kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লেনদেনে মিশ্র প্রবণতা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন হয়েছে। টানা মূল্যপতনের বৃত্ত ভেঙে ডিএসইতে লেনেদেন ও সূচক বেড়েছে।

আর সিএসই সূচক এখনো নিম্নমুখী রয়েছে। লেনদেন ও সূচক উভয়েরই অব্যাহত পতন ঘটছে।

গতকাল সোমবার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩১০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা শেয়ার। তবে সূচক বেড়েছে ৮ পয়েন্ট। লেনদেন বেড়েছে ১০ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩০০ কোটি ২০ লাখ টাকার শেয়ার। তবে সূচক কমেছিল ৩৭ পয়েন্ট।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, সকাল সাড়ে ১০টায় লেনদেন শুরুর পর সূচক ঊর্ধ্বমুখী হয়। একটানা ২৭ মিনিট সূচকের উত্থান ঘটে। এতে দিনের সূচক ২৭ পয়েন্ট বেড়ে যায়। তবে সকাল ১০টা ৫৭ মিনিটের পর থেকেই সূচকে পতন হয়। ১১টা ২২ মিনিট পর্যন্ত পতনের পর আবারও ঊর্ধ্বমুখী হয় সূচক। কিন্তু ১২টা ৫ মিনিটের পর থেকে কমেছে সূচক। দিনশেষে সূচক দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৪৪৩ পয়েন্ট।

ডিএস-৩০ মূল্যসূচক ০.৪৭ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৭০৩ পয়েন্ট ও ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৭৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হওয়া ৩১৭টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৫৯টির, কমেছে ১১০টির ও দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৮টি কম্পানির শেয়ার।

লেনদেনের ভিত্তিতে শীর্ষে রয়েছে বিএসআরএম লিমিটেড, অরিয়ন ফার্মা, কাশেম ড্রাইসেল, লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স, মালেক স্পিনিং, সিএমসি কামাল, ইউনাইটেড পাওয়ার, সামিট পাওয়ার, বিএসআরএম স্টিল ও বিএসসিসিএল।

সিএইতে লেনদেন হয়েছে ২২ কোটি ৯৩ লাখ টাকার শেয়ার। আর সূচক কমেছে ১৪ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা। আর সূচক কমেছিল ৪৮ পয়েন্ট। দিনশেষে সূচক দাঁড়িয়েছে আট হাজার ৩০৫ পয়েন্ট। লেনদেন হওয়া ২৩৭টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৯৭টির, কমেছে ৯৬টির ও দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৪২টি কম্পানির দাম।


মন্তব্য