kalerkantho


দেশের প্রথম ডিটিএইচ সেবা দেবে রিয়েল ভিউ

বিশেষ প্রতিনিধি   

১১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



দেশের প্রথম ডিটিএইচ সেবা দেবে রিয়েল ভিউ

কেবল অপারেটরদের সংযোগের মাধ্যমে বিভিন্ন টিভি চ্যানেল দেখার বিপরীতে শিগগিরই দেশে প্রথম ডিরেক্ট টু হোম (ডিটিএইচ) সেবা ‘রিয়েল ভিউ’ চালু করতে সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনস। আগামী এপ্রিলে বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে এটি চালু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রথমে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে এই সেবা চালু হবে। এই প্রযুক্তিতে স্যাটেলাইট থেকে সরাসরি টেলিভিশন সিগনাল গ্রহণের মাধ্যমে গ্রাহকরা বিভিন্ন চ্যানেল দেখতে পারবে। এর মাধ্যমে টিভি দেখার বিশ্বের সর্বাধুনিক সুবিধা এবং প্রযুক্তি দেশে চালু হতে যাচ্ছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনসের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী দিমিত্রি লেপিস্কি বলেন, ‘খুব শিগগির রিয়েল ভিউ ব্র্যান্ড নামে ডিটিএইচ সেবা চালু করতে আমরা সম্পূর্ণ তৈরি এবং বাংলাদেশের টিভি দর্শকদের টিভি দেখার অভিজ্ঞতায় আমূল পরিবর্তন আনবে এই সেবা। এবিএস স্যাটেলাইট বিমের প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে শুরুতে মেট্রোপলিটন এলাকাগুলোতে এই সেবা প্রদান করা হবে এবং ধীরে ধীরে সারা দেশের মানুষই এই সেবা গ্রহণ করতে পারবে। ’

তবে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনসের পক্ষ থেকে বলা হয়, বাংলা নতুন বছরের শুরুতে এ সেবা চালু হবে।

সংবাদ সম্মেলনে দিমিত্রি লেপিস্কি আরো বলেন, রিয়েল ভিউয়ের ছবি অ্যানালগ কেবল টিভির ছবির চেয়ে অনেক গুণ ভালো হবে। মাসে মাত্র ৩০০ টাকায় গ্রাহক ২৬টিরও বেশি বাংলা চ্যানেলসহ ১০০টিরও অধিক চ্যানেল দেখতে পারবে। প্রধান প্রধান সব চ্যানেলই থাকবে তালিকাতে, পাশাপাশি পাঁচটি এইচডি চ্যানেল দেখা যাবে একই প্যাকেজে। ডিটিএইচ এমন একটি ডিজিটাল টেলিভিশন ডিস্ট্রিবিউশন সেবা যেখানে গ্রাহক সরাসরি স্যাটেলাইট থেকে বাসায় স্থাপিত ডিজিটাল সেট টপ বক্সের মাধ্যমে টিভি সিগনাল গ্রহণ করতে পারবে। বর্তমানে প্রচলিত যে কেবলের মাধ্যমে দর্শকরা টিভি দেখে থাকে সেই কেবলের আর প্রয়োজন থাকবে না ডিটিএইচ সেবা গ্রহণ করার পর।

রিয়েল ভিউয়ের সেবা নিতে একজন গ্রাহকের দরকার পড়বে একটি সেট টপ বক্স এবং ডিশ অ্যান্টেনা। ইনস্টলেশন এবং মূল্য পরিশোধের পরই একজন গ্রাহক ডিটিএইচ সেবা উপভোগ করতে পারবে। রিয়েল ভিউয়ের গ্রাহকদের জন্য থাকছে ২৪ ঘণ্টা গ্রাহকসেবা সুবিধা। মাসিক বিল পরিশোধ করা যাবে বিভিন্ন পদ্ধতিতে। গ্রাহকের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দিতে ইতিমধ্যে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনসের ডিস্ট্রিবিউটরদের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

সেট টপ বক্স এবং ডিশ অ্যান্টেনার দাম কত পড়বে—সংবাদ সম্মেলনে এ প্রশ্নের জবাবে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনসের পক্ষ থেকে বলা হয়, এটা পরে নির্ধারণ করা হবে। একটি সেট টপ বক্স এবং ডিশ অ্যান্টেনার মাধ্যমে কি একটি টিভিতেই সংযোগ মিলবে নাকি একই বাসায় একাধিক টিভিতে সংযোগ পাওয়া যাবে—এ প্রশ্নে বলা হয়, প্রথমে একটি টিভিতেই সংযোগ পাওযা যাবে। পরে একাধিক টিভিতে সংযোগ দেওয়ারও চিন্তা-ভাবনা করা হবে। ২৪ ঘণ্টা গ্রাহকসেবা সুবিধা সম্পর্কে বলা হয়, কল সেন্টারের মাধ্যমে গ্রাহকরা  যেকোনো সময় রিয়েল ভিউয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশ সরকার বেক্সিমকো কমিউনিকেশনসকে দেশে ডিটিএইচ সেবা চালুর লাইসেন্স প্রদান করে। এই সেবা চালুর জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) প্রয়োজনীয় সব অনুমোদন দিয়েছে। এখন এ কম্পানিটি গ্রাহকদের টিভি দেখার ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার শেষ ধাপে রয়েছে।

এ ছাড়া জানানো হয়, ‘রিয়েল ভিউ’ বেক্সিমকো এবং জিএস গ্রুপের একটি যৌথ উদ্যোগ। বেক্সিমকো বাংলাদেশের বেসরকারি খাতে সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি। কমোডিটি পণ্যের মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করলেও কম্পানিটি এখন বিভিন্ন শিল্পে নেতৃত্ব দিচ্ছে যেগুলোর অবদান দেশের জিডিপিতে শতকরা ৭৫ ভাগ। বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে নিয়ে যাওয়াই কম্পানিটির লক্ষ্য। এ লক্ষ্যেই পরবর্তী প্রজন্মের বিনোদন চাহিদা মেটাতে ডিটিএইচ সেবা চালু করা হচ্ছে। অন্যদিকে জিএস গ্রুপ একটি রাশিয়াভিত্তিক কম্পানি, যারা এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসেবা দিচ্ছে।

জিএস গ্রুপ একটি রাশিয়ান বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান, যারা টেলিযোগাযোগ এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে থাকে। শুধু বাংলাদেশই নয়, জিএস গ্রুপ কম্বোডিয়া এবং পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশে প্রযুক্তিগত সুবিধা দিয়ে আসছে। এ ক্ষেত্রে তাদের অভিজ্ঞতা অনেক। রাশিয়াতে ন্যাশনাল ডিজিটাল টিভি প্রজেক্ট তারাই প্রণয়ন করেছে এবং ব্যবস্থাপনাও করছে। পাশাপাশি প্রযুক্তি রপ্তানিতেও তারা অত্যন্ত সফল।  


মন্তব্য