kalerkantho


রান্না শেখার স্কুলে বাংলা

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রান্না শেখার স্কুলে বাংলা

আঁকা : বিপ্লব

 

 

 

 

 

খিচুড়ি

ব্রত রায়

ডাল দিয়েছি তিন প্রকারের—মসুর, মুগ আর বুট

চাল দিয়েছি সুগন্ধী, বস্, বলছি না তো ঝুট!

 

সবজি দিলাম যেমন ধরুন—ক্যাপসিকাম আর আলু

এই রেসিপির জন্মদাতা আমার ছোট খালু!

 

মাংস দিলাম চিকেন, কারণ, আজ ফ্রিজে নেই খাসি

সবাই জানে মাটন আমি বড্ড ভালোবাসি!

 

মসলা দিলাম নানান, দিলাম পেঁয়াজ, রসুন, আদা

স্বাদ বাড়াতে আর যা লাগে ক্যান্ দেব না, দাদা?

 

একটুখানি ঘি দিয়েছি সবার শেষে ঢেলে

স্বাদ যা হলো, খেয়ে খুশি ঘরের বুড়ো-ছেলে!

 

ঠিক ধরেছেন, এই খিচুড়ি বাংলাদেশি খাঁটি

ভুল উপাদান যুক্ত হলেই রান্না হবে মাটি!

 

বাংলা ভাষাও নির্মিত ঠিক নানান উপাদানে—

ইচ্ছাকৃত বিকৃতি তার বড্ড লাগে কানে!

 

আধালিটার বাংলা, সাথে ইংরেজি একমুঠা

চিমটিখানেক হিন্দি নিয়ে দিচ্ছে জোরে ঘুটা!

 

পাত্রে ঢেলে ছড়িয়ে দিলে ভুল বানানের ঘৃত

এই খিচুড়ির স্বাদ কী করে করবে আমায় প্রীত?

 

সঙ্গে আছে আচার, মানে উচ্চারণের ভুল

সেটা খেয়েই প্রচুর মানুষ বলছে, ‘অসাম, কুল!’

 

এদের ধরে ভর্তি করো রান্না শেখার স্কুলে

নয়তো নতুন প্রজন্মটাই বাংলা যাবে ভুলে!


মন্তব্য