আমেরিকার বৃহৎ বাজার হারাচ্ছে বাগদা-334526 | শিল্প বাণিজ্য | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১১ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৩ জিলহজ ১৪৩৭


আমেরিকার বৃহৎ বাজার হারাচ্ছে বাগদা চিংড়ি

শিমুল নজরুল, চট্টগ্রাম   

১১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আমেরিকার বৃহৎ বাজার হারাচ্ছে বাগদা চিংড়ি

বাংলাদেশি চিংড়ির কদর কমেছে আমেরিকার বাজারে। গত ১০ বছরে আমেরিকায় হিমায়িত চিংড়ি রপ্তানি কমেছে প্রায় ৭৮ শতাংশ। রপ্তানিমূল্য বেশি পড়ায় ভিয়েতনামের ভেন্নামি চিংড়ির সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না ব্ল্যাক টাইগার খ্যাত বাংলাদেশি ‘বাগদা’। ধারাবাহিক রপ্তানি হ্রাসের লাগাম টানতে রপ্তানিকারক ও সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা জোট বেঁধে আমেরিকার বোস্টনে অনুষ্ঠিত হিমায়িত খাদ্যমেলায় অংশ নিয়েছেন। পুরো বাজার দখলে এখন মরিয়া বাংলাদেশি রপ্তানিকারকরা।

বাংলাদেশ হিমায়িত খাদ্য রপ্তানিকারক সমিতির (বিএফএফইএ) নেতারা জানান, চিংড়ি রপ্তানির ক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বাজার হলো আমেরিকা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে চিংড়ি রপ্তানি হয় আমেরিকায়। গত ১০ বছর আগেও আমেরিকার বাজারে বাংলাদেশি বাগদা চিংড়ির ব্যাপক চাহিদা ছিল। সম্প্রতি সেই চাহিদা প্রায় ৭৭ শতাংশ কমেছে।

রপ্তানিকারকরা জানান, ২০০৫-০৬ অর্থবছরে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকায় চিংড়ি রপ্তানি হয়েছিল প্রায় ১৫৯ দশমিক ৩৯ মিলিয়ন ডলার। ২০০৭-০৮ অর্থবছরে চিংড়ি রপ্তানি আয় কমে দাঁড়ায় ১৪৫ মিলিয়ন। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে চিংড়ি রপ্তানি আয় আগের বছরের তুলনায় ২০ শতাংশ কমে ১১৫ মিলিয়ন ডলারে ঠেকে। পরবর্তী বছরে (২০০৯-১০) রপ্তানি আয় কমেছে ৩১.৮ শতাংশ। আমেরিকার বাজারে ধারাবাহিকভাবে চিংড়ির রপ্তানি কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন এ দেশের রপ্তানিকারকরা। গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে আমেরিকায় চিংড়ি রপ্তানি হয়েছে মাত্র ৩৫ দশমিক ২৭ মিলিয়ন ডলার। আর চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (গত ডিসেম্বর পর্যন্ত) আমেরিকায় মাত্র ২০ দশমিক ৮৩ মিলিয়ন ডলারের চিংড়ি রপ্তানি হয়েছে।

আমেরিকার বাজারে বাংলাদেশ হিমায়িত বাগদা চিংড়ি রপ্তানি হ্রাস প্রসঙ্গে বিএফএফইএর নির্বাহী পরিচালক মো. বাশার কালের কণ্ঠকে বলেন, রপ্তানিমূল্য বেশি পড়ায় ভিয়েতনামের ভেন্নামি চিংড়ির সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না বাগদা চিংড়ি। আমেরিকার বাজারে ১৬ বা ২০ সাইজের বাগদা চিংড়ি রপ্তানি করলে পাঁচ ডলার ১০ সেন্ট মূল্য পাওয়া যায়। আর একই সাইজের চিংড়ি ইউরোপের বাজারে প্রায় ৫০ থেকে ৬০ সেন্ট বেশি মূল্য পাওয়া যায়। কিন্তু ভিয়েতনামের ভেন্নামি চিংড়ি আরো কম দামে রপ্তানি হওয়ায় আমেরিকার ক্রেতারা সেদিকেই ঝুঁকে পড়েছে।

মো. বাশার আরো বলেন, বাংলাদেশি রপ্তানিকারক ও সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা আমেরিকার বোস্টনে অনুষ্ঠিত হিমায়িত খাদ্যমেলায় অংশ নিয়ে বাগদা চিংড়ি রপ্তানি বাড়ানোর উদ্যোগ নিচ্ছেন। এ ছাড়া আমদানিকারকদের বাগদা চিংড়ির প্রতি উৎসাহিত করতে আমেরিকার ন্যাশনাল ফিশারিজ ইনস্টিটিউটে আজ শুক্রবার ওয়াশিংটনে সেমিনারের আয়োজন করেছে মত্স্য মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো।

চিংড়ি রপ্তানিকারকরা জানান, গত ৬ থেকে ৮ মার্চ আমেরিকার বোস্টনে অনুষ্ঠিত মেলায় বাংলাদেশি ১৮ জন রপ্তানিকারক অংশ নিয়েছেন। আমেরিকার আমদানিকারকদের আবারও বাগদা চিংড়ির প্রতি উৎসাহিত করাতে মেলায় স্টল খোলা হয়েছিল। এতে আমদানিকারকদের ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে।

মন্তব্য