kalerkantho


বাংলাদেশ-ভারত উপকূলীয় জাহাজ চলাচল চুক্তি

ছয় দিন পর বন্দর ছাড়ল জাহাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



নির্ধারিত সময়ের ছয় দিন পর ভারতের কৃষ্ণাপাটনাম বন্দরের উদ্দেশে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ল হারবার-১ জাহাজ। ১৭২ একক কনটেইনার ধারণক্ষমতার বিপরীতে মাত্র ৮০ একক খালি কনটেইনার নিয়ে গতকাল বুধবার সকাল ১০টায় বন্দর ছেড়ে যায়। বাংলাদেশ-ভারত উপকূলীয় জাহাজ চলাচল চুক্তির আওতায় পণ্যবাহী প্রথম জাহাজটি গত ১৬ মার্চ চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ার কথা ছিল।

কনটেইনার কম পাওয়ার কারণ জানতে চাইলে নিপা পরিবহনের প্রধান নির্বাহী সিরাজুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শতভাগ বুকিং থাকলেও বেসরকারি ডিপোগুলো যথাসময়ে কনটেইনার সরবরাহ করতে না পারায় ৮০ একক কনটেইনার নিয়ে গতকাল যাত্রা করেছে। ৯টায় যাত্রার কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে ছয়টি কনটেইনারের জন্য এক ঘণ্টা পিছিয়ে ১০টায় যেতে হয়েছে। ’

তিনি বলেন, জাহাজটি ২৭ মার্চ ভারতের কৃষ্ণাপাটনাম বন্দরে পৌঁছে, ২৮ মার্চ আবার চট্টগ্রাম বন্দরের উদ্দেশে রওনা দেবে। শিডিউল ঠিক রাখতেই কম কনটেইনার নিয়ে আমরা রওনা দিয়েছি। কারণ ২৮ মার্চ আমাদের বেশ ভালো বুকিং রয়েছে।

কনটেইনার ডিপো মালিকদের সংগঠন বিকডার সচিব রুহুল আমিন সিকদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এখন খালি কনটেইনার বন্দর ও ডিপো থেকে আনা-নেওয়ায় ধীরগতি চলছে। এই কারণে কনটেইনার সরবরাহ কম পাওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে। তবে হারবার-১ জাহাজের কত কনটেইনার বুকিং ছিল তার সঠিক তথ্য আমার কাছে নেই। ’

জানা গেছে, দুই দেশের সমুদ্র উপকূল ঘেঁষে সহজে ও কম খরচে পণ্য পরিবহন নিশ্চিত করতে গত নভেম্বর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে নৌ প্রটোকল চুক্তি স্বাক্ষর হয়। দুই দেশের ১১টি বন্দরের মধ্যে উপকূল ঘেঁষে কোস্টাল জাহাজ চলাচল করবে। ভারতের বন্দরগুলো হচ্ছে চেন্নাই, পশ্চিমবঙ্গের হালদিয়া ও কলকাতা, উড়িষ্যার প্যারাদ্বীপ এবং অন্ধপ্রদেশের বিশাখাপত্তনাম ও কৃষ্ণাপাটনাম। আর বাংলাদেশের পাঁচটি বন্দর হচ্ছে চট্টগ্রাম, মংলা, পায়রা, আশুগঞ্জ ও পানগাঁও। সেই চুক্তির আওতায় নিপা পরিবহনের এমভি হারবার-১ হচ্ছে প্রথম জাহাজ। এর আগে গত ১৫ মার্চ চট্টগ্রাম বন্দরে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান দুই দেশের জাহাজ চলাচলের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।


মন্তব্য