kalerkantho


নজর কেড়েছে মণিপুরি তাঁত

হবিগঞ্জের এসএমই মেলায় ৫০ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



হবিগঞ্জের এসএমই মেলায় ৫০ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি

মণিপুরিদের তৈরি হস্তশিল্প, সিলেটের ঐতিহ্যবাহী শীতলপাটি, চামড়া ও মৃত শিল্পসহ গ্রামের কুটির শিল্পের উত্পাদিত পণ্যের পসরা নিয়ে হবিগঞ্জে সাত দিনব্যাপী আঞ্চলিক এসএমই পণ্য মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

গত শুক্রবার রাতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে নিমতলায় পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় এই মেলা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেটের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার আজম খান। জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কুদ্দছ আলী সরকার, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক সফিউল আলম ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক ফজলুল জাহিদ পাভেল। এর আগে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রধান অতিথি হিসেবে মেলার উদ্বোধন করেন অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির এমপি।

এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপক অকিল রঞ্জন তরফদার জানান, জেলা প্রশাসন আয়োজিত মেলায় হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রায় ৬০টি স্টল অংশ নেয়। এগুলোতে নকশি কাঁথা, হ্যান্ডিক্রাফট, লেদার, ফ্যাশন ডিজাইনিং, খাদ্যদ্রব্য, বুটিকসহ অসংখ্য দেশীয় উত্পাদিত পণ্য রয়েছে।

কথা হয় মণিপুরি তাঁত বস্ত্রালয়ের মালিক বিক্রম সিংহের সঙ্গে। তিনি জানান, সাত দিনের মেলায় তাঁর ৩ লাখ টাকার মতো বিক্রি হয়েছে। তবে সিলেট অঞ্চলের বাইরে তার স্টলের বিক্রি আরো বেশি হয়। এ পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০০টি মেলায় স্টল দিয়েছেন।

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আবাদগাঁও গ্রামের বিক্রম সিংহ জানান, বাড়িতে তাঁর তিনটি তাঁত রয়েছে। এ ছাড়া গ্রামের ৭০ থেকে ৮০টি পরিবারে নিজস্ব তাঁত রয়েছে। এসব তাঁতে তাঁরা মণিপুরি শাড়ি, চাদর, ওড়নাসহ বিভিন্ন পণ্য উত্পাদন করেন। এই উত্পাদিত পণ্য নিয়েই তিনি সারা দেশে স্টল দেন। লোকজন তাঁদের বাড়ি থেকেও মণিপুরি পণ্য কিনে আনে।

নেজারত ডেপুটি কালেক্টর বেলায়েত হোসেন জানান, মেলায় বিক্রি প্রায় ৫০ লাখ টাকা। আবার অনেক স্টলে বিভিন্ন ধরনের সেবা প্রদান করা হয়েছে। অনেকেই তাঁদের পণ্যের প্রদর্শন করেছেন। মেলার মেয়াদ আরো বেশি হলে বিক্রি আরো অনেক বেশি হতো।

 



মন্তব্য