kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিশ্ব বাণিজ্য কমেছে ১৩.৮ শতাংশ

বাণিজ্য ডেস্ক   

১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বিশ্ব বাণিজ্য কমেছে ১৩.৮ শতাংশ

উদীয়মান দেশগুলোতে পণ্যের চাহিদা কমায় ২০১৫ সালে সবচেয়ে বাজে বছর পার করেছে বিশ্ব বাণিজ্য। গত বছর বিশ্ব বাণিজ্য কমেছে ১৩.৮ শতাংশ।

যা ২০০৯ সালের অর্থনৈতিক সংকটের পর থেকে প্রথম সঙ্কোচন। গত বৃহস্পতিবার বিশ্ব বাণিজ্য নিয়ে ‘ওয়ার্ল্ড ট্রেড মনিটর’ নামে এ রিপোর্ট প্রকাশ করেছে নেদারল্যান্ডস ব্যুরো অব ইকোনমিক পলিসি অ্যানালাইসিস।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্ব বাণিজ্য কমার বড় কারণ চীনসহ উদীয়মান দেশগুলোর অর্থনৈতিক দুরবস্থা। ওই সব দেশে ভোক্তা আস্থা কমেছে এবং পণ্যের চাহিদাও হ্রাস পেয়েছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, হাতাশাব্যঞ্জক এ প্রতিবেদন এমন এক সময়ে প্রকাশ করা হয়েছে যখন বিশ্ব অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করছে সবাই। এ উদ্বেগ গত শুক্রবার শুরু হওয়া জি-২০ভুক্ত দেশগুলোর মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে উঠে এসেছে। ওই বৈঠকে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর মার্ক কারনেই সতর্ক করে দিয়ে বলেন, বিশ্ব অর্থনীতি ক্রমেই নিম্ন প্রবৃদ্ধি, নিম্ন মূল্যস্ফীতি এবং নিম্ন সুদহারে হারিয়ে যাচ্ছে। যা ক্রমেই ভারসাম্য হারিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে।

এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। সংস্থা সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, আগামী পূর্বাভাসে তারা বিশ্ব প্রবৃদ্ধি কমাতে পারে। সংস্থার মতে, বিশ্বের শীর্ষ অর্থনৈতিক দেশগুলো প্রবৃদ্ধি এগিয়ে নিতে খুব ভালো কিছু করছে না।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, ডলারের হিসাবে গত বছর বিশ্ব বাণিজ্য সঙ্কুচিত হয়েছে ১৩.৮ শতাংশ। বিশ্বে আমদানি কমেছে ১৩.৩ শতাংশ এবং রপ্তানি কমেছে ১৪.২ শতাংশ। আমদানি সবচেয়ে বেশি কমেছে উন্নত দেশগুলোতে। এ দেশগুলোতে আমদানি কমেছে ১৪ শতাংশ। এর বিপরীতে উদীয়মান দেশগুলোর আমদানি কমেছে ১২.৪ শতাংশ। তবে উদীয়মান দেশগুলোর রপ্তানি কমেছে ১৫.৬ শতাংশ। এর পাশাপাশি আফ্রিকার রপ্তানি কমেছে ৪১.৪ শতাংশ, ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলোর কমেছে ২০ শতাংশ এবং ইউরোপের রপ্তানি কমেছে ২৯.৪ শতাংশ।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের আমদানি কমেছে ১০ শতাংশ, জাপানের কমেছে ২০ শতাংশ, ইউরো অঞ্চলের কমেছে ১৭ শতাংশ, উদীয়মান এশিয়ার আমদানি কমেছে ১১ শতাংশ এবং উদীয়মান ইউরোপের আমদানি কমেছে ২৫ শতাংশ। ফিন্যানশিয়াল টাইমস।


মন্তব্য