ক সুবিধা নিয়ে। অসম প্রতিযোগিতায় স্থানীয় মুদ্রণশিল্প প্রতিনিয়ত লোকসান করছে।

বাংলাদেশ মুদ্রণ শিল্প সমিতির জুলকর শাহীন বলেন, বন্ডেড সুবিধার আওতায় আমদানিকৃত কাগজ, বোর্ড, কালি কোনো অবস্থাতেই খোলাবাজারে বিক্রি না হয় সেই লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন। জুলকর শাহীন আরো বলেন, দেশে মুদ্রণ সম্ভব এই ধরনের মুদ্রিত পুস্তক, ব্রুসিয়ার, লিফলেট আমদানি নিরুৎসাহিতে উচ্চ শুল্ক আরোপ প্রয়োজন।

বাংলাদেশ পেপার ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের আলমগীর হক বন্ড সুবিধার অপব্যবহারে পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়ে বলেন, সরকার শুধু বন্ড সুবিধার অপব্যবহারে এ দেশে ৭০ থেকে ৭৫ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। দেশের সৎ ব্যবসায়ীদের বাঁচাতে বন্ড সুবিধার অনিয়ম বন্ধ করতে হবে। প্রাক-বাজেট আলোচনায় সেবা খাতের বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধি এবং এনবিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য