পুঁজিবাজার নিয়ে আশাবাদী অর্থমন্ত্রী-334173 | শিল্প বাণিজ্য | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০১৬। ১৬ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৮ জিলহজ ১৪৩৭


‘ডিএসই-মোবাইল’ অ্যাপস উদ্বোধন

পুঁজিবাজার নিয়ে আশাবাদী অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



পুঁজিবাজার নিয়ে আশাবাদী অর্থমন্ত্রী

‘ডিএসই-মোবাইল’ অ্যাপস উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী

নানা কারণে পুঁজিবাজারকে স্থিতিশীল অবস্থায় আনা সম্ভব হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, তবে প্রাযুক্তিক উত্কর্ষতায় মোবাইলে লেনদেনে পুুঁজিবাজারে আস্থা ফিরে আসবে ও বাজার চাঙা হবে। ঘরে বসেই মানুষ পুঁজিবাজারে লেনদেন করবে। দিলকুশা এলাকায় মানুষের ভিড়ও কমবে। এতে হঠাৎ করেই বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ ও শোভাযাত্রা হবে না। যদিও ২০১০ সালের পর থেকে একাধিকবার বিক্ষোভ ও সমাবেশ হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

গতকাল বুধবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘ডিএসই-মোবাইল’ অ্যাপসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে পুঁজিবাজারে লেনদেনে বিনিয়োগকারীদের সুবিধার্থে অ্যাপসটি চালু করছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। এই অ্যাপসের মাধ্যমে ব্রোকারেজ হাউসে না এসেও শেয়ার কেনাবেচা সম্ভব। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডিএসই পরিচালক ওয়ালিউল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল ইসলাম, ডিএসইর এমডি স্বপন কুমার বালা ও অ্যাপটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফ্লেক্সট্রেডের পক্ষে শন মিশের ব্লাংকো।

দীর্ঘদিন থেকেই নিজেকে পুঁজিবাজারের একজন বিনিয়োগকারী উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতাপূর্ব সময়ে ১৯৬৯ সালে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করেছিলাম। সেই সময়ে পুঁজিবাজারে ৩৩ হাজার টাকা হারিয়েছি। এই টাকাই তখন অনেক বেশি ছিল। কারণ আমি বেতন পেতাম এক হাজার ৬০০ কিংবা এক হাজার ৭০০। তখন আমি ছিলাম পাকিস্তানের শত্রু। যার জন্য রাজনৈতিক কারণে বিনিয়োগের টাকা বাজেয়াপ্ত করেছিল।’

প্রযুক্তিনির্ভর হলেও মানুষের মূল্যায়নকে স্বীকৃতি দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমরা যতই প্রযুক্তিনির্ভর হই না কেন, মানুষের মূল্যায়ন প্রয়োজন। এটা থাকলে যেমন ভুল ধরা সম্ভব, তেমনি উদ্ভাবনও সম্ভব। ডিএসই মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে মানুষ ঘরে বসেই লেনদেন করতে পারবে। এর নিয়মকানুন উন্নত দেশের সঙ্গে মিলিয়ে করা হয়েছে। এর মাধ্যমে লেনদেন চাঙা হবে।’ এই অ্যাপসের মাধ্যমে বাজারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে উল্লেখ করে খায়রুল ইসলাম বলেন, ‘এই অ্যাপসের উদ্বোধনের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের অংশ হিসেবে একটি পর্যায় পার হলো। এটির মাধ্যমে পুঁজিবাজারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অনুকরণে নানা প্রান্ত থেকে লেনদেন সুবিধার্থে এটি চালু করা হয়েছে।’ স্বপন কুমার বালা বলেন, পুুঁজিবাজারে পণ্যের ডাইভারসিটিতে প্রাযুক্তিক সীমাবদ্ধতা ছিল। এই অ্যাপসের মাধ্যমে সীমাবদ্ধতা কেটে যাবে। বিনিয়োগকারীদের তথ্যগত সুবিধা ও বাজারে দক্ষতা বাড়বে।

মন্তব্য