কৃষিপণ্য উৎপাদনে ২০ শতাংশ নগদ অর্থ-332575 | শিল্প বাণিজ্য | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


কৃষিপণ্য উৎপাদনে ২০ শতাংশ নগদ অর্থ সহায়তা : বাণিজ্যমন্ত্রী

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



কৃষিপণ্য উৎপাদনে ২০ শতাংশ পর্যন্ত নগদ অর্থ সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘দেশে বর্তমানে তিন লাখের বেশি পোল্ট্র্রি খামার রয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে তা এক কোটিতে পরিণত করা হবে। যারা কৃষিপণ্য উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত, তাদের ২০ শতাংশ পর্যন্ত নগদ অর্থ সহায়তা দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।’

রাজধানীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টার বসুন্ধরায় আয়োজিত অ্যাগ্রো সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গতকাল শনিবার বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। আহসান গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান এজি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ সম্মেলনের আয়োজন করে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘যারা দেশকে একসময় তলাবিহীন ঝুড়ি বলেছিল, আজ তারাই বলে বাংলাদেশ একটি মিরাকল। এটা শুধু কথার কথা নয়। দেশে বিভিন্ন কৃষিপণ্য যেভাবে উত্পাদন হচ্ছে, আমরা নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে তা বিদেশেও রপ্তানি করছি। শ্রীলঙ্কায় চাল রপ্তানি করা হয়েছে। এবার আরো এক লাখ টন রপ্তানির জন্য বেসরকারি খাতকে অনুমতি দেওয়া হয়েছে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মত্স্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হক বলেন, ‘বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর আমিষের চাহিদা পূরণে অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিগুলো বিশেষ ভূমিকা রাখছে। পাশাপাশি দেশের বেকার যুবকদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে।’

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘দেশের জিডিপিতে প্রাণিসম্পদের অবদান ২.৬৭ শতাংশ। এ খাতের প্রবৃদ্ধির হার ৩.৯৮ শতাংশ। বর্তমানে পোল্ট্রিগুলো থেকে প্রতিদিন আমরা তিন কোটি ডিম পাচ্ছি। এভাবে চলতে থাকলে ব্যবসায়িক সাফল্যের সঙ্গে এ খাত দেশের অর্থনীতিকেও এগিয়ে নেবে।’

আহসান গ্রুপের চেয়ারম্যান শহীদুল আহসানের সভাপতিত্বে সম্মেলনে আরো বক্তব্য দেন এজি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজের প্রধান নির্বাহী কৃষিবিদ মো. লুত্ফর রহমান, বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. তালুকদার নূরুন্নাহার, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন অনুষদের ডিন ড. এস ডি চৌধুরী প্রমুখ।

সম্মেলন শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে সংগীত পরিবেশন করেন সুবীর নন্দী এবং নৃত্য পরিবেশন করেন নাদিয়া ও লিখন।

মন্তব্য