kalerkantho


বিশ্ববাজারে টানা সাত মাস বাড়ল খাদ্যপণ্যের দাম

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বিশ্ববাজারে টানা সাত মাস বাড়ল খাদ্যপণ্যের দাম

গত মাসে খাদ্যপণ্যের দাম বেড়েছে ২.৫ শতাংশ

বিশ্ববাজারে খাদ্যপণ্যের দাম বেড়েছে গত ফেব্রুয়ারি মাসে। এর ফলে টানা সাত মাস বাড়ল খাদ্যপণ্যের দাম।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) জানায়, গম ও ভুট্টার দাম বাড়ায় সার্বিক খাদ্যবাজারে এর প্রভাব পড়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসে এফএওর খাদ্য সূচক বেড়ে হয় ১৭৫.৫ পয়েন্ট, যা প্রায় দুই বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। জানুয়ারি থেকে এ সূচক ০.৫ শতাংশ বেশি এবং ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ১৭.২ শতাংশ বেশি। এফএওর খাদ্যশস্য সূচক জানুয়ারি থেকে বেড়েছে ২.৫ শতাংশ। বিশেষ করে বেড়েছে গম ও ভুট্টার দাম। অন্যদিকে কমেছে ভোজ্য তেলের দাম। বিশ্ববাজারে পাম তেলের চাহিদা কমায় ভোজ্য তেলের দাম কমেছে ৪.১ শতাংশ। এর পাশাপাশি সয়াবিনের দুই বৃহৎ রপ্তানিকারক দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনায় সয়াবিন উত্পাদন বাড়ার পূর্বাভাসও রয়েছে। ফেব্রুয়ারিতে মাংসের দাম বেড়েছে ১.১ শতাংশ এবং চিনির দাম বেড়েছে ০.৬ শতাংশ।

এ বছর বিশ্বে গম উত্পাদন নিয়ে পূর্বাভাস দিয়েছে এফএও। এতে বলা হয়, ২০১৭ সালে বিশ্বে গম উত্পাদন হবে ৭৪৪.৫ মিলিয়ন টন, যা ২০১৬ সালের রেকর্ড উত্পাদন থেকে ১.৮ শতাংশ কম হবে। প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর আমেরিকা অঞ্চলের কৃষকরা এ বছর গম আবাদ কমিয়েছে। তবে রাশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, চীন, ভারত ও পাকিস্তানে শীতকালীন উত্পাদন বাড়বে। এ বছর মানুষের খাদ্য হিসেবে গমের ব্যবহার বাড়বে ১.১ শতাংশ এবং গবাদি পশুর খাদ্য হিসেবে বাড়বে ৬ শতাংশ। বিশ্বজুড়ে গমের মজুদ ৬.৬ শতাংশ বা ১৫ মিলিয়ন টন বেড়ে হবে প্রায় ২৪০ মিলিয়ন টন। বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া, চীন, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রে গমের মজুদ বাড়বে।

এফএও পূর্বাভাসে আরো জানায়, ২০১৬-১৭ মৌসুমে বিশ্বব্যাপী খাদ্যশস্য বাণিজ্য হবে ৩৯৩ মিলিয়ন টন, যা আগের বছরের চেয়ে কিছুটা কম।


মন্তব্য