kalerkantho


বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি

শুনানিতে প্রস্তুত অভিযুক্ত কিম অং

বাণিজ্য ডেস্ক   

২৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



শুনানিতে প্রস্তুত অভিযুক্ত কিম অং

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ৮১ মিলিয়ন ডলার চুরিতে মূল হোতা বলে অভিযুক্ত চীনা বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী কিম অং তদন্ত কমিটির শুনানিতে অংশ নিতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি ঘটনা সম্পর্কে যতটুকু জানি তার কিছুই লুকাব না।

রিজার্ভ চুরির ঘটনা তদন্তে ফিলিপাইনে গঠিত সিনেটের ব্লু রিবন কমিটির শুনানিতে আগামী ২৯ মার্চ সকাল ১১টায় তিনি অংশগ্রহণ করবেন। ফিলিপাইনের ইনকোয়্যারের প্রতিবেদকের সঙ্গে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রসঙ্গত, রেস্তোরাঁর মালিক এবং জুয়া কম্পানির অপারেটর কিম অং-কে মানি লন্ডারিংয়ের মূল হোতা বলে সিনেটের (সংসদের উচ্চকক্ষ) সদস্য সার্গে ওসমেনা অভিযোগ করেছেন।

ওসমেনার উদ্ধৃতি দিয়ে গত সপ্তাহে ইনকোয়্যারের প্রতিবেদনে বলা হয়, কিম অং-ই রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) শাখা ব্যবস্থাপক দেগুয়িতিকে পাঁচটি অ্যাকাউন্ট খুলতে বলেছিলেন, যার চারটিতে বাংলাদেশের চুরি হওয়া আট কোটি ১০ লাখ ডলার জমা হয়। আর এই অর্থ স্থানীয় মুদ্রা পেসোতে রূপান্তর করতে রেমিট্যান্স কম্পানি ফিলরেমের কাছে পাঠাতেও বলেছিলেন কিম অং।

আরসিবিসির শাখা ব্যবস্থাপক দেগুইতিও সিনেট শুনানিতে ব্যবসায়ী কিম অংয়ের বিরুদ্ধে ভুয়া কাগজপত্রের মাধ্যমে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলেছেন বলে অভিযোগ করেছেন।

তবে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা এসব অভিযোগকে অস্বীকার করেছেন কিম অং। গতকাল বৃহস্পতিবার কিম অংয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে ইনকোয়্যার ডটনেটের প্রতিবেদনে বলা হয়, কিম অং বলেন, ‘আমি কোথাও লুকায়নি। মেডিক্যাল চেকআপ শেষ করে গত রবিবার আমি সিঙ্গাপুর থেকে বিকেল ৪টায় ফিলিপাইনে পৌঁছেছি।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসওমেনের বিবৃতির জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ জানায়, ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কংগ্রেসওমেনের মনোভাব অনুধাবনের চেষ্টা করছে এবং তাঁর প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবে। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আরো বলেছে, ‘আমাদের সিস্টেমের দুর্বলতার কারণে এই অর্থ লোপাট হওয়ার কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। ’ ব্যাংক বলেছে, অর্থ লোপাটের পর থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে তারা এবং প্রয়োজনীয় সহযোগিতা অব্যাহত রাখা হবে।


মন্তব্য